ঢাকা ০৮:৩১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কুমিল্লায় খালা-ভাগনিকে ধর্ষণ

স্টাফ রির্পোটার, কুমিল্লা প্রতিনিধিঃ

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কুমিল্লা নগরের শাকতলা এলাকায় একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে দুই কিশোরী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। তারা সম্পর্কে খালা-ভাগনি। কিশোরীদের মধ্যে একজনের বয়স ১৪ বছর, আরেকজনের বয়স ১৩ বছর। এ ঘটনায় ওই দুই কিশোরী আজ বিকেলে সদর দক্ষিণ মডেল থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করেছে।

জানা যায়, ওই দুই কিশোরী আজ সকালে শাকতলা এলাকার এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে ঠাকুরপাড়ার বাসায় যাচ্ছিল। পথে দুই বখাটে তাদের পথ আগলে দাঁড়ায়। একপর্যায়ে ওই বখাটেরা একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তাদের ধর্ষণ করে। তখন সেখানে আরও দুজন ব্যক্তি দাঁড়িয়ে পাহারা দিয়েছেন।

একপর্যায়ে ওই কিশোরীদের ছবি তোলা হয় এবং তাদের ভয়ভীতি দেখানো হয়। একই সঙ্গে তাদের কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। এরপর ওই কিশোরীদের পরিবারের সদস্যদের ডেকে এনে টাকা চাওয়া হয়। পরিবারের সদস্যরা আট হাজার টাকা দেবেন বলে আশ্বাস দিয়ে কিশোরীদের ছাড়িয়ে নেন।

ঘটনাস্থল থেকে ফিরে এসে দুই কিশোরীর পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি স্থানীয় ব্যক্তিদের জানান। তাদের পরামর্শে দুই কিশোরীকে সদর দক্ষিণ মডেল থানায় পাঠানো হয়। অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ ওই কিশোরীদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। রাতেই তাদের ডাক্তারি পরীক্ষা করা হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, বিষয়টি আমি জেনেছি। এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সদর দক্ষিণ মডেল থানা-পুলিশকে বলা হয়েছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগর ভয়াবহ আগুন কয়ক কাটি টাকার ক্ষতি 

কুমিল্লায় খালা-ভাগনিকে ধর্ষণ

আপডেট সময় ০৩:২২:০৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ জুন ২০১৭
স্টাফ রির্পোটার, কুমিল্লা প্রতিনিধিঃ

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কুমিল্লা নগরের শাকতলা এলাকায় একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে দুই কিশোরী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। তারা সম্পর্কে খালা-ভাগনি। কিশোরীদের মধ্যে একজনের বয়স ১৪ বছর, আরেকজনের বয়স ১৩ বছর। এ ঘটনায় ওই দুই কিশোরী আজ বিকেলে সদর দক্ষিণ মডেল থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করেছে।

জানা যায়, ওই দুই কিশোরী আজ সকালে শাকতলা এলাকার এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে ঠাকুরপাড়ার বাসায় যাচ্ছিল। পথে দুই বখাটে তাদের পথ আগলে দাঁড়ায়। একপর্যায়ে ওই বখাটেরা একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তাদের ধর্ষণ করে। তখন সেখানে আরও দুজন ব্যক্তি দাঁড়িয়ে পাহারা দিয়েছেন।

একপর্যায়ে ওই কিশোরীদের ছবি তোলা হয় এবং তাদের ভয়ভীতি দেখানো হয়। একই সঙ্গে তাদের কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। এরপর ওই কিশোরীদের পরিবারের সদস্যদের ডেকে এনে টাকা চাওয়া হয়। পরিবারের সদস্যরা আট হাজার টাকা দেবেন বলে আশ্বাস দিয়ে কিশোরীদের ছাড়িয়ে নেন।

ঘটনাস্থল থেকে ফিরে এসে দুই কিশোরীর পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি স্থানীয় ব্যক্তিদের জানান। তাদের পরামর্শে দুই কিশোরীকে সদর দক্ষিণ মডেল থানায় পাঠানো হয়। অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ ওই কিশোরীদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। রাতেই তাদের ডাক্তারি পরীক্ষা করা হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, বিষয়টি আমি জেনেছি। এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সদর দক্ষিণ মডেল থানা-পুলিশকে বলা হয়েছে।