ঢাকা ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

তিতাসে প্রবাসি হত্যার ঘটনায় ছাত্রলীগের নেতাসহ ১০ জনকে অভিযুক্ত করে নিহতের পিতার মামলা

নাজমুল করিম ফারুক, তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার তিতাসে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সুমন নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাসহ ১০জনকে অভিযুক্ত করে মামলা করেছে নিহতের পিতা মোঃ জালু মিয়া।

মঙ্গলবার দুপুরে তিতাস থানায় মামলাটি নথির্ভূক্ত করে এসআই মোঃ আবু নাছেরকে তদন্তভার দেয়া হয়। ঘটনার রাতে আটক ৬জনকে উক্ত মামলায় আটক দেখানো হয়েছে।

থানা সূত্রে জানা যায়, রোববার রাতে উপজেলার বারকাউনিয়া গ্রাম সংলগ্ন বড় সেতুর পাশে হত্যাকান্ডর ঘটনায় নিহতের পিতা বাদী হয়ে ১০জনকে আসামী করে মামলা করে।

মামলার আসামীরা হলো- বারকাউনিয়া গ্রামের মৃত আঃ জলিলের ছেলে ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আলাউদ্দিন (২৮), মৃত আঃ জলিলের আরো পুত্র মোঃ লিটন (৩৫) ও মোঃ রিপন (৩২) এবং স্ত্রী মমতাজ বেগম, মৃত গণি মিয়ার ছেলে মোঃ ধনু মিয়া (৫৫), ধনু মিয়ার ছেলে মোঃ অনিক (২৫) ও মোহাম্মদ আলী (২৩), মোঃ খোরশেদ মিয়ার ছেলে মোঃ কাবিল (৫০), মোঃ কাবিলের ছেলে মোঃ বাবু (২৬) এবং সাতানী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ যুবরাজ (৪৫)।

উল্লেখ্য, রোববার রাত ৯টায় উপজেলার বাতাকান্দি-মোহনপুর সড়কের বারকাউনিয়া গ্রাম সংলগ্ন বড় সেতুর পাশে পূর্বশত্রুতার জের ধরে বারকাউনিয়া গ্রামের জালু মিয়ার প্রবাসী ছেলে সুমন (৩৮) কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এসময় নিহতের ছোট ভাই সাইদুল ইসলাম ও মা মোসাঃ কালি বেগমকেও কুপিয়ে আহত করা হয়।

তিতাস থানার ওসি মোঃ নুরুল আলম জানান, নিহতের পিতা ১০জনকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা দিয়েছে। এজাহারনামীয় ৬জন আসামী আটক করেছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারের পুলিশ তৎপর রয়েছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোঃ আবু নাছের জানান, মামলাটির তদন্তভার আমাকে দেয়া হয়েছে। তদন্ত ও অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার চেষ্টা অব্যাহত আছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগর ভয়াবহ আগুন কয়ক কাটি টাকার ক্ষতি 

তিতাসে প্রবাসি হত্যার ঘটনায় ছাত্রলীগের নেতাসহ ১০ জনকে অভিযুক্ত করে নিহতের পিতার মামলা

আপডেট সময় ১২:৪৪:৫০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ জুন ২০১৭
নাজমুল করিম ফারুক, তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার তিতাসে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সুমন নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাসহ ১০জনকে অভিযুক্ত করে মামলা করেছে নিহতের পিতা মোঃ জালু মিয়া।

মঙ্গলবার দুপুরে তিতাস থানায় মামলাটি নথির্ভূক্ত করে এসআই মোঃ আবু নাছেরকে তদন্তভার দেয়া হয়। ঘটনার রাতে আটক ৬জনকে উক্ত মামলায় আটক দেখানো হয়েছে।

থানা সূত্রে জানা যায়, রোববার রাতে উপজেলার বারকাউনিয়া গ্রাম সংলগ্ন বড় সেতুর পাশে হত্যাকান্ডর ঘটনায় নিহতের পিতা বাদী হয়ে ১০জনকে আসামী করে মামলা করে।

মামলার আসামীরা হলো- বারকাউনিয়া গ্রামের মৃত আঃ জলিলের ছেলে ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আলাউদ্দিন (২৮), মৃত আঃ জলিলের আরো পুত্র মোঃ লিটন (৩৫) ও মোঃ রিপন (৩২) এবং স্ত্রী মমতাজ বেগম, মৃত গণি মিয়ার ছেলে মোঃ ধনু মিয়া (৫৫), ধনু মিয়ার ছেলে মোঃ অনিক (২৫) ও মোহাম্মদ আলী (২৩), মোঃ খোরশেদ মিয়ার ছেলে মোঃ কাবিল (৫০), মোঃ কাবিলের ছেলে মোঃ বাবু (২৬) এবং সাতানী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ যুবরাজ (৪৫)।

উল্লেখ্য, রোববার রাত ৯টায় উপজেলার বাতাকান্দি-মোহনপুর সড়কের বারকাউনিয়া গ্রাম সংলগ্ন বড় সেতুর পাশে পূর্বশত্রুতার জের ধরে বারকাউনিয়া গ্রামের জালু মিয়ার প্রবাসী ছেলে সুমন (৩৮) কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এসময় নিহতের ছোট ভাই সাইদুল ইসলাম ও মা মোসাঃ কালি বেগমকেও কুপিয়ে আহত করা হয়।

তিতাস থানার ওসি মোঃ নুরুল আলম জানান, নিহতের পিতা ১০জনকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা দিয়েছে। এজাহারনামীয় ৬জন আসামী আটক করেছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারের পুলিশ তৎপর রয়েছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোঃ আবু নাছের জানান, মামলাটির তদন্তভার আমাকে দেয়া হয়েছে। তদন্ত ও অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার চেষ্টা অব্যাহত আছে।