ঢাকা ০৮:৩৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নীরবঘাতক অস্টিওপোরোসিস প্রতিরোধের উপায়

স্বাস্থ্য ডেস্কঃ
অস্টিওপোরোসিস (Osteoporosis) অস্থি বা হাঁড়ের এক ধরনের রোগ যেখানে অস্থিসমূহের সান্দ্রতা বা ঘনত্ব কমে যায় এবং অস্থি দুর্বল ও ঝাঁঝরা হতে থাকে।
বয়স বাড়ার সাথে সাথে মানুষের শরীরের হাঁড় সমূহ দুর্বল হতে থাকে। বয়স্ক মহিলাদের ক্ষেত্রে বিশেষ করে মাসিক বন্ধ হওয়ার পরে এই সমস্যা বেশী দেখা যায়। প্রতি দু’জনে একজন মহিলা এবং প্রতি ৫ জনে একজন পুরুষ এ রোগে আক্রান্ত হয়।
অস্টিওপোরোসিস এর লক্ষণগুলো কি কি?
এটা একটা নীরব ব্যাধি (Silent Killer)। প্রথম দিকে তেমন কোনো লক্ষণ বুঝা যায়না। হাঁড় যখন ক্রমাগত দুর্বল হতে থাকে, একসময় অল্প আঘাতে এমন কি কোন আঘাত ছাড়াও হাঁড় ভেঙে যাওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। মেরুদণ্ড, কোমড় এবং হাতের কব্জিতে এ রকম হাঁড় ভেঙে যাওয়ার লক্ষণ দেখা যায়। ফলে কোমড়ে বা হাতে ব্যাথা অনুভূত হয়, শরীরের উচ্চতা কমে যায় এবং মানুষ কুজো হয়ে যায়। বয়স্কদের ক্ষেত্রে বিশেষ করে মহিলাদের ক্ষেত্রে লক্ষণ সমূহ বেশী দেখা যায়। এ রকম পরিস্থিতিতে বয়স্ক মানুষের ভেগান্তির পরিমাণ ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে।
কাদের ক্ষেত্রে ঝুঁকির মাত্রা বেশী?
বয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে বিশেষ করে বয়স্ক মহিলা, সাদা চামরা এবং এশিয়ানদের,  ছোট আকৃতির শরীরের গঠন হলে এবং যাদের পরিবারের বাবা, মা বা অন্য কেউ এ’রোগে আক্রান্ত, তাদের ক্ষেত্রে Osteoporosis হওয়ার ঝুঁকি বেশী।
হরমোন জনিত কোন সমস্যা, থাইরয়েড বা অন্যান্য গ্রন্থির সমস্যাজনিত কারণেও এ রোগ হতে পারে। Steroid (যেমন- Prednisolone) জাতীয় ঔষধ সেবন এ রোগের একটা অন্যতম কারণ। আরো কিছু কিছু ঔষধ সেবনেও এ রোগ হতে পারে।
শরীরে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ কমে গেলে, ক্যালসিয়াম এবং পুষ্টিকর খাবার কম খেলে, খাদ্যনালীতে কোন রোগ কিংবা সার্জারী হলে, ক্যান্সার রোগীদের এবং শরীরের কোন অঙ্গ প্রতিস্থাপন করলেও ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় এ’রোগ হতে পারে। ধূমপান, অতিমাত্রায় মাদক সেবন এবং অলস জীবন যাপন ও Osteoporosis এর অন্যতম কারণ।
কখন ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন?
•যদি অল্প বয়সে আপনার মাসিক বন্ধ হয়ে যায়।
•যদি বেশী দিন ধরে Steroid জাতীয় ঔষধ সেবন করেন।
•যদি বাবা, মা বা বয়স্ক কারো মেরুদন্ড, কোমড় বা হাত অল্প আঘাতে ভেঙ্গে যায়।
•উপরে উল্লিখিত ঝাঁকিপূর্ণ যেকোন অবস্থায় আপনি ডাক্তারের পরামর্শ নিতে পারেন।
প্রতিরোধের উপায় কি কি?
পুষ্টিকর খাবার, নিয়মিত ব্যায়াম আপনার  অস্থিসমূহকে সুস্থ রাখবে। পর্যাপ্ত পরিমান ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ডি, আমিষ জাতীয় খাবার এবং নিয়মিত ব্যায়াম যেমন- হাঁটা, জগিং, সাইক্লিং, সাতার কাটা ইত্যাদি Osteoporosis প্রতিরোধের অন্যতম উপায়। এছাড়া ধুমপান ও মাদক সেবন পরিহার করে এ রোগের ঝুঁকি কমানো যায়। বিশেষজ্ঞ চিকিত্সক ও পুষ্টি বিজ্ঞানীর পরামর্শ আপনার  Osteoporosis প্রতিরোধে সহায়ক হতে পারে।
পরিশেষে বলতে চাই—-
“When diet is wrong,
Medicine is of no use
When diet is correct
Medicine is of no need”
So, let’s your food and exercise be your medicine
লেখক,
ডাঃ ওয়াকিল আহমেদ
সহকারী অধ্যাপক (অর্থোপেডিক সার্জারী)
শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ।
ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

নীরবঘাতক অস্টিওপোরোসিস প্রতিরোধের উপায়

আপডেট সময় ১২:৫৬:৩২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭
স্বাস্থ্য ডেস্কঃ
অস্টিওপোরোসিস (Osteoporosis) অস্থি বা হাঁড়ের এক ধরনের রোগ যেখানে অস্থিসমূহের সান্দ্রতা বা ঘনত্ব কমে যায় এবং অস্থি দুর্বল ও ঝাঁঝরা হতে থাকে।
বয়স বাড়ার সাথে সাথে মানুষের শরীরের হাঁড় সমূহ দুর্বল হতে থাকে। বয়স্ক মহিলাদের ক্ষেত্রে বিশেষ করে মাসিক বন্ধ হওয়ার পরে এই সমস্যা বেশী দেখা যায়। প্রতি দু’জনে একজন মহিলা এবং প্রতি ৫ জনে একজন পুরুষ এ রোগে আক্রান্ত হয়।
অস্টিওপোরোসিস এর লক্ষণগুলো কি কি?
এটা একটা নীরব ব্যাধি (Silent Killer)। প্রথম দিকে তেমন কোনো লক্ষণ বুঝা যায়না। হাঁড় যখন ক্রমাগত দুর্বল হতে থাকে, একসময় অল্প আঘাতে এমন কি কোন আঘাত ছাড়াও হাঁড় ভেঙে যাওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। মেরুদণ্ড, কোমড় এবং হাতের কব্জিতে এ রকম হাঁড় ভেঙে যাওয়ার লক্ষণ দেখা যায়। ফলে কোমড়ে বা হাতে ব্যাথা অনুভূত হয়, শরীরের উচ্চতা কমে যায় এবং মানুষ কুজো হয়ে যায়। বয়স্কদের ক্ষেত্রে বিশেষ করে মহিলাদের ক্ষেত্রে লক্ষণ সমূহ বেশী দেখা যায়। এ রকম পরিস্থিতিতে বয়স্ক মানুষের ভেগান্তির পরিমাণ ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে।
কাদের ক্ষেত্রে ঝুঁকির মাত্রা বেশী?
বয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে বিশেষ করে বয়স্ক মহিলা, সাদা চামরা এবং এশিয়ানদের,  ছোট আকৃতির শরীরের গঠন হলে এবং যাদের পরিবারের বাবা, মা বা অন্য কেউ এ’রোগে আক্রান্ত, তাদের ক্ষেত্রে Osteoporosis হওয়ার ঝুঁকি বেশী।
হরমোন জনিত কোন সমস্যা, থাইরয়েড বা অন্যান্য গ্রন্থির সমস্যাজনিত কারণেও এ রোগ হতে পারে। Steroid (যেমন- Prednisolone) জাতীয় ঔষধ সেবন এ রোগের একটা অন্যতম কারণ। আরো কিছু কিছু ঔষধ সেবনেও এ রোগ হতে পারে।
শরীরে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ কমে গেলে, ক্যালসিয়াম এবং পুষ্টিকর খাবার কম খেলে, খাদ্যনালীতে কোন রোগ কিংবা সার্জারী হলে, ক্যান্সার রোগীদের এবং শরীরের কোন অঙ্গ প্রতিস্থাপন করলেও ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় এ’রোগ হতে পারে। ধূমপান, অতিমাত্রায় মাদক সেবন এবং অলস জীবন যাপন ও Osteoporosis এর অন্যতম কারণ।
কখন ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন?
•যদি অল্প বয়সে আপনার মাসিক বন্ধ হয়ে যায়।
•যদি বেশী দিন ধরে Steroid জাতীয় ঔষধ সেবন করেন।
•যদি বাবা, মা বা বয়স্ক কারো মেরুদন্ড, কোমড় বা হাত অল্প আঘাতে ভেঙ্গে যায়।
•উপরে উল্লিখিত ঝাঁকিপূর্ণ যেকোন অবস্থায় আপনি ডাক্তারের পরামর্শ নিতে পারেন।
প্রতিরোধের উপায় কি কি?
পুষ্টিকর খাবার, নিয়মিত ব্যায়াম আপনার  অস্থিসমূহকে সুস্থ রাখবে। পর্যাপ্ত পরিমান ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ডি, আমিষ জাতীয় খাবার এবং নিয়মিত ব্যায়াম যেমন- হাঁটা, জগিং, সাইক্লিং, সাতার কাটা ইত্যাদি Osteoporosis প্রতিরোধের অন্যতম উপায়। এছাড়া ধুমপান ও মাদক সেবন পরিহার করে এ রোগের ঝুঁকি কমানো যায়। বিশেষজ্ঞ চিকিত্সক ও পুষ্টি বিজ্ঞানীর পরামর্শ আপনার  Osteoporosis প্রতিরোধে সহায়ক হতে পারে।
পরিশেষে বলতে চাই—-
“When diet is wrong,
Medicine is of no use
When diet is correct
Medicine is of no need”
So, let’s your food and exercise be your medicine
লেখক,
ডাঃ ওয়াকিল আহমেদ
সহকারী অধ্যাপক (অর্থোপেডিক সার্জারী)
শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ।