রবিবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ ১৬ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
অ+
অ-

পুলিশ দিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের দমিয়ে রাখা যাবে না”-বাঞ্ছারামপুরে রুমিন ফারহানা

ফয়সল আহমেদ খান, বাঞ্ছারামপুর ( ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বাঞ্ছারামপুর  উপজেলায় পুলিশের গুলিতে নিহত সোনারামপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ – সভাপতি মোঃ নয়ন মিয়ার(২৫) পরিবারের সদস্যদের সাথে সাক্ষাৎ করার সময় সোনারামপুর ইউনিয়নের চর শিবপুর গ্রামের  তার পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করতে গিয়ে বিএনপির সংসদসদস্য  ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা এমপি বলেন,আন্তর্জাতিক চক্রান্তের মাধ্যমে ভোট কারচুপি করে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এসেছে। আবারো নতুন করে ক্ষমতায় আসতে চায়।আমাদের হাজার হাজার নেতাকর্মীকে। হামলা মামলা করেছে পুলিশ দিয়ে হত্যা করেছে। নয়নের হত্যার বিচার এই মাটিতে হবে।

তিনি আরো বলেন,পুলিশ দিয়ে আমাদের নেতা কর্মীকে দমিয়ে রাখা যাবে না।আওয়ামীলীগ সরকারের নির্দেশে আমার ভাই এর উপর পুলিশ গুলি চালিয়েছে। আমরা তাদেরকে বিচারের আওতায় আনবো। 

বিএনপি স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন,আমাদের বিএনপি কর্মীরা যখন সবাই একত্রিত হয় পুলিশরা তখন ভয়ে থাকে। তাই আমাদের আন্দোলনের প্রযোজন।জনশক্তির উপরে কোন শক্তি নেই। জনরসের মাধ্যমে কোন শক্তি টিকে না।

বাঞ্ছারামপুর আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কৃষিবিদ মেহেদী হাসান পলাশ বলেন, আমি নয়নের পরিবারের দায়িত্ব নিয়েছি।নয়নের ছোট একটি বাচ্চা আছে। যতদিন পর্যন্ত বড় না হবে সব লেখা পড়ার দায়িত্ব আমি নিব।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন,বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য এম এ খালেক,বাঞ্ছারামপুর উপজেলার আহবায়ক লিকতআলী ফরিদ,বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য এডভোকেট রফিক সিকদার,উপজেলা বিএনপির  সদস্য সচিব এ. কে এম মুছা,কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবন,সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল,জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন,জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ফুজায়েল, সাধারণ সম্পাদক মহসিন হৃদয়।

বিএনপি নেতাকর্মীরা নিহত মোঃ নয়নের মিয়া পরিবারকে দেখতে গিয়ে ২ লক্ষ টাকার চেক তার পরিবারের হাতে তুলে দিন। এসময় ছাত্রদল,যুবদল,কৃষকদল, স্বেচ্ছাসেবকদল সহ বিএনপির বহু নেতাকর্মী উপস্থিত ছিল।উল্লেখ্য,গত ১৯ নভেম্বর ছাত্রদল সোনারামপুর  ইউনিয়নের  সহ সহভাপতি মোঃ নয়ন মিয়াপুলিশের গুলিতে নয়ন নিহত হয়।

print

আন্তর্জাতিক : আরো পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন