ঢাকা ১০:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ করা বিএনপির পুরনো অভ্যাস: ওবায়দুল কাদের

জাতীয় ডেস্কঃ
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রতিনিয়ত নির্বাচন নিয়ে কারচুপির অভিযোগ তোলায় বিএনপির রাজনৈতিক বিশ্বাস যোগ্যতা নষ্ট হচ্ছে। এসকল অবান্তর অভিযোগে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে না, বিএনপির স্বদিচ্ছা ও বিশ্বাসযোগ্যতা প্রশ্নবিদ্ধ হবে। অবশ্য নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ করা বিএনপির পুরানো অভ্যাস। নির্বাচন এলেই তারা ভাঙ্গা রেকর্ড বাজায়। রংপুরেও তারা সেই রেকর্ড বাজাচ্ছে। তারা নির্বাচনে হেরে যাওয়ার আগে আরেকবার হারে, আবার জেতার আগেও একবার হারে। ভাঙ্গা রেকর্ড না বাজানোর জন্য তিনি বিএনপির প্রতি আহ্বান জানান।
রবিবার বিআরটিসির গাবতলী বাস ডিপো এবং মোবাইল অ্যাপস ‘কতদূর’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, এর আগে চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে রেজাল্টের আগ পর্যন্ত অবিরাম অভিযোগ করেছিল। গাজীপুর, কুমিল্লা ও নারায়াণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়েও তারা একই অভিযোগ করেছিল। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি রংপুর সিটি করপোরেশনের ভোটারদের শেখ হাসিনা সরকারের পক্ষ থেকে আশ্বস্ত করতে চাই, সাম্প্রতিককালে যে রকম নির্বাচন নারায়ণগঞ্জ ও কুমিল্লায় হয়েছিল, সে রকম নির্বাচন রংপুর সিটি করপোরেশনেও হবে। এ নির্বাচন হবে অবাধ ও নিরপেক্ষ। নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশন স্বাধীন কর্তৃত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। রংপুরের জনগণ যাকে খুশি তাকে ভোট দিবে। এ পরিবেশ সৃষ্টিতে সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে এবং এতে কোনো হস্তক্ষেপ থাকবে না।
উল্টোপথে গা‌ড়ি নিয়ে চলা‌ ভিআইপিদের প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গত সাড়ে পাঁচ বছরে আমি কখনো রাস্তার রং সাইড ব্যবহার করিনি। দেশের মানুষ যদি যানজট সহ্য করতে পারে, তাহলে আমি কেন পারব না? এক ঈদে আমি বাইপাল থেকে চন্দ্রায় গিয়েছি চার ঘণ্টায়, যেখানে রং সাইড ব্যবহার করলে আমি ১৫ মিনিটে যেতে পারতাম। এখন দুদক রাস্তায় নেমেছে, তাই অনেক ভিআইপির টনক নড়েছে বলে আমি মনে করি।’
ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ করা বিএনপির পুরনো অভ্যাস: ওবায়দুল কাদের

আপডেট সময় ০৩:২০:১৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭
জাতীয় ডেস্কঃ
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রতিনিয়ত নির্বাচন নিয়ে কারচুপির অভিযোগ তোলায় বিএনপির রাজনৈতিক বিশ্বাস যোগ্যতা নষ্ট হচ্ছে। এসকল অবান্তর অভিযোগে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে না, বিএনপির স্বদিচ্ছা ও বিশ্বাসযোগ্যতা প্রশ্নবিদ্ধ হবে। অবশ্য নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ করা বিএনপির পুরানো অভ্যাস। নির্বাচন এলেই তারা ভাঙ্গা রেকর্ড বাজায়। রংপুরেও তারা সেই রেকর্ড বাজাচ্ছে। তারা নির্বাচনে হেরে যাওয়ার আগে আরেকবার হারে, আবার জেতার আগেও একবার হারে। ভাঙ্গা রেকর্ড না বাজানোর জন্য তিনি বিএনপির প্রতি আহ্বান জানান।
রবিবার বিআরটিসির গাবতলী বাস ডিপো এবং মোবাইল অ্যাপস ‘কতদূর’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, এর আগে চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে রেজাল্টের আগ পর্যন্ত অবিরাম অভিযোগ করেছিল। গাজীপুর, কুমিল্লা ও নারায়াণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়েও তারা একই অভিযোগ করেছিল। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি রংপুর সিটি করপোরেশনের ভোটারদের শেখ হাসিনা সরকারের পক্ষ থেকে আশ্বস্ত করতে চাই, সাম্প্রতিককালে যে রকম নির্বাচন নারায়ণগঞ্জ ও কুমিল্লায় হয়েছিল, সে রকম নির্বাচন রংপুর সিটি করপোরেশনেও হবে। এ নির্বাচন হবে অবাধ ও নিরপেক্ষ। নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশন স্বাধীন কর্তৃত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। রংপুরের জনগণ যাকে খুশি তাকে ভোট দিবে। এ পরিবেশ সৃষ্টিতে সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে এবং এতে কোনো হস্তক্ষেপ থাকবে না।
উল্টোপথে গা‌ড়ি নিয়ে চলা‌ ভিআইপিদের প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গত সাড়ে পাঁচ বছরে আমি কখনো রাস্তার রং সাইড ব্যবহার করিনি। দেশের মানুষ যদি যানজট সহ্য করতে পারে, তাহলে আমি কেন পারব না? এক ঈদে আমি বাইপাল থেকে চন্দ্রায় গিয়েছি চার ঘণ্টায়, যেখানে রং সাইড ব্যবহার করলে আমি ১৫ মিনিটে যেতে পারতাম। এখন দুদক রাস্তায় নেমেছে, তাই অনেক ভিআইপির টনক নড়েছে বলে আমি মনে করি।’