ঢাকা ১০:০১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চান্দিনায় ডাকাত সন্দেহে প্রতিবন্ধীকে হত্যা:আটক ২

file

মো: দেলোয়ার হোসেন , বিশেষ প্রতিনিধিঃ

২৬ এপ্রিল ২০১৫ ইং (মুরাদনগর বার্তা ডটকম):

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলায় ডাকাত সন্দেহ বাবুল মিয়া (৪০) নামে এক প্রতিবন্ধীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুইজকে আটক করা হয়েছে। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার দিনগত রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের বামনিখোলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

বাবুল মিয়া চান্দিনা উপজেলার বাড়েরা ইউনিয়নের চিলোড়া গ্রামের বাসিন্দা।

আটককৃতরা হলেন, একই উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের বামনিখোলা গ্রামের রফিক মিয়া (৫০) ও আব্দুর রহিম (৬০)।

নিহতের বড় ভাই আলী আজ্জাম বলেন, ‘বাবুল জন্মের পর থেকে বাক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। যে কেউ একটি বিড়ি বা পানের বিনিময়ে সারাদিন তাকে দিয়ে কাজে খাটাতে পারতো। বাবুল শনিবার আমাদের পাশ্ববর্তী খলিলুর রহমানের বাড়িতে কাজ করছিলেন। পাশ্ববর্তী ফাঐ গ্রাম থেকে সন্ধ্যায় দিশেহারা হয়ে তিনি বামনিখোলা গ্রামে গেলে রফিক ও মোহাম্মদ আলীসহ আরো কয়েকজন মিলে তাকে পিটিয়ে হত্যা করে।’

চান্দিনা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে এবং হত্যাকান্ডে সাথে জড়িত সন্দেহে দুইজনকে আটক করে।
চান্দিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রসুল আহামদ নিজামী জানান, মূলত এটি একটি অপ্রত্যাশিত ঘটনা। ডাকাত সন্দেহে আটক করে থানায় সংবাদ না দিয়ে তাকে গণপিটুনি দিয়ে হত্যা করা ঠিক হয়নি। বাদী পক্ষের অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ট্যাগস

মুরাদনগর ভয়াবহ আগুন কয়ক কাটি টাকার ক্ষতি 

চান্দিনায় ডাকাত সন্দেহে প্রতিবন্ধীকে হত্যা:আটক ২

আপডেট সময় ১০:০৭:২১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৫

file

মো: দেলোয়ার হোসেন , বিশেষ প্রতিনিধিঃ

২৬ এপ্রিল ২০১৫ ইং (মুরাদনগর বার্তা ডটকম):

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলায় ডাকাত সন্দেহ বাবুল মিয়া (৪০) নামে এক প্রতিবন্ধীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুইজকে আটক করা হয়েছে। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার দিনগত রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের বামনিখোলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

বাবুল মিয়া চান্দিনা উপজেলার বাড়েরা ইউনিয়নের চিলোড়া গ্রামের বাসিন্দা।

আটককৃতরা হলেন, একই উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের বামনিখোলা গ্রামের রফিক মিয়া (৫০) ও আব্দুর রহিম (৬০)।

নিহতের বড় ভাই আলী আজ্জাম বলেন, ‘বাবুল জন্মের পর থেকে বাক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। যে কেউ একটি বিড়ি বা পানের বিনিময়ে সারাদিন তাকে দিয়ে কাজে খাটাতে পারতো। বাবুল শনিবার আমাদের পাশ্ববর্তী খলিলুর রহমানের বাড়িতে কাজ করছিলেন। পাশ্ববর্তী ফাঐ গ্রাম থেকে সন্ধ্যায় দিশেহারা হয়ে তিনি বামনিখোলা গ্রামে গেলে রফিক ও মোহাম্মদ আলীসহ আরো কয়েকজন মিলে তাকে পিটিয়ে হত্যা করে।’

চান্দিনা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে এবং হত্যাকান্ডে সাথে জড়িত সন্দেহে দুইজনকে আটক করে।
চান্দিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রসুল আহামদ নিজামী জানান, মূলত এটি একটি অপ্রত্যাশিত ঘটনা। ডাকাত সন্দেহে আটক করে থানায় সংবাদ না দিয়ে তাকে গণপিটুনি দিয়ে হত্যা করা ঠিক হয়নি। বাদী পক্ষের অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।