শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
অ+
অ-

মুরাদনগরে অধ্যক্ষের উপর সন্ত্রাসী হামলা ভাংচুর

আবুল খায়ের, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

রোজ বিহস্পতিবার, ০২ জুলাই ২০১৫ ইং (মুরাদনগর বার্তা ডটকম):

মুরাদনগর বাইড়া আরিফ স্কুল এন্ড কলেজ সভাপতির নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার দুপুর ৪টার সময় অধ্যক্ষকে অস্ত্র ঠেকিয়ে মারধর ও ভাংচুর করে শিক্ষক নিয়োগের কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়েছে সন্ত্রাসীরা।

সন্ত্রাসী হামলার শিকার অধ্যক্ষ অভিযোগ করে বলেন, সভাপতি ও আ’লীগ নেতা আলী ইমাম কাউছার রুবেল ওই কলেজে মোটা অংকের উৎকুচ নিয়ে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরন না করেই গনিত বিভাগে মাজহারুল নামের একজন আর সমাজকর্ম বিভাগে জেসমিন আক্তার নামের ২ শিক্ষককে নিয়োগ দেয়ার পায়তারা করলে আমিসহ পরিচালনা পরিষদের অন্য সদস্যগণ তাতে বাঁধা প্রদান করি। যার ফলে সভাপতির পছন্দের নিয়োগ প্রক্রিয়াটি বন্দ হয়ে যায়। বিষয়টি নিয়ে চরমভাবে ক্ষুব্ধ হন সভাপতি রুবেল। পরে বৃহস্পতিবার দুপুরে আকস্মিকভাবে সভাপতি আলী ইমাম কাউছার রুবেলের নেতৃত্বে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী বেশ কয়েকটি মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী এনামুল হক জুয়েল, হত্যা মামলার আসামী রাসেদুল ইসলাম, মাজহারুল হক, দুলাল মিয়াসহ একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী এসে অধ্যক্ষ কামাল উদ্দিন আহাম্মেদকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নিয়োগের সকল কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয় বলে অভিযোগ করেন তিনি। পরে সন্ত্রাসীরা অধ্যক্ষকে একটি কক্ষে নিয়ে মারধর শুরু করলে তার চিৎকারে কলেজের অন্য শিক্ষকসহ স্থানীয় লোকজন এসে তাকে উদ্ধারের চেষ্ঠা চালিয়ে ব্যার্থ হয়। এ সময় অন্যন্য শিক্ষকগন তাকে বাচাতে এসে হামলার শিকার হন। খবর পেয়ে মুরাদনগর থানার এসআই ছিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ এসে অধ্যক্ষ কামাল উদ্দিন আহাম্মেদকে উদ্ধার করে। পরে কলেজের পরিচালনা পরিষদের সদস্যগণসহ স্থানীয়রা গুরতর আহত অধ্যক্ষকে মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। তবে এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। তিনি বলেন, অধ্যক্ষের উপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

print

আরো পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন