ঢাকা ০৫:১৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেবিদ্বার সরকারি হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স দীর্ঘ ৪বছর ধরে অচল, রোগীদের চরম ভোগান্তি

দেবিদ্বার (কুমিল্লা) :

কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলা সরকারি হাসপাতালের দু’টি এ্যাম্বুলেন্স দীর্ঘ প্রায় ৪বছর ধরে অচল। সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের চরম ভোগান্তি।

এতে সরকারি সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ১টি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়নের প্রায় ৫ লক্ষাধিক জনসাধারণ। আর চরম ভোগান্তি হতে হয় দুর থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের। স্থানীয়দের অভিযোগ দীর্ঘ প্রায় ৪বছর যাবত এ্যাম্বুলেন্স বিহীন চলছে সরকারি হাসপাতাল। অপর দিকে অচল অবস্থায় হাপসাতালের পিছনে খোলা আকাশের নিচে পরে রয়েছে এ্যাম্বুলেন্স ২টি।
সুত্রে জানাযায়, উপজেলার সরকারি হাসপাতালের অনুকূলে টিএফআইপিপি প্রকল্প হতে ৪ষ্ঠা মে ১৯৯৭ সালে প্রথম ১টি এ্যাম্বুলেন্স (কু-ছ-৭১-০০০৫) বরাদ্ধ হয়।

এ্যাম্বুলেন্সটি অচল হওয়ায় পরবর্তীতে নারায়নগঞ্জ সদর হাসপাতালের পুরাতন এ্যাম্বুলেন্সটি টেমো ঢাকা হতে ২জুন ২০০৪ সালে দ্বিতীয় বারের মতো ১টি এ্যাম্বুলেন্স (নারায়নগঞ্জ চ-০২-০০৪) বরাদ্ধ দেয়। দ্বিতীয় বারের মতো বরাদ্ধ দেওয়া এ্যাম্বুলেন্সটি ও অচল হওয়ায় সর্ব শেষ তৃতীয় বারের মতো সিএমএসডি রেজিষ্ট্রেশন বিহীন ১টি এ্যাম্বুলেন্স ২রা নভেম্বর ২০০৯ সালে বরাদ্ধ আসে। বরাদ্ধকৃত এ্যাম্বুলেন্সটি কয়েক বছর ব্যবহারের পর তা অচল হয়ে পড়ে। অচল হওয়া ২টি এ্যাম্বুলেন্স হাসপাতালের পিছনে খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছে। তবে খোলা আকাশের নিচে পড়ে থাকার কারনে মূল্যবান যন্ত্রপাতি একেবারে নষ্ট হয়ে গেছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ দীর্ঘ প্রায় ৪বছর যাবত এ্যাম্বুলেন্স বিহীন চলছে হাসপাতাল। এতে চরম ভোগান্তি হচ্ছে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের। অব্যাহত হচ্ছে স্বাস্থ্য সেবা।

 

এব্যাপারে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আহাম্মদ কবীর ‘‘ দৈনিক আজকের কুমিল্লা’’ কে বলেন, আমি ২০১৭ সালে এই উপজেলায় যখন যোগদান করি তখন থেকে অকেজো অবস্থায় ২টি এ্যাম্বুলেন্স পড়ে আছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রাটি ৫০ শয্যা হওয়ায় এবং এই উপজেলায় যাতায়াতের সুবিধা ভালো হওয়ায় পাশর্^বর্তী উপজেলা থেকে প্রতিদিন অনেক রোগী চিকিৎসা নিতে আসে। তবে এ্যাম্বুলেন্স অচল থাকার কারনে জরুরী ভিত্তিতে হাসপাতাল হতে রোগী পরিবহন করতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে রোগীর লোকজনকে। নতুন এ্যাম্বুলেন্স বরাদ্ধ পেতে এই বিষয়ে লিখিত ভাবে কয়েকবার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগরে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার

দেবিদ্বার সরকারি হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স দীর্ঘ ৪বছর ধরে অচল, রোগীদের চরম ভোগান্তি

আপডেট সময় ০৩:৪৩:১৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯
দেবিদ্বার (কুমিল্লা) :

কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলা সরকারি হাসপাতালের দু’টি এ্যাম্বুলেন্স দীর্ঘ প্রায় ৪বছর ধরে অচল। সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের চরম ভোগান্তি।

এতে সরকারি সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ১টি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়নের প্রায় ৫ লক্ষাধিক জনসাধারণ। আর চরম ভোগান্তি হতে হয় দুর থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের। স্থানীয়দের অভিযোগ দীর্ঘ প্রায় ৪বছর যাবত এ্যাম্বুলেন্স বিহীন চলছে সরকারি হাসপাতাল। অপর দিকে অচল অবস্থায় হাপসাতালের পিছনে খোলা আকাশের নিচে পরে রয়েছে এ্যাম্বুলেন্স ২টি।
সুত্রে জানাযায়, উপজেলার সরকারি হাসপাতালের অনুকূলে টিএফআইপিপি প্রকল্প হতে ৪ষ্ঠা মে ১৯৯৭ সালে প্রথম ১টি এ্যাম্বুলেন্স (কু-ছ-৭১-০০০৫) বরাদ্ধ হয়।

এ্যাম্বুলেন্সটি অচল হওয়ায় পরবর্তীতে নারায়নগঞ্জ সদর হাসপাতালের পুরাতন এ্যাম্বুলেন্সটি টেমো ঢাকা হতে ২জুন ২০০৪ সালে দ্বিতীয় বারের মতো ১টি এ্যাম্বুলেন্স (নারায়নগঞ্জ চ-০২-০০৪) বরাদ্ধ দেয়। দ্বিতীয় বারের মতো বরাদ্ধ দেওয়া এ্যাম্বুলেন্সটি ও অচল হওয়ায় সর্ব শেষ তৃতীয় বারের মতো সিএমএসডি রেজিষ্ট্রেশন বিহীন ১টি এ্যাম্বুলেন্স ২রা নভেম্বর ২০০৯ সালে বরাদ্ধ আসে। বরাদ্ধকৃত এ্যাম্বুলেন্সটি কয়েক বছর ব্যবহারের পর তা অচল হয়ে পড়ে। অচল হওয়া ২টি এ্যাম্বুলেন্স হাসপাতালের পিছনে খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছে। তবে খোলা আকাশের নিচে পড়ে থাকার কারনে মূল্যবান যন্ত্রপাতি একেবারে নষ্ট হয়ে গেছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ দীর্ঘ প্রায় ৪বছর যাবত এ্যাম্বুলেন্স বিহীন চলছে হাসপাতাল। এতে চরম ভোগান্তি হচ্ছে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের। অব্যাহত হচ্ছে স্বাস্থ্য সেবা।

 

এব্যাপারে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আহাম্মদ কবীর ‘‘ দৈনিক আজকের কুমিল্লা’’ কে বলেন, আমি ২০১৭ সালে এই উপজেলায় যখন যোগদান করি তখন থেকে অকেজো অবস্থায় ২টি এ্যাম্বুলেন্স পড়ে আছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রাটি ৫০ শয্যা হওয়ায় এবং এই উপজেলায় যাতায়াতের সুবিধা ভালো হওয়ায় পাশর্^বর্তী উপজেলা থেকে প্রতিদিন অনেক রোগী চিকিৎসা নিতে আসে। তবে এ্যাম্বুলেন্স অচল থাকার কারনে জরুরী ভিত্তিতে হাসপাতাল হতে রোগী পরিবহন করতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে রোগীর লোকজনকে। নতুন এ্যাম্বুলেন্স বরাদ্ধ পেতে এই বিষয়ে লিখিত ভাবে কয়েকবার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে।