ঢাকা ১১:৪৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইতিহাস গড়ে দ. কোরিয়ায় কিম

 অন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন সীমান্ত অতিক্রম করে দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্তে প্রবেশ করেছেন। এ সময় কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে ইন তাঁকে স্বাগত জানান। ১৯৫৩ সালে কোরীয় যুদ্ধের অবসানের পর প্রথমবারের মতো দক্ষিণ কোরিয়ায় পৌঁছালেন কোনও উত্তর কোরীয় শীর্ষ নেতা। শুক্রবার সকালে নয় সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় পৌঁছান কিম।
কিম জং উনকে দক্ষিণ কোরিয়ায় গার্ড অব অনার দেয়া হয়
দক্ষিণ কোরিয়া জানিয়েছে, স্থানীয় সময় আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় অসামরিক এলাকা হিসেবে পরিচিত পানমুনজামের পিস হাউসে উত্তর কোরিয়ার নেতার সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন মুন জে ইন। এই আলোচনায় মূলত উত্তর কোরিয়ার পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ বিষয়টি গুরুত্ব পাবে। তবে উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করতে রাজি করিয়ে একটি চুক্তিতে পৌঁছানো কঠিন কাজ বলে স্বীকার করেছে সিউল।
দেশটির প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র জং সিওক বলেন, উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করানো সহজ কাজ নয়। কারণ এক দশকের বেশি সময় ধরে দুই দেশের নেতাদের মধ্যে কোনো বৈঠক হয়নি। এরই মধ্যে উত্তর কোরিয়া পরমাণু অস্ত্র প্রকল্প বহুদূর এগিয়ে নিয়েছে।
দুপুরের খাবারের আগে কিম এবং মুন উভয় দেশের সীমানার মধ্যে একটি করে পাইন গাছ রোপন করবেন। তাদের খাবারের তালিকায় থাকছে দুই কোরিয়ার বিখ্যাত সব খাদ্য।
ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

ইতিহাস গড়ে দ. কোরিয়ায় কিম

আপডেট সময় ০৮:৩৪:১০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ এপ্রিল ২০১৮
 অন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন সীমান্ত অতিক্রম করে দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্তে প্রবেশ করেছেন। এ সময় কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে ইন তাঁকে স্বাগত জানান। ১৯৫৩ সালে কোরীয় যুদ্ধের অবসানের পর প্রথমবারের মতো দক্ষিণ কোরিয়ায় পৌঁছালেন কোনও উত্তর কোরীয় শীর্ষ নেতা। শুক্রবার সকালে নয় সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় পৌঁছান কিম।
কিম জং উনকে দক্ষিণ কোরিয়ায় গার্ড অব অনার দেয়া হয়
দক্ষিণ কোরিয়া জানিয়েছে, স্থানীয় সময় আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় অসামরিক এলাকা হিসেবে পরিচিত পানমুনজামের পিস হাউসে উত্তর কোরিয়ার নেতার সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন মুন জে ইন। এই আলোচনায় মূলত উত্তর কোরিয়ার পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ বিষয়টি গুরুত্ব পাবে। তবে উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করতে রাজি করিয়ে একটি চুক্তিতে পৌঁছানো কঠিন কাজ বলে স্বীকার করেছে সিউল।
দেশটির প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র জং সিওক বলেন, উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করানো সহজ কাজ নয়। কারণ এক দশকের বেশি সময় ধরে দুই দেশের নেতাদের মধ্যে কোনো বৈঠক হয়নি। এরই মধ্যে উত্তর কোরিয়া পরমাণু অস্ত্র প্রকল্প বহুদূর এগিয়ে নিয়েছে।
দুপুরের খাবারের আগে কিম এবং মুন উভয় দেশের সীমানার মধ্যে একটি করে পাইন গাছ রোপন করবেন। তাদের খাবারের তালিকায় থাকছে দুই কোরিয়ার বিখ্যাত সব খাদ্য।