ঢাকা ১১:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চান্দিনায় বিদ্যালয়ে অগ্নিসংযোগ-ভাংচুর

চান্দিনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ
কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার বসন্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার (১১ নভেম্বর) গভীর রাতে বিদ্যালয়ের একটি শ্রেণিকক্ষে অগ্নিসংযোগ করে দুর্বৃত্তরা। এতে বিদ্যালয়টির টিনসেট ভবনের চালা, দরজা-জানালা ও আসবাবপত্র পুড়ে যায়। এছাড়া বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষের টেবিল-চেয়ারও ভাংচুর করে দুর্বৃত্তরা।
বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক জানান, বিদ্যালয়টির পার্শ্ববর্তী বাড়ির বাসিন্দা জনৈক আব্দুল মালেক ও তার পরিবারের সদস্যরা বিদ্যালয়টির মাঠে তাদের পারিবারিক ও গৃহস্থলির কাজ করে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখাসহ খেলাধুলায় বিঘ্ন ঘটায়। এছাড়া বিদ্যালয়ের মাঠের উপর দিয়েই তাদের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করে আসছিল। সম্প্রতি এলাকাবাসী ও বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সদস্যদের নিয়ে সভা করে তাদের ওই অপব্যবহার বন্ধ করে দেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে আব্দুল মালেক ও তার পরিবার।
শনিবার রাত ১টায় আব্দুল মালেকসহ ৫-৬জন এসে বিদ্যালয়ের গেইট ভাংচুর শুরু করে। এসময় বিদ্যালয়ে কর্তব্যরত দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী আবুল কালাম বাধা দিতে গেলে তার হাত-পা বেঁধে বিদ্যালয়ের একটি শ্রেণি কক্ষে অগ্নিসংযোগ করে।
বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সহ-সভাপতি এবং পার্শ্ববর্তী বাড়ির বাসিন্দা জসিম উদ্দিন জানান, আমি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘর থেকে বের হয়ে বিদ্যালয়ের ওই ভবন থেকে আগুন ও ধোঁয়া দেখে ঘটনাস্থলে ছুটে যাই এবং আশ-পাশের লোকজনদের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনি।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল খালেক জানান, আব্দুল মালেক ও তার পরিবার নিজের স্বার্থ টিকিয়ে রাখতে দীর্ঘদিন যাবৎ বিদ্যালয়ের অবকাঠামো নানা ভাবে ক্ষতি করার চেষ্টা চালিয়ে আসছে। শনিবার রাতে এ ঘটনা শুনার পর আমি বিদ্যালয়ে আসি এবং বিদ্যালয়ের সভাপতি, উপজেলা শিক্ষা অফিসারসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি অবহিত করি।
দুপুরে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা তপন বক্সী, থানা অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) নাছির উদ্দিন মৃধা, উপজেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন এবং শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। থানা অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) নাছির উদ্দিন মৃধা জানান, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার সঙ্গে জড়িত প্রকৃতি ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।
ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগর ভয়াবহ আগুন কয়ক কাটি টাকার ক্ষতি 

চান্দিনায় বিদ্যালয়ে অগ্নিসংযোগ-ভাংচুর

আপডেট সময় ০৩:০২:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ নভেম্বর ২০১৭
চান্দিনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ
কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার বসন্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার (১১ নভেম্বর) গভীর রাতে বিদ্যালয়ের একটি শ্রেণিকক্ষে অগ্নিসংযোগ করে দুর্বৃত্তরা। এতে বিদ্যালয়টির টিনসেট ভবনের চালা, দরজা-জানালা ও আসবাবপত্র পুড়ে যায়। এছাড়া বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষের টেবিল-চেয়ারও ভাংচুর করে দুর্বৃত্তরা।
বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক জানান, বিদ্যালয়টির পার্শ্ববর্তী বাড়ির বাসিন্দা জনৈক আব্দুল মালেক ও তার পরিবারের সদস্যরা বিদ্যালয়টির মাঠে তাদের পারিবারিক ও গৃহস্থলির কাজ করে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখাসহ খেলাধুলায় বিঘ্ন ঘটায়। এছাড়া বিদ্যালয়ের মাঠের উপর দিয়েই তাদের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করে আসছিল। সম্প্রতি এলাকাবাসী ও বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সদস্যদের নিয়ে সভা করে তাদের ওই অপব্যবহার বন্ধ করে দেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে আব্দুল মালেক ও তার পরিবার।
শনিবার রাত ১টায় আব্দুল মালেকসহ ৫-৬জন এসে বিদ্যালয়ের গেইট ভাংচুর শুরু করে। এসময় বিদ্যালয়ে কর্তব্যরত দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী আবুল কালাম বাধা দিতে গেলে তার হাত-পা বেঁধে বিদ্যালয়ের একটি শ্রেণি কক্ষে অগ্নিসংযোগ করে।
বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সহ-সভাপতি এবং পার্শ্ববর্তী বাড়ির বাসিন্দা জসিম উদ্দিন জানান, আমি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘর থেকে বের হয়ে বিদ্যালয়ের ওই ভবন থেকে আগুন ও ধোঁয়া দেখে ঘটনাস্থলে ছুটে যাই এবং আশ-পাশের লোকজনদের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনি।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল খালেক জানান, আব্দুল মালেক ও তার পরিবার নিজের স্বার্থ টিকিয়ে রাখতে দীর্ঘদিন যাবৎ বিদ্যালয়ের অবকাঠামো নানা ভাবে ক্ষতি করার চেষ্টা চালিয়ে আসছে। শনিবার রাতে এ ঘটনা শুনার পর আমি বিদ্যালয়ে আসি এবং বিদ্যালয়ের সভাপতি, উপজেলা শিক্ষা অফিসারসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি অবহিত করি।
দুপুরে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা তপন বক্সী, থানা অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) নাছির উদ্দিন মৃধা, উপজেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন এবং শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। থানা অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) নাছির উদ্দিন মৃধা জানান, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার সঙ্গে জড়িত প্রকৃতি ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।