ঢাকা ১১:৪৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টাকা চাওয়ায় গরম তেলে পুড়িয়ে মারা হলো পাওনাদারকে

আজিজুর রহমান রনি/ মাহবুব আলম আরিফঃ

পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে গরম তেল ঢেলে দেওয়া হলো পাওনাদারের শরীরে। ১২ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে গত শুক্রবার রাতে মারা যান তিনি।

তবে প্রভাবশালী একটি মহল এ ঘটনাটিকে ভিন্ন খাতে প্রভাবিত করে হুমকি দিলে ভয়ে মুখ খুলতে রাজি নয় প্রতিবেশীসহ প্রত্যেক্ষদর্শী। এমনকি পুলিশের কাছে ঘটনার ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে তরিঘড়ি করে তার মরদেহ দাফন করা হয়। এই লোমহর্যক ঘটনাটি ঘটেছে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সদর ইউপির আলীরচর গ্রামে।এ ঘটনার শিকার নুরুল ইসলাম (৫০)। তিনি আলীরচর গ্রামের মৃত আজগর আলীর ছেলে। এদিকে অভিযুক্ত ব্যক্তি হলেন একই গ্রামের ফুল মিয়ার ছেলে দেলোয়ার হোসেন।

সূত্র জানায়, কুমিল্লার কাপ্তন বাজারে স্বপরিবারে থাকতেন নজরুল। সেখানে গিয়ে দেলোয়ার বিদেশে যাওয়ার নাম করে নজরুলের কাছ থেকে ৬০ হাজার টাকা ধার নেয়। নির্দিষ্ট সময়ে টাকা ফেরত দিতে না পেরে দেলোয়ার নিজেকে নজরুলের কাছ থেকে পাশ কাটিয়ে চলত।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর নজরুল ও দেলোয়ার সামনাসামনি হলে পাওনা টাকা নিয়ে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পরে উভয়েই। রাগ সামলাতে না পেরে দেলোয়ার একপর্যায়ে রাস্তার পাশের হোটেলের গরম কড়াইয়ার মধ্যে থাকা তেল ছুড়ে মারেন নজরুলের ওপরে। পরে লোকজন ঘটনাস্থল থেকে নজরুলকে কুমিল্লা মেডিক্যাল হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে ঢাকা মেডিক্যালে কলেজে পাঠান। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত শুক্রবার রাতে মারা যান নজরুল।এদিকে এই ঘটনাটি নিছক দুর্ঘটনা বলে এলাকায় রটিয়ে সত্য ঘটনা আড়াল করে দেলোয়ারসহ একটি প্রভাবশালী মহল। কেউ কেউ ঘটনা নিয়ে মুখ খুলতে চাইলে হুমকিও দেওয়া হয়। পরে তরিঘড়ি করে তার মরদেহ দাফন করা হয়।

নিহতের ভাগিনা জালাল বলেন, আমি কুমিল্লাতে থাকি অথচ তারা আমাকে মৃত্যুর খবর জানিয়েছে তিন দিন পর। আমি খবর নিয়ে জানতে পারি আমার মামা নজরুল ইসলামকে তার স্ত্রীর বড় ভাই দেলোয়ার পাওনা টাকা চাওয়ায় শরীরে গরম তেল ঢেলে দিয়েছে। গত শুক্রবার মামার মৃত্যুর খবর পেয়ে পরদিন আলীরচর গ্রামে এসে দেখি মামার লাশ কবর দেওয়ার প্রস্তুতি চলছে তখন আমি বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে মামির ভাইরা আমাকে বলে আমরা থানা ম্যানেজ করেছি। যে বেশি কথা কইব সেই বিপদে পড়ব। আমি থানায় যাওয়ার চেষ্টা করলে বড় মামা আমাকে বলে মামির ভাইরা নাকি তাদের বলেছে গ্রামের লোকজন ম্যানেজ হয়ে গেছে আপনারা যদি বাড়াবাড়ি করেন আপনাদেরও এই অবস্থা হবে।

তিনি আরো বলেন, আমার মামার কোনো সন্তান নেই, তাই তার কুমিল্লার জমি ও তার টাকা-পয়সার লোভে আমার মামাকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করেছে। আমি আমার মামার মৃত্যুর সঠিক বিচার চাই।

এই বিষয়ে দেলোয়ার ও তার পরিবারের কেউ কথা বলতে রাজি হয়নি মিডিয়ার লোকদের সাথে।

এ ব্যাপারে মুরাদনগর থানার ওসি এস এম বদিউজ্জামান বলেন, শুনেছি নজরুলের গায়ে আগুন ধরে গেলে তার শরীরে অনেক অংশ পুড়ে যায়। এর বেশি কিছু জানি না। যদি কেউ এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ করে তাহলে অবশ্যই আসামিদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

টাকা চাওয়ায় গরম তেলে পুড়িয়ে মারা হলো পাওনাদারকে

আপডেট সময় ০৩:৪৬:০২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২ অক্টোবর ২০১৭
আজিজুর রহমান রনি/ মাহবুব আলম আরিফঃ

পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে গরম তেল ঢেলে দেওয়া হলো পাওনাদারের শরীরে। ১২ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে গত শুক্রবার রাতে মারা যান তিনি।

তবে প্রভাবশালী একটি মহল এ ঘটনাটিকে ভিন্ন খাতে প্রভাবিত করে হুমকি দিলে ভয়ে মুখ খুলতে রাজি নয় প্রতিবেশীসহ প্রত্যেক্ষদর্শী। এমনকি পুলিশের কাছে ঘটনার ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে তরিঘড়ি করে তার মরদেহ দাফন করা হয়। এই লোমহর্যক ঘটনাটি ঘটেছে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সদর ইউপির আলীরচর গ্রামে।এ ঘটনার শিকার নুরুল ইসলাম (৫০)। তিনি আলীরচর গ্রামের মৃত আজগর আলীর ছেলে। এদিকে অভিযুক্ত ব্যক্তি হলেন একই গ্রামের ফুল মিয়ার ছেলে দেলোয়ার হোসেন।

সূত্র জানায়, কুমিল্লার কাপ্তন বাজারে স্বপরিবারে থাকতেন নজরুল। সেখানে গিয়ে দেলোয়ার বিদেশে যাওয়ার নাম করে নজরুলের কাছ থেকে ৬০ হাজার টাকা ধার নেয়। নির্দিষ্ট সময়ে টাকা ফেরত দিতে না পেরে দেলোয়ার নিজেকে নজরুলের কাছ থেকে পাশ কাটিয়ে চলত।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর নজরুল ও দেলোয়ার সামনাসামনি হলে পাওনা টাকা নিয়ে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পরে উভয়েই। রাগ সামলাতে না পেরে দেলোয়ার একপর্যায়ে রাস্তার পাশের হোটেলের গরম কড়াইয়ার মধ্যে থাকা তেল ছুড়ে মারেন নজরুলের ওপরে। পরে লোকজন ঘটনাস্থল থেকে নজরুলকে কুমিল্লা মেডিক্যাল হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে ঢাকা মেডিক্যালে কলেজে পাঠান। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত শুক্রবার রাতে মারা যান নজরুল।এদিকে এই ঘটনাটি নিছক দুর্ঘটনা বলে এলাকায় রটিয়ে সত্য ঘটনা আড়াল করে দেলোয়ারসহ একটি প্রভাবশালী মহল। কেউ কেউ ঘটনা নিয়ে মুখ খুলতে চাইলে হুমকিও দেওয়া হয়। পরে তরিঘড়ি করে তার মরদেহ দাফন করা হয়।

নিহতের ভাগিনা জালাল বলেন, আমি কুমিল্লাতে থাকি অথচ তারা আমাকে মৃত্যুর খবর জানিয়েছে তিন দিন পর। আমি খবর নিয়ে জানতে পারি আমার মামা নজরুল ইসলামকে তার স্ত্রীর বড় ভাই দেলোয়ার পাওনা টাকা চাওয়ায় শরীরে গরম তেল ঢেলে দিয়েছে। গত শুক্রবার মামার মৃত্যুর খবর পেয়ে পরদিন আলীরচর গ্রামে এসে দেখি মামার লাশ কবর দেওয়ার প্রস্তুতি চলছে তখন আমি বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে মামির ভাইরা আমাকে বলে আমরা থানা ম্যানেজ করেছি। যে বেশি কথা কইব সেই বিপদে পড়ব। আমি থানায় যাওয়ার চেষ্টা করলে বড় মামা আমাকে বলে মামির ভাইরা নাকি তাদের বলেছে গ্রামের লোকজন ম্যানেজ হয়ে গেছে আপনারা যদি বাড়াবাড়ি করেন আপনাদেরও এই অবস্থা হবে।

তিনি আরো বলেন, আমার মামার কোনো সন্তান নেই, তাই তার কুমিল্লার জমি ও তার টাকা-পয়সার লোভে আমার মামাকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করেছে। আমি আমার মামার মৃত্যুর সঠিক বিচার চাই।

এই বিষয়ে দেলোয়ার ও তার পরিবারের কেউ কথা বলতে রাজি হয়নি মিডিয়ার লোকদের সাথে।

এ ব্যাপারে মুরাদনগর থানার ওসি এস এম বদিউজ্জামান বলেন, শুনেছি নজরুলের গায়ে আগুন ধরে গেলে তার শরীরে অনেক অংশ পুড়ে যায়। এর বেশি কিছু জানি না। যদি কেউ এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ করে তাহলে অবশ্যই আসামিদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।