ঢাকা ০৯:০১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের বিক্ষোভে বন্ধ বিচারকাজ

জাতীয় ডেস্ক:

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানির দিন এগিয়ে আনার দাবিতে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের দফায় দফায় বিক্ষোভের মুখে আজ বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগের বিচারকাজ বন্ধ হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, দুপুর ১২টার দিকে ডেসটিনির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেনের একটি মামলার শুনানি চলছিলো। ডায়াসে দাঁড়িয়ে শুনানি করছিলেন তার আইনজীবী ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি, এজলাসে ছিলেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনসহ ছয় বিচারপতি। একদিকে চলছিলো এই মামলার শুনানি, অন্যদিকে খালেদা জিয়ার জামিনের দাবিতে শতাধিক বিএনপিপন্থী আইনজীবী বিক্ষোভে এজলাস কক্ষ স্লোগানে কাঁপিয়ে তোলেন। তারা ‘খালেদা জিয়ার জামিন চায়, তার জামিন দিতে হবে’, ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’ স্লোগান দিতে থাকেন। স্লোগানের আওয়াজে সমস্যা হওয়ায় আজমালুল হোসেন শুনানি না করে ডায়াসে দাঁড়িয়ে থাকেন। তখন বিচারপতিরাও শুনানি গ্রহণ বন্ধ করে এজলাসে বসে থাকেন।

পরে সোয়া একটার দিকে ওই মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করে এজলাস থেকে নেমে বিচারপতিরা। এরপর আইনজীবীরা আদালত কক্ষ থেকে বেরিয়ে আসেন।

এর আগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা সম্পন্ন না হওয়ায় শুনানি হয়নি জামিন আবেদনের। আগামী বৃহস্পতিবার মেডিকেল রিপোর্ট আসা সাপেক্ষ জামিন শুনানির দিন ধার্য করেছে আপিল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের ছয় বিচারপতির বেঞ্চ আজ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন। পরে বিক্ষোভ শুরু করেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের বিক্ষোভে বন্ধ বিচারকাজ

আপডেট সময় ০২:০২:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৯

জাতীয় ডেস্ক:

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানির দিন এগিয়ে আনার দাবিতে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের দফায় দফায় বিক্ষোভের মুখে আজ বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগের বিচারকাজ বন্ধ হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, দুপুর ১২টার দিকে ডেসটিনির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেনের একটি মামলার শুনানি চলছিলো। ডায়াসে দাঁড়িয়ে শুনানি করছিলেন তার আইনজীবী ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি, এজলাসে ছিলেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনসহ ছয় বিচারপতি। একদিকে চলছিলো এই মামলার শুনানি, অন্যদিকে খালেদা জিয়ার জামিনের দাবিতে শতাধিক বিএনপিপন্থী আইনজীবী বিক্ষোভে এজলাস কক্ষ স্লোগানে কাঁপিয়ে তোলেন। তারা ‘খালেদা জিয়ার জামিন চায়, তার জামিন দিতে হবে’, ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’ স্লোগান দিতে থাকেন। স্লোগানের আওয়াজে সমস্যা হওয়ায় আজমালুল হোসেন শুনানি না করে ডায়াসে দাঁড়িয়ে থাকেন। তখন বিচারপতিরাও শুনানি গ্রহণ বন্ধ করে এজলাসে বসে থাকেন।

পরে সোয়া একটার দিকে ওই মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করে এজলাস থেকে নেমে বিচারপতিরা। এরপর আইনজীবীরা আদালত কক্ষ থেকে বেরিয়ে আসেন।

এর আগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা সম্পন্ন না হওয়ায় শুনানি হয়নি জামিন আবেদনের। আগামী বৃহস্পতিবার মেডিকেল রিপোর্ট আসা সাপেক্ষ জামিন শুনানির দিন ধার্য করেছে আপিল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের ছয় বিচারপতির বেঞ্চ আজ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন। পরে বিক্ষোভ শুরু করেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা।