ঢাকা ১০:৩৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনাকে হারিয়ে শেষ চারে চট্টগ্রাম

খেলাধূলা ডেস্ক:

খুলনা টাইগার্সকে ৬ উইকেটে হারিয়ে সবার আগে শেষ চার নিশ্চিত করলো চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। আর ৯ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে শেষ চারে উঠার অপেক্ষার পালা বাড়লো খুলনার। খুলনার দেয়া ১২২ রানের টার্গেটকে ১১ বল ও ৬ উইকেট হাতে রেখে সহজেই টপকে যায় চট্টগ্রাম।

সিলেট পর্বের শেষ ম্যাচে খুলনার দেয়া ১২২ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে লিন্ডল সিমন্স ও জুনায়েদ সিদ্দিকীর ওপেনিং জুটিতেই আসে ৬৯ রান। ২৮ বলে ৩৬ রানে সিমন্স ও ৩৯ বলে ৩৮ রানের ধৈর্যশীল ইনিংস খেলেন জুনায়েদ সিদ্দিক। ২ ছক্কা ও ২ চারে ২৭ বলে ৩০ রান করে জয়ের বাকি কাজটা শেষ করেন চট্টগ্রামের অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। খুলনার পক্ষে ফ্রাইলিঙ্ক নেন দুটি উইকেট।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে খুলনা টাইগার্স ১৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে শুরু থেকেই দিশেহারা হয়ে পড়ে। মাঝে মুশফিকুর রহিমের ২৯ ও রাইলি রুশোর ৪৮ রানের ইনিংসটা কিছুটা স্বপ্ন দেখিয়েছিলো খুলনাকে। তারা আউট হলে দলের আর কেউ হাল ধরতে পারেননি। পরে ১২১ রানেই থেমে যায় খুলনার ইনিংস। চট্টগ্রামের পক্ষে রুবেল হোসেন ও মেহেদী হাসান রানা নেন ৩টি করে উইকেট। এমন বোলিংয়ের পর ম্যাচ সেরার পুরস্কারও জুটে মেহেদীর কপালে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

খুলনাকে হারিয়ে শেষ চারে চট্টগ্রাম

আপডেট সময় ০৩:১৭:১৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ জানুয়ারী ২০২০

খেলাধূলা ডেস্ক:

খুলনা টাইগার্সকে ৬ উইকেটে হারিয়ে সবার আগে শেষ চার নিশ্চিত করলো চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। আর ৯ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে শেষ চারে উঠার অপেক্ষার পালা বাড়লো খুলনার। খুলনার দেয়া ১২২ রানের টার্গেটকে ১১ বল ও ৬ উইকেট হাতে রেখে সহজেই টপকে যায় চট্টগ্রাম।

সিলেট পর্বের শেষ ম্যাচে খুলনার দেয়া ১২২ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে লিন্ডল সিমন্স ও জুনায়েদ সিদ্দিকীর ওপেনিং জুটিতেই আসে ৬৯ রান। ২৮ বলে ৩৬ রানে সিমন্স ও ৩৯ বলে ৩৮ রানের ধৈর্যশীল ইনিংস খেলেন জুনায়েদ সিদ্দিক। ২ ছক্কা ও ২ চারে ২৭ বলে ৩০ রান করে জয়ের বাকি কাজটা শেষ করেন চট্টগ্রামের অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। খুলনার পক্ষে ফ্রাইলিঙ্ক নেন দুটি উইকেট।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে খুলনা টাইগার্স ১৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে শুরু থেকেই দিশেহারা হয়ে পড়ে। মাঝে মুশফিকুর রহিমের ২৯ ও রাইলি রুশোর ৪৮ রানের ইনিংসটা কিছুটা স্বপ্ন দেখিয়েছিলো খুলনাকে। তারা আউট হলে দলের আর কেউ হাল ধরতে পারেননি। পরে ১২১ রানেই থেমে যায় খুলনার ইনিংস। চট্টগ্রামের পক্ষে রুবেল হোসেন ও মেহেদী হাসান রানা নেন ৩টি করে উইকেট। এমন বোলিংয়ের পর ম্যাচ সেরার পুরস্কারও জুটে মেহেদীর কপালে।