ঢাকা ০৩:৫৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জেলকোডের সব সুবিধা পাচ্ছেন বেগম জিয়া : কাদের

জাতীয় ডেস্কঃ
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জেলকোড অনুযায়ী বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে সব ধরণের সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন। প্রয়োজনে তাকে আরো সুবিধা দেয়া হবে। গতকাল সোমবার বিকালে রাজধানীর কাকরাইলে এক ইফতার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তারা অশ্রাব্য ভাষায় কথা বলেন, তারা এখন অনেক নিচে নেমে গেছে। ইফতার পার্টিতেও তারা রাজনীতি করছে। বিদেশিদের কাছে অসহায় সাজছে।
তিনি আরো বলেন, ‘জেলকোড অনুযায়ী যা যা করার তা সরকার করছে, ভবিষ্যতেও করবে। দেখুন কারাগারে ব্যক্তিগত গৃহকর্মী এবং চিকিত্সক কোনটাই প্রাপ্য নয়। তবু তাদেরকে আমরা সেসব সুবিধা দিয়েছি।’
ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির নেতারা ইফতার সামনে নিয়ে বিদেশিদের কাছে নালিশ করছেন। এটা তাদের রাজনৈতিক দেউলিয়াপনা ছাড়া আর কিছু নয়। ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইফতারের সময় রাজনৈতিক বক্তব্য রাখেন না, এমনকি আমিও রাখি না। কিন্তু মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীররা ইফতার নিয়েও রাজনীতি করেন। ইফতারের সময় তারা রাজনৈতিক বিদ্বেষ ছড়ান।
ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, আমরাও জেলখানায় ছিলাম। বেগম জিয়া যেই জায়গাটায় আছেন, সেটা আমরা দেখেছি। সেখানে যেভাবে রুমটাকে সাজানো হয়েছে, একদম ফার্স্ট ক্লাস জায়গায় আছেন, যেখানে আমরাও ছিলাম না।’ কারাগারে ব্যক্তিগত গৃহপরিচারিকা রাখার কোনও সুযোগ নেই। সেটাও এলাউ করা হয়েছে। তার জন্য ব্যক্তিগত চিকিত্সক রাখার কোনও নিয়ম নেই, এই নিয়মও বেগম জিয়ার জন্য ভাঙা হয়েছে। কারণ তিনি একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী, ওনাকে আমরা অপমান করতে চাই না। জেলে দিয়েছে আদালত, মুক্তি দিতে পারে আদালত। কিন্তু তারও (খালেদা জিয়া) বয়স হয়েছে, তাকে যথাযথ চিকিত্সা দেওয়া, তার সঙ্গে মানবিক আচরণ করার ক্ষেত্রে সরকারের কোনও গাফিলতি নেই।’
ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জেলকোডের সব সুবিধা পাচ্ছেন বেগম জিয়া : কাদের

আপডেট সময় ০৯:৪১:৪৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২১ মে ২০১৮
জাতীয় ডেস্কঃ
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জেলকোড অনুযায়ী বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে সব ধরণের সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন। প্রয়োজনে তাকে আরো সুবিধা দেয়া হবে। গতকাল সোমবার বিকালে রাজধানীর কাকরাইলে এক ইফতার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তারা অশ্রাব্য ভাষায় কথা বলেন, তারা এখন অনেক নিচে নেমে গেছে। ইফতার পার্টিতেও তারা রাজনীতি করছে। বিদেশিদের কাছে অসহায় সাজছে।
তিনি আরো বলেন, ‘জেলকোড অনুযায়ী যা যা করার তা সরকার করছে, ভবিষ্যতেও করবে। দেখুন কারাগারে ব্যক্তিগত গৃহকর্মী এবং চিকিত্সক কোনটাই প্রাপ্য নয়। তবু তাদেরকে আমরা সেসব সুবিধা দিয়েছি।’
ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির নেতারা ইফতার সামনে নিয়ে বিদেশিদের কাছে নালিশ করছেন। এটা তাদের রাজনৈতিক দেউলিয়াপনা ছাড়া আর কিছু নয়। ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইফতারের সময় রাজনৈতিক বক্তব্য রাখেন না, এমনকি আমিও রাখি না। কিন্তু মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীররা ইফতার নিয়েও রাজনীতি করেন। ইফতারের সময় তারা রাজনৈতিক বিদ্বেষ ছড়ান।
ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, আমরাও জেলখানায় ছিলাম। বেগম জিয়া যেই জায়গাটায় আছেন, সেটা আমরা দেখেছি। সেখানে যেভাবে রুমটাকে সাজানো হয়েছে, একদম ফার্স্ট ক্লাস জায়গায় আছেন, যেখানে আমরাও ছিলাম না।’ কারাগারে ব্যক্তিগত গৃহপরিচারিকা রাখার কোনও সুযোগ নেই। সেটাও এলাউ করা হয়েছে। তার জন্য ব্যক্তিগত চিকিত্সক রাখার কোনও নিয়ম নেই, এই নিয়মও বেগম জিয়ার জন্য ভাঙা হয়েছে। কারণ তিনি একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী, ওনাকে আমরা অপমান করতে চাই না। জেলে দিয়েছে আদালত, মুক্তি দিতে পারে আদালত। কিন্তু তারও (খালেদা জিয়া) বয়স হয়েছে, তাকে যথাযথ চিকিত্সা দেওয়া, তার সঙ্গে মানবিক আচরণ করার ক্ষেত্রে সরকারের কোনও গাফিলতি নেই।’