ঢাকা ০১:১৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাড়িতে যাত্রীদের অসুস্থ হওয়ার প্রবণতা বন্ধ করবে আইওএস ১৮

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্কঃ

সম্প্রতি আইফোনের অপারেটিং সিস্টেম ‘আইওএস’-এর জন্য কয়েকটি নতুন ফিচার দেখিয়েছে অ্যাপল। এর মধ্যে রয়েছে এমন এক অভিজ্ঞতা, যা গাড়িতে ফোন ব্যবহারের সময় যাত্রীদের অসুস্থ হওয়ার প্রবণতা বন্ধ করতে পারে।

বুধবার ‘ভিয়েকল মোশন কিউস’ নামে একটি নতুন ফিচার ঘোষণা করেছে টেক জায়ান্ট কোম্পানিটি, যা তৈরি হয়েছে চলন্ত গাড়িতে যাত্রীর ‘মোশন সিকনেস’ বা গতিবিধির অসুস্থতা কমানোর লক্ষ্যে।

ফিচারটি চালু করলে স্ক্রিনের বিভিন্ন প্রান্তে কিছু ‘অ্যানিমেটেড ডট’ দেখা যাবে, যেগুলো গাড়ির গতিবিধির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ঘুরতে থাকে। অ্যাপল বলছে, এর মাধ্যমে ফোনের সেন্সর সংশ্লিষ্ট জটিলতা কমে আসবে।

এইসব চলমান বিন্দু ফোনের কাজে হস্তক্ষেপ না করেই গাড়ির গতিকে অনুকরণ করবে। ফলে, গাড়ির পেছনের সিটে বসে ব্যবহারকারীরা আরো আরামে স্ক্রিনের লেখা পড়তে বা গেইম খেলতে পারবেন।

এর আগের এক গবেষণায় উঠে এসেছে, মোশন সিকনেস মূলত দেখা যায় মানুষের দৈহিক অনুভূতির সঙ্গে চোখ দিয়ে দেখা দৃশ্যের অমিল ঘটলে।

নতুন ফিচারটি ১৬ মে ‘গ্লোবাল অ্যাক্সেসিবিলিটি অ্যাওয়ারনেস ডে’র আগে ঘোষণা করা বিভিন্ন আপডেটের অংশ। আর এ বছরের শেষ নাগাদ আইফোন ১৬’র সঙ্গে আইওএস ১৮’র অংশ হিসেবে এটি প্রকাশ পেতে পারে বলে প্রতিবেদনে লিখেছে ব্রিটিশ দৈনিক ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

এতে আইফোন ও আইপ্যাডের সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে, যা দিয়ে ব্যবহারকারী কখন চলমান গাড়িতে আছেন, তা শনাক্ত করা যায়। আর ফোনের কন্ট্রোল সেন্টার থেকেই ফিচারটি চালু বা বন্ধ করা যাবে।

নতুন মোশন সিকনেস ফিচারের পাশাপাশি আইফোন ও আইপ্যাডে ‘আই ট্র্যাকিং’ নামের সুবিধা আনছে অ্যাপল, যার মাধ্যমে শারীরিক প্রতিবন্ধী ব্যবহারকারীরা শুধু চোখ দিয়েই ডিভাইস নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।

অ্যাপল বলছে, ফিচারটি এআইয়ের মাধ্যমে চলবে ও ফোনের সামনের ক্যামেরা ব্যবহার করবে। এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা শুধু নিজের চোখ ব্যবহার করেই গাড়ির গতিবিধি ‘নেভিগেট’ করতে, বিভিন্ন কনটেন্টের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে এবং স্ক্রিনের ওপরে ও নিচে সোয়াইপ করতে পারবেন।

‘মিউজিক হ্যাপটিক্স’ নামের আরো একটি নতুন ফিচার আনছে অ্যাপল। এতে ব্যবহার করা হয়েছে আইফোনের ‘ট্যাপটিক ইঞ্জিন’ নামের সুবিধাটি, যার মাধ্যমে সংগীতের তালে তালে ডিভাইসে কম্পন সৃষ্টি হবে।

শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যবহারকারীদের ফোনে সংগীত উপভোগের নতুন উপায় দেবে ফিচারটি। এর আগে স্টার্টআপ কোম্পানি ‘নাথিং’ নিজেদের ফোনে একই ধরনের ফিচার এনেছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে ইনডিপেন্ডেন্ট।

এ ছাড়া, ১০ জুন নিজস্ব আয়োজন ডব্লিউডব্লিউডিসি’তে আইওএস ১৮’র আসন্ন ফিচারগুলো ঘোষণা দিতে পারে অ্যাপল, যেখানে বড় ভূমিকা রাখতে পারে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

গাড়িতে যাত্রীদের অসুস্থ হওয়ার প্রবণতা বন্ধ করবে আইওএস ১৮

আপডেট সময় ০১:০৮:০০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্কঃ

সম্প্রতি আইফোনের অপারেটিং সিস্টেম ‘আইওএস’-এর জন্য কয়েকটি নতুন ফিচার দেখিয়েছে অ্যাপল। এর মধ্যে রয়েছে এমন এক অভিজ্ঞতা, যা গাড়িতে ফোন ব্যবহারের সময় যাত্রীদের অসুস্থ হওয়ার প্রবণতা বন্ধ করতে পারে।

বুধবার ‘ভিয়েকল মোশন কিউস’ নামে একটি নতুন ফিচার ঘোষণা করেছে টেক জায়ান্ট কোম্পানিটি, যা তৈরি হয়েছে চলন্ত গাড়িতে যাত্রীর ‘মোশন সিকনেস’ বা গতিবিধির অসুস্থতা কমানোর লক্ষ্যে।

ফিচারটি চালু করলে স্ক্রিনের বিভিন্ন প্রান্তে কিছু ‘অ্যানিমেটেড ডট’ দেখা যাবে, যেগুলো গাড়ির গতিবিধির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ঘুরতে থাকে। অ্যাপল বলছে, এর মাধ্যমে ফোনের সেন্সর সংশ্লিষ্ট জটিলতা কমে আসবে।

এইসব চলমান বিন্দু ফোনের কাজে হস্তক্ষেপ না করেই গাড়ির গতিকে অনুকরণ করবে। ফলে, গাড়ির পেছনের সিটে বসে ব্যবহারকারীরা আরো আরামে স্ক্রিনের লেখা পড়তে বা গেইম খেলতে পারবেন।

এর আগের এক গবেষণায় উঠে এসেছে, মোশন সিকনেস মূলত দেখা যায় মানুষের দৈহিক অনুভূতির সঙ্গে চোখ দিয়ে দেখা দৃশ্যের অমিল ঘটলে।

নতুন ফিচারটি ১৬ মে ‘গ্লোবাল অ্যাক্সেসিবিলিটি অ্যাওয়ারনেস ডে’র আগে ঘোষণা করা বিভিন্ন আপডেটের অংশ। আর এ বছরের শেষ নাগাদ আইফোন ১৬’র সঙ্গে আইওএস ১৮’র অংশ হিসেবে এটি প্রকাশ পেতে পারে বলে প্রতিবেদনে লিখেছে ব্রিটিশ দৈনিক ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

এতে আইফোন ও আইপ্যাডের সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে, যা দিয়ে ব্যবহারকারী কখন চলমান গাড়িতে আছেন, তা শনাক্ত করা যায়। আর ফোনের কন্ট্রোল সেন্টার থেকেই ফিচারটি চালু বা বন্ধ করা যাবে।

নতুন মোশন সিকনেস ফিচারের পাশাপাশি আইফোন ও আইপ্যাডে ‘আই ট্র্যাকিং’ নামের সুবিধা আনছে অ্যাপল, যার মাধ্যমে শারীরিক প্রতিবন্ধী ব্যবহারকারীরা শুধু চোখ দিয়েই ডিভাইস নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।

অ্যাপল বলছে, ফিচারটি এআইয়ের মাধ্যমে চলবে ও ফোনের সামনের ক্যামেরা ব্যবহার করবে। এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা শুধু নিজের চোখ ব্যবহার করেই গাড়ির গতিবিধি ‘নেভিগেট’ করতে, বিভিন্ন কনটেন্টের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে এবং স্ক্রিনের ওপরে ও নিচে সোয়াইপ করতে পারবেন।

‘মিউজিক হ্যাপটিক্স’ নামের আরো একটি নতুন ফিচার আনছে অ্যাপল। এতে ব্যবহার করা হয়েছে আইফোনের ‘ট্যাপটিক ইঞ্জিন’ নামের সুবিধাটি, যার মাধ্যমে সংগীতের তালে তালে ডিভাইসে কম্পন সৃষ্টি হবে।

শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যবহারকারীদের ফোনে সংগীত উপভোগের নতুন উপায় দেবে ফিচারটি। এর আগে স্টার্টআপ কোম্পানি ‘নাথিং’ নিজেদের ফোনে একই ধরনের ফিচার এনেছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে ইনডিপেন্ডেন্ট।

এ ছাড়া, ১০ জুন নিজস্ব আয়োজন ডব্লিউডব্লিউডিসি’তে আইওএস ১৮’র আসন্ন ফিচারগুলো ঘোষণা দিতে পারে অ্যাপল, যেখানে বড় ভূমিকা রাখতে পারে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি।