ঢাকা ০১:৩৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেবিদ্বারে আবাদী ফসলে ড্রেজারে মাটি উত্তোলনে ৩ শ’ বিঘা ফসলি জমি হুমকির মুখে

শাহীন আলম, দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের মধ্য পাড়ায় আবাদী জমিতে ড্রেজার বসিয়ে অবাধে বালু তোলার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। মাটি উত্তোলনে বাধা দেওয়ায় স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা মাহবুবসহ ৫জনের নামে আদালতে চাঁদা দাবির অভিযোগে বানোয়াট মামলা করে হয়রানি করার অভিযোগও রয়েছে অবৈধ ড্রেজার মালিক কামাল গাজী ও সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ড্রেজার মালিক কামাল গাজী, সালাউদ্দিন ও জমির মালিক রফিকুল ইসলাম রফিজ স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী নেতাকে ম্যানেজ করে নিজেদের জমি ও মানুষের কাছ থেকে জমি ইজারা নিয়ে অবৈধভাবে বালু  তুলছেন।

পরে এই প্রতিবেদক ড্রেজারে মাটি উত্তোলন বৈধ কিনা জানতে চাওয়ায়, জমির মালিক রফিকুল ইসলাম রফিজ বলেন, ড্রেজার অবৈধ, এখন সবাই ড্রেজারে মাটি তুলছে আমিও তুলছি।

স্থানীয় কৃষকরা জানান, ড্রেজারে মাটি তোলায় একই সঙ্গে আশপাশের জমিতে ফসল উৎপাদন কমে গেছে ও তা ধসেও পড়ছে। পরবর্তী বছরে পাশের জমিতেআবাদ করা নিয়ে আশংকা দেখা দিয়েছে।

দেবিদ্বার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা উত্তম কুমার কবিরাজ বলেন, ‘আবাদি জমি খুঁড়ে বালু তুললে এলাকার জীববৈচিত্র নষ্ট হয়ে যাবে। কারণ উপরিভাগের মাটি (টপ সয়েল) সরিয়ে বালু তোলার কারণে জমিতে ফসল হয়না ও ভূমিধস হবে পাশের জমি ও বাড়ি ঘর রাস্তাঘাট ভেঙে পড়ার আশংকা থাকে।

সরকারের ভূগর্ভস্থ বা নদীর তলদেশ থেকে বালু উত্তোলন-সংক্রান্ত বিশেষ আইনে উল্লেখ করা হয়েছে, পাম্প বা ড্রেজিং বা অন্য কোনো মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ বালু বা মাটি উত্তোলন করা যাবে না। কিন্তু এ আইন লঙ্ঘন করে হঠাৎ আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে যাওয়া রফিকুল ইসলাম রফিজ আবাদী ফসলের ওপর অবৈধ ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করছেন। যা পাশ্ববর্তী প্রায় ৩শ’ বিঘা ফসলের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

পাশ্ববর্তী জমির মালিক জহির ও আবদুল মান্নান জানান, পাশের জমিতে ড্রেজার দিয়ে মাটি কাটায় পাড় যেভাবে ভেঙে পড়ছে এতে পরের বছর আমার জমিতে আর ধান চাষ করা যাবে না।

ড্রেজার মালিক কামাল গাজী  জানান, গত শনিবার রাতে ছাত্রলীগ নেতা মাহবুব দলবলসহ আমার কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে, আমি চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় রাতে আমার পাইপে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছে। এ ব্যাপারে কুমিল্লায় আদালত মামলা করেছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবীন্দ্র চাকমা জানান, ড্রেজারে মাটি উত্তোলন নিষিদ্ধ। আমি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

দেবিদ্বারে আবাদী ফসলে ড্রেজারে মাটি উত্তোলনে ৩ শ’ বিঘা ফসলি জমি হুমকির মুখে

আপডেট সময় ১২:৫৩:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৮
শাহীন আলম, দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের মধ্য পাড়ায় আবাদী জমিতে ড্রেজার বসিয়ে অবাধে বালু তোলার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। মাটি উত্তোলনে বাধা দেওয়ায় স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা মাহবুবসহ ৫জনের নামে আদালতে চাঁদা দাবির অভিযোগে বানোয়াট মামলা করে হয়রানি করার অভিযোগও রয়েছে অবৈধ ড্রেজার মালিক কামাল গাজী ও সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ড্রেজার মালিক কামাল গাজী, সালাউদ্দিন ও জমির মালিক রফিকুল ইসলাম রফিজ স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী নেতাকে ম্যানেজ করে নিজেদের জমি ও মানুষের কাছ থেকে জমি ইজারা নিয়ে অবৈধভাবে বালু  তুলছেন।

পরে এই প্রতিবেদক ড্রেজারে মাটি উত্তোলন বৈধ কিনা জানতে চাওয়ায়, জমির মালিক রফিকুল ইসলাম রফিজ বলেন, ড্রেজার অবৈধ, এখন সবাই ড্রেজারে মাটি তুলছে আমিও তুলছি।

স্থানীয় কৃষকরা জানান, ড্রেজারে মাটি তোলায় একই সঙ্গে আশপাশের জমিতে ফসল উৎপাদন কমে গেছে ও তা ধসেও পড়ছে। পরবর্তী বছরে পাশের জমিতেআবাদ করা নিয়ে আশংকা দেখা দিয়েছে।

দেবিদ্বার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা উত্তম কুমার কবিরাজ বলেন, ‘আবাদি জমি খুঁড়ে বালু তুললে এলাকার জীববৈচিত্র নষ্ট হয়ে যাবে। কারণ উপরিভাগের মাটি (টপ সয়েল) সরিয়ে বালু তোলার কারণে জমিতে ফসল হয়না ও ভূমিধস হবে পাশের জমি ও বাড়ি ঘর রাস্তাঘাট ভেঙে পড়ার আশংকা থাকে।

সরকারের ভূগর্ভস্থ বা নদীর তলদেশ থেকে বালু উত্তোলন-সংক্রান্ত বিশেষ আইনে উল্লেখ করা হয়েছে, পাম্প বা ড্রেজিং বা অন্য কোনো মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ বালু বা মাটি উত্তোলন করা যাবে না। কিন্তু এ আইন লঙ্ঘন করে হঠাৎ আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে যাওয়া রফিকুল ইসলাম রফিজ আবাদী ফসলের ওপর অবৈধ ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করছেন। যা পাশ্ববর্তী প্রায় ৩শ’ বিঘা ফসলের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

পাশ্ববর্তী জমির মালিক জহির ও আবদুল মান্নান জানান, পাশের জমিতে ড্রেজার দিয়ে মাটি কাটায় পাড় যেভাবে ভেঙে পড়ছে এতে পরের বছর আমার জমিতে আর ধান চাষ করা যাবে না।

ড্রেজার মালিক কামাল গাজী  জানান, গত শনিবার রাতে ছাত্রলীগ নেতা মাহবুব দলবলসহ আমার কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে, আমি চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় রাতে আমার পাইপে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছে। এ ব্যাপারে কুমিল্লায় আদালত মামলা করেছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবীন্দ্র চাকমা জানান, ড্রেজারে মাটি উত্তোলন নিষিদ্ধ। আমি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিচ্ছি।