ঢাকা ১১:৪৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাঞ্ছারামপুরে সাপে কাটা লাশ তুলে নেয়ার চেষ্টা

আশিকুর রহমান, বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মনবাড়িয়া) প্রতিনিধি : 

ব্রাহ্মনবাড়িয়ার জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার পৌরসদর দূর্গারামপুরের ভিটি ঝগড়ারচর কবরস্থান থেকে সাপে কাটা লাশ তুলে নেয়ার চেষ্টা অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১ টার দিকে লাশ তুলে নেওয়ার চেষ্ঠা করে দূর্বৃতরা। একপর্যায়ে স্থানীয়দের দাওয়া খেয়ে কাফনের কাপড় নিয়ে পালিয়েছে  দূর্বৃতরা।

গতরাতে পবিত্র শবেবরাতের (মহিমান্বীত) রাত এবাদত বন্দিগীর রাত। এ রাতে সকল মুসলিম নামাজ, জিকির, দোয়া, দূরুদ পড়ে সব শেষে কবর জিয়ারত করে। কবর জিয়ারতের উদ্দেশ্য কবরস্থানে গিয়ে যায় যায় মরহুম ওয়ারিশ দের জন্য দোয়া করে এতমাবস্থায় সাদেক মিয়া তার মায়ের কবরের পাশে দাড়িয়ে কবর জিয়ারতের ব্যাস্ত থাকে। কিছুক্ষন পরে কবরের খাচাটির চোখে পরে যে খাচাটি উল্টানো করন কি, কেন। তখন সামনে এগুতে থাকে হঠাৎ একটি মানুষ কবর থেকে বের হয়ে দৌড়াতে থাকে ও পালিয়ে যায়।

তারপর সাদেক চিৎকার করে বলতে থাকেন ও লোকজন এসে পরে ও দেখে কবরের একপাশের একটু মাটি উল্টিয়ে লাশ দেখা যায়। উল্ঙ্গ করে রেখে কাফনের কাপড় নিয়ে পালিয়ে যায়। তবে কে বা কারা এমন জগন্যতম কাজটি করেছে তা নিশ্চিত করতে পারেনি।

বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার অসি নিজাম উদ্দিন খবর পেয়ে কবরস্থানে এসে বাস্তবতার হুবহু মিল রয়েছে ও লাশটি দেখে বলে এটা কি করে সম্ভব। শরিয়তের বিধান অনুসারে তাকে দাফন করতে বলেন।পরে শরিয়তের ইমাম হাবিবুর রহমানের উপস্থিতিতে সরিয়ত মোতাবেক তাকে পূনরায় কাপড় পড়িয়ে দাফন সম্পুর্ন করা হয়।এবং সারা রাত কবরস্থানে মরহুম মালেকার পরিবারের লোকজনেরা কড়া পাহাড়ায় রাখেন।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

বাঞ্ছারামপুরে সাপে কাটা লাশ তুলে নেয়ার চেষ্টা

আপডেট সময় ০৬:০৯:০১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২ মে ২০১৮
আশিকুর রহমান, বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মনবাড়িয়া) প্রতিনিধি : 

ব্রাহ্মনবাড়িয়ার জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার পৌরসদর দূর্গারামপুরের ভিটি ঝগড়ারচর কবরস্থান থেকে সাপে কাটা লাশ তুলে নেয়ার চেষ্টা অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১ টার দিকে লাশ তুলে নেওয়ার চেষ্ঠা করে দূর্বৃতরা। একপর্যায়ে স্থানীয়দের দাওয়া খেয়ে কাফনের কাপড় নিয়ে পালিয়েছে  দূর্বৃতরা।

গতরাতে পবিত্র শবেবরাতের (মহিমান্বীত) রাত এবাদত বন্দিগীর রাত। এ রাতে সকল মুসলিম নামাজ, জিকির, দোয়া, দূরুদ পড়ে সব শেষে কবর জিয়ারত করে। কবর জিয়ারতের উদ্দেশ্য কবরস্থানে গিয়ে যায় যায় মরহুম ওয়ারিশ দের জন্য দোয়া করে এতমাবস্থায় সাদেক মিয়া তার মায়ের কবরের পাশে দাড়িয়ে কবর জিয়ারতের ব্যাস্ত থাকে। কিছুক্ষন পরে কবরের খাচাটির চোখে পরে যে খাচাটি উল্টানো করন কি, কেন। তখন সামনে এগুতে থাকে হঠাৎ একটি মানুষ কবর থেকে বের হয়ে দৌড়াতে থাকে ও পালিয়ে যায়।

তারপর সাদেক চিৎকার করে বলতে থাকেন ও লোকজন এসে পরে ও দেখে কবরের একপাশের একটু মাটি উল্টিয়ে লাশ দেখা যায়। উল্ঙ্গ করে রেখে কাফনের কাপড় নিয়ে পালিয়ে যায়। তবে কে বা কারা এমন জগন্যতম কাজটি করেছে তা নিশ্চিত করতে পারেনি।

বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার অসি নিজাম উদ্দিন খবর পেয়ে কবরস্থানে এসে বাস্তবতার হুবহু মিল রয়েছে ও লাশটি দেখে বলে এটা কি করে সম্ভব। শরিয়তের বিধান অনুসারে তাকে দাফন করতে বলেন।পরে শরিয়তের ইমাম হাবিবুর রহমানের উপস্থিতিতে সরিয়ত মোতাবেক তাকে পূনরায় কাপড় পড়িয়ে দাফন সম্পুর্ন করা হয়।এবং সারা রাত কবরস্থানে মরহুম মালেকার পরিবারের লোকজনেরা কড়া পাহাড়ায় রাখেন।