ঢাকা ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কুমিল্লায় সংঘর্ষে আহত ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

image_209724.7

মো: দেলোয়ার হোসেন, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

১২ এপ্রিল ২০১৫ ইং (মুরাদনগর বার্তা ডটকম):

কুমিল্লা নগরীর কান্দিরপাড় এলাকার পূবালী চত্বরের সামনে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় সাইফুল ইসলাম নামে আহত ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু হয়েছে।

রোববার সকাল ৯টার দিকে নগরীর মুন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

সাইফুল ইসলাম কুমিল্লা সদরের গোবিন্দপুর এলাকার বাসিন্দা। তিনি শহর ছাত্রলীগের সভাপতি এবং কুমিল্লা সার্ভে কলেজের সাবেক জিএস।

কুমিল্লা কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খোরশেদ আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

উল্লোখ্য, গত শনিবার (১১ এপ্রিল) সকাল ১১টার দিকে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) প্রশাসনিক ভবনের একটি কক্ষে কুবি শাখা ছাত্রলীগের কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম উপস্থিত ছিলেন।

কর্মীসভা উপলক্ষে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কুবি ছাত্রলীগের মাসুম ও ইলিয়াছ গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পালটা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় ১০ রাউন্ড গুলিবর্ষণের ঘটনাও ঘটে। এর জের ধরে বিকেল ৫টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত কুমিল্লা নগরীর কান্দিরপাড় এলাকার পূবালী চত্বরের সামনে শহর ছাত্রলীগের দু’পক্ষে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এ সময় উভয়পক্ষে গুলিবিনিময়, ককটেল বিস্ফোরণ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম, সপ্তম শ্রেণির ছাত্র মেহেদী ও ফয়েজসহ ১০ জন আহত হয়।

ট্যাগস

কুমিল্লায় সংঘর্ষে আহত ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

আপডেট সময় ০৯:১৬:০৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১২ এপ্রিল ২০১৫

image_209724.7

মো: দেলোয়ার হোসেন, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

১২ এপ্রিল ২০১৫ ইং (মুরাদনগর বার্তা ডটকম):

কুমিল্লা নগরীর কান্দিরপাড় এলাকার পূবালী চত্বরের সামনে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় সাইফুল ইসলাম নামে আহত ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু হয়েছে।

রোববার সকাল ৯টার দিকে নগরীর মুন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

সাইফুল ইসলাম কুমিল্লা সদরের গোবিন্দপুর এলাকার বাসিন্দা। তিনি শহর ছাত্রলীগের সভাপতি এবং কুমিল্লা সার্ভে কলেজের সাবেক জিএস।

কুমিল্লা কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খোরশেদ আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

উল্লোখ্য, গত শনিবার (১১ এপ্রিল) সকাল ১১টার দিকে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) প্রশাসনিক ভবনের একটি কক্ষে কুবি শাখা ছাত্রলীগের কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম উপস্থিত ছিলেন।

কর্মীসভা উপলক্ষে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কুবি ছাত্রলীগের মাসুম ও ইলিয়াছ গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পালটা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় ১০ রাউন্ড গুলিবর্ষণের ঘটনাও ঘটে। এর জের ধরে বিকেল ৫টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত কুমিল্লা নগরীর কান্দিরপাড় এলাকার পূবালী চত্বরের সামনে শহর ছাত্রলীগের দু’পক্ষে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এ সময় উভয়পক্ষে গুলিবিনিময়, ককটেল বিস্ফোরণ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম, সপ্তম শ্রেণির ছাত্র মেহেদী ও ফয়েজসহ ১০ জন আহত হয়।