ঢাকা ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দুবাই কোরআন প্রতিযোগিতায় মুরাদনগরের কিশোর হাফেজের সাফল্য

মো: আরিফুল ইসলাম, স্টাফ রির্পোটার, মুরাদনগরঃ

গত ২৩ জুন দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত ২০তম আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার এক কিশোর হাফেজ অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করেছে। আন্তর্জাতিক ওই কোরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি কিশোর হাফেজ আবদুল্লাহ আল-মামুন হেফজ গ্রুপে চতুর্থ স্থান লাভের পাশাপাশি সুন্দর কণ্ঠের জন্য দ্বিতীয় পুরস্কার লাভ করেছেন।

হাফেজ আব্দুল্লাহ আল-মামুন উপজেলার সদর ইউনিয়নের হিরাকান্দা গ্রামের মো: আবুল বাশারের ছেলে।

এদিকে হাফেজ আব্দুল্লাহ আল-মামুনের সাফল্য অর্জনে দেশ ও গ্রামের মুখ উজ্জল ও গৌরব বয়ে আনায় তার এলাকা মুরাদনগর উপজেলা ও নিজ গ্রাম হিরাকান্দায় আনন্দের বন্যা বইছে। রামচন্দপুরের আমিন নগর এলাকাবাসী জানায় অধ্যাপক হাফিজুল ইসলাম শামীম শুধু রামচন্দ্রপুর নয় পুরো উপজেলার মুখ উজ্জল করেছেন। তিনি মুরাদনগর উপজেলার সকলের গর্ব।

দুবাই অ্যাওয়ার্ড নামে প্রসিদ্ধ এই আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতাটি প্রতি বছর রমজান মাসে অনুষ্ঠিত হয়। এবারের প্রতিযোগিতায় বিশ্বের ৮৪টি দেশের প্রতিনিধিরা অংশ নিয়েছিলেন।

দুবাইয়ের কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি অডিটোরিয়ামে এবারের প্রতিযোগিতা শুরু হয় ৭ রমজানে। টানা ১০ দিন চলে এটি। শেষ হয়েছে গত ২৩ জুন।

প্রতিযোগিতায় বাহরাইনের জাসিম খলিফা ইবরাহিম খলিফা হামাদান, লিবিয়ার আবদুর রহমান আবদুল জলিল মোহাম্মদ, নাইজারের আল জাহাতি ও বাংলাদেশের আবদুল্লাহ মামুন হেফজ গ্রুপে যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান লাভ করেন।

আন্তর্জাতিক এ কোরআন প্রতিযোগিতায় ‘সুললিত কণ্ঠস্বর’ বিভাগে আলাদাভাবে পুরস্কৃত করা হয়। সেখানেও আবদুল্লাহ আল মামুন দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন।

এর আগে ২০১৩ সালে সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান লাভ করেন হাফেজ মামুন। মামুন আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত ক্বারী নাজমুল হাসান কর্তৃক পরিচালিত তাহসিন ইন্টারন্যাশনাল হেফজ মাদ্রাসার ছাত্র।

ট্যাগস

দুবাই কোরআন প্রতিযোগিতায় মুরাদনগরের কিশোর হাফেজের সাফল্য

আপডেট সময় ১০:১১:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ জুন ২০১৬
মো: আরিফুল ইসলাম, স্টাফ রির্পোটার, মুরাদনগরঃ

গত ২৩ জুন দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত ২০তম আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার এক কিশোর হাফেজ অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করেছে। আন্তর্জাতিক ওই কোরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি কিশোর হাফেজ আবদুল্লাহ আল-মামুন হেফজ গ্রুপে চতুর্থ স্থান লাভের পাশাপাশি সুন্দর কণ্ঠের জন্য দ্বিতীয় পুরস্কার লাভ করেছেন।

হাফেজ আব্দুল্লাহ আল-মামুন উপজেলার সদর ইউনিয়নের হিরাকান্দা গ্রামের মো: আবুল বাশারের ছেলে।

এদিকে হাফেজ আব্দুল্লাহ আল-মামুনের সাফল্য অর্জনে দেশ ও গ্রামের মুখ উজ্জল ও গৌরব বয়ে আনায় তার এলাকা মুরাদনগর উপজেলা ও নিজ গ্রাম হিরাকান্দায় আনন্দের বন্যা বইছে। রামচন্দপুরের আমিন নগর এলাকাবাসী জানায় অধ্যাপক হাফিজুল ইসলাম শামীম শুধু রামচন্দ্রপুর নয় পুরো উপজেলার মুখ উজ্জল করেছেন। তিনি মুরাদনগর উপজেলার সকলের গর্ব।

দুবাই অ্যাওয়ার্ড নামে প্রসিদ্ধ এই আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতাটি প্রতি বছর রমজান মাসে অনুষ্ঠিত হয়। এবারের প্রতিযোগিতায় বিশ্বের ৮৪টি দেশের প্রতিনিধিরা অংশ নিয়েছিলেন।

দুবাইয়ের কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি অডিটোরিয়ামে এবারের প্রতিযোগিতা শুরু হয় ৭ রমজানে। টানা ১০ দিন চলে এটি। শেষ হয়েছে গত ২৩ জুন।

প্রতিযোগিতায় বাহরাইনের জাসিম খলিফা ইবরাহিম খলিফা হামাদান, লিবিয়ার আবদুর রহমান আবদুল জলিল মোহাম্মদ, নাইজারের আল জাহাতি ও বাংলাদেশের আবদুল্লাহ মামুন হেফজ গ্রুপে যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান লাভ করেন।

আন্তর্জাতিক এ কোরআন প্রতিযোগিতায় ‘সুললিত কণ্ঠস্বর’ বিভাগে আলাদাভাবে পুরস্কৃত করা হয়। সেখানেও আবদুল্লাহ আল মামুন দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন।

এর আগে ২০১৩ সালে সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান লাভ করেন হাফেজ মামুন। মামুন আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত ক্বারী নাজমুল হাসান কর্তৃক পরিচালিত তাহসিন ইন্টারন্যাশনাল হেফজ মাদ্রাসার ছাত্র।