ঢাকা ০৬:০২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইমরানের পদত্যাগের দাবিতে লাখো মানুষের ‘আজাদি মার্চ’

আন্তর্জাতিক :

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সরকারের পদত্যাগের দাবিতে আজাদি মার্চে অংশ নিয়েছে দেশটির কট্টর ইসলামপন্থী দল জামিয়াত উলেমা-ই-ইসলাম ফজল। দলটির প্রধান মাওলানা রেহমান এই সমাবেশের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী তৎপর রয়েছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার দেশটিতে ট্রেন দুর্ঘটনায় ৭৩জন নিহতের ঘটনায় ওই দিন সমাবেশ একদিনের জন্য স্থগিত করেছিল দেশটির সরকার।

গত ২৭ অক্টোবর বুধবার পাঞ্জাব প্রদেশ থেকে রাজধানী ইসলামাবাদে অনুষ্ঠিত সমাবেশের উদ্দেশ্যে রওনা দেন সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। এরপর বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানী ইসলামাবাদের দিকে অগ্রসর হতে থাকে দলটি। শুক্রবার সকালে ইসলামাবাদের পেশোয়ার মোড়ে সমাবেশস্থলে পৌঁছান।

দেশটির সংবাদমাধ্য ‘ডন’ অনলাইনে ভোটাভুটির আয়োজন করে। সেখানে পাঠকদের নিকট জানতে চাওয়া হয় যে, আজাদি মার্চ সফল হবে কিনা। এতে ৭৩ শতাংশ মানুষ সমাবেশ সফল হবে না বলে জানায়।

সমাবেশস্থলে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী জামিয়াত উলেমা-ই-ইসলামের পতাকা হাতে স্লোগান দিতে থাকেন।

জামিয়াত উলেমা-ই-ইসলামের প্রধান মাওলানা ফজলুর রেহমান আজাদি এক বক্তৃতায় মার্চে অংশ নিয়ে তাদের প্রতি সমর্থন জ্ঞাপন এবং তারা যে শান্তিপূর্ণভাবে এই সমাবেশ করছেন সেজন্য নেতা-কর্মীদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, শুক্রবার জুমার নামাজের পর তিনি তাদের দাবি-দাওয়া সরকারের কাছে জানাবেন।

পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) চেয়ারম্যান বিল্লাল ভুট্টো জার্দারিও বৃহস্পতিবার রাতে আজাদি মার্চে যোগ দিয়েছেন। এক বক্তৃতায় তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানের জনগণ কোনো পুতুল প্রধানমন্ত্রীকে মেনে নেবে না।’

তিনি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে উদ্দেশ করে বলেন, এবার তার যাওয়ার সময় হয়েছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগরে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার

ইমরানের পদত্যাগের দাবিতে লাখো মানুষের ‘আজাদি মার্চ’

আপডেট সময় ১২:৫৯:৪১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ নভেম্বর ২০১৯

আন্তর্জাতিক :

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সরকারের পদত্যাগের দাবিতে আজাদি মার্চে অংশ নিয়েছে দেশটির কট্টর ইসলামপন্থী দল জামিয়াত উলেমা-ই-ইসলাম ফজল। দলটির প্রধান মাওলানা রেহমান এই সমাবেশের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী তৎপর রয়েছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার দেশটিতে ট্রেন দুর্ঘটনায় ৭৩জন নিহতের ঘটনায় ওই দিন সমাবেশ একদিনের জন্য স্থগিত করেছিল দেশটির সরকার।

গত ২৭ অক্টোবর বুধবার পাঞ্জাব প্রদেশ থেকে রাজধানী ইসলামাবাদে অনুষ্ঠিত সমাবেশের উদ্দেশ্যে রওনা দেন সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। এরপর বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানী ইসলামাবাদের দিকে অগ্রসর হতে থাকে দলটি। শুক্রবার সকালে ইসলামাবাদের পেশোয়ার মোড়ে সমাবেশস্থলে পৌঁছান।

দেশটির সংবাদমাধ্য ‘ডন’ অনলাইনে ভোটাভুটির আয়োজন করে। সেখানে পাঠকদের নিকট জানতে চাওয়া হয় যে, আজাদি মার্চ সফল হবে কিনা। এতে ৭৩ শতাংশ মানুষ সমাবেশ সফল হবে না বলে জানায়।

সমাবেশস্থলে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী জামিয়াত উলেমা-ই-ইসলামের পতাকা হাতে স্লোগান দিতে থাকেন।

জামিয়াত উলেমা-ই-ইসলামের প্রধান মাওলানা ফজলুর রেহমান আজাদি এক বক্তৃতায় মার্চে অংশ নিয়ে তাদের প্রতি সমর্থন জ্ঞাপন এবং তারা যে শান্তিপূর্ণভাবে এই সমাবেশ করছেন সেজন্য নেতা-কর্মীদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, শুক্রবার জুমার নামাজের পর তিনি তাদের দাবি-দাওয়া সরকারের কাছে জানাবেন।

পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) চেয়ারম্যান বিল্লাল ভুট্টো জার্দারিও বৃহস্পতিবার রাতে আজাদি মার্চে যোগ দিয়েছেন। এক বক্তৃতায় তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানের জনগণ কোনো পুতুল প্রধানমন্ত্রীকে মেনে নেবে না।’

তিনি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে উদ্দেশ করে বলেন, এবার তার যাওয়ার সময় হয়েছে।