ঢাকা ০৮:৪২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

উর্ধতন তিনশ কর্মকর্তাকে আটক করেছে সৌদি আরব

আন্তর্জাতিক :

রাজ পরিবারে অভ্যন্তরীণ দ্বন্ধ চলার মধ্যে প্রায় তিনশ কর্মকর্তাকে সৌদি আরর গ্রেপ্তার করেছে বলে খবর দিয়েছে আল জাজিরা। দেশটির দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা এসব কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আর্থিক দুর্নীতি, ঘুষ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ এনেছে। এদের মধ্যে রয়েছেন সরকারি, সামরিক ও নিরাপত্তা বাহিনীর উর্ধতন কর্মকতারা। তবে একটি অভ্যুত্থান চেষ্টায় জড়িত থাকার অভিযোগে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়ে থাকতে পারে বলেও মনে করছে কাতারভিত্তিক এই সংবাদমাধ্যম।

আল জাজিরা জানায়, রবিবার সৌদি আরবের জাতীয় দুর্নীতি দমন কমিশন এক বিবৃতিতে কর্মকর্তাদের আটকের কথা জানিয়েছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ৩৭৯ মিলিয়ন সৌদি রিয়াল অর্থাৎ ১০১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

তবে এত সংখ্যক কর্মকর্তাকে আটকের বিষয়ে কোনো মন্তব্য আসেনি দেশটির সরকারের তরফে। যদিও গুজব উঠেছে অভ্যুত্থানের চেষ্টা নসাৎ করতেই তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কারাগারের পরিবর্তে রিয়াদে একটি বিলাসবহুল হোটেলে আটক রাখা হয়েছে তাদের। কর্মকর্তাদের কারো কারো ওপর শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগও উঠেছে।

সৌদি আরবের বাদশাহ সালমানের বয়স এখন ৮৪ বছর। তার ছেলে ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানই কার্যত দেশটি চালাচ্ছেন। খাসোগি হত্যাসহ নানা কারণে বিতর্কিত এই যুবরাজ ক্ষমতারোহনে তার প্রতিদ্বন্দ্বিদের বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছেন। গেল সপ্তাহেই বাদশাহ সালমানের এক ভাইসহ তিনজনকে প্রিন্স সালমানের নির্দেশে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে বলে খবর আসে।

বিশ্লেষকদের বরাত দিয়ে আল জাজিরা বলছে, বাদশাহ সালমানের ছেলে ও ভবিষ্যৎ সিংহাসনের উত্তরাধিকারী প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান রাজনীতিতে হুমকি কর্মকর্তাদের সরানোর জন্যই আটক করা হয়েছে।

এর আগে ২০০৫ থেকে ২০১৫ ১৫ সালের মধ্যে সরকারি প্রকল্পে অবৈধ আর্থিক লেনদেন ও মানিলন্ডারিং এর অভিযোগে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আট কর্মকর্তাকে আটক করেছে। এছাড়া দেশটির পূর্ব প্রদেশের অভ্যন্তরীণ মন্ত্রণালয়ের ২৯ কর্মকর্তাকেও আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে তিনজন কর্নেল, একজন মেজর জেনারেল এবং একজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেলও রয়েছেন।

এছাড়া রিয়াদের আলমারেফা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ভবন নির্মাণ প্রকল্পে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে দুইজন বিচারককেও আটক করা হয়েছে। ওই ভবন ধসে কয়েকজন মারা গিয়েছিল।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

উর্ধতন তিনশ কর্মকর্তাকে আটক করেছে সৌদি আরব

আপডেট সময় ০৩:৩৫:০৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ মার্চ ২০২০

আন্তর্জাতিক :

রাজ পরিবারে অভ্যন্তরীণ দ্বন্ধ চলার মধ্যে প্রায় তিনশ কর্মকর্তাকে সৌদি আরর গ্রেপ্তার করেছে বলে খবর দিয়েছে আল জাজিরা। দেশটির দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা এসব কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আর্থিক দুর্নীতি, ঘুষ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ এনেছে। এদের মধ্যে রয়েছেন সরকারি, সামরিক ও নিরাপত্তা বাহিনীর উর্ধতন কর্মকতারা। তবে একটি অভ্যুত্থান চেষ্টায় জড়িত থাকার অভিযোগে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়ে থাকতে পারে বলেও মনে করছে কাতারভিত্তিক এই সংবাদমাধ্যম।

আল জাজিরা জানায়, রবিবার সৌদি আরবের জাতীয় দুর্নীতি দমন কমিশন এক বিবৃতিতে কর্মকর্তাদের আটকের কথা জানিয়েছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ৩৭৯ মিলিয়ন সৌদি রিয়াল অর্থাৎ ১০১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

তবে এত সংখ্যক কর্মকর্তাকে আটকের বিষয়ে কোনো মন্তব্য আসেনি দেশটির সরকারের তরফে। যদিও গুজব উঠেছে অভ্যুত্থানের চেষ্টা নসাৎ করতেই তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কারাগারের পরিবর্তে রিয়াদে একটি বিলাসবহুল হোটেলে আটক রাখা হয়েছে তাদের। কর্মকর্তাদের কারো কারো ওপর শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগও উঠেছে।

সৌদি আরবের বাদশাহ সালমানের বয়স এখন ৮৪ বছর। তার ছেলে ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানই কার্যত দেশটি চালাচ্ছেন। খাসোগি হত্যাসহ নানা কারণে বিতর্কিত এই যুবরাজ ক্ষমতারোহনে তার প্রতিদ্বন্দ্বিদের বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছেন। গেল সপ্তাহেই বাদশাহ সালমানের এক ভাইসহ তিনজনকে প্রিন্স সালমানের নির্দেশে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে বলে খবর আসে।

বিশ্লেষকদের বরাত দিয়ে আল জাজিরা বলছে, বাদশাহ সালমানের ছেলে ও ভবিষ্যৎ সিংহাসনের উত্তরাধিকারী প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান রাজনীতিতে হুমকি কর্মকর্তাদের সরানোর জন্যই আটক করা হয়েছে।

এর আগে ২০০৫ থেকে ২০১৫ ১৫ সালের মধ্যে সরকারি প্রকল্পে অবৈধ আর্থিক লেনদেন ও মানিলন্ডারিং এর অভিযোগে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আট কর্মকর্তাকে আটক করেছে। এছাড়া দেশটির পূর্ব প্রদেশের অভ্যন্তরীণ মন্ত্রণালয়ের ২৯ কর্মকর্তাকেও আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে তিনজন কর্নেল, একজন মেজর জেনারেল এবং একজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেলও রয়েছেন।

এছাড়া রিয়াদের আলমারেফা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ভবন নির্মাণ প্রকল্পে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে দুইজন বিচারককেও আটক করা হয়েছে। ওই ভবন ধসে কয়েকজন মারা গিয়েছিল।