ঢাকা ০৩:২৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্ব এখন বাংলাদেশকে সম্মানের চোখে দেখে: প্রধানমন্ত্রী

জাতীয় ডেসস্কঃ
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বর্তমান সরকারের মেয়াদের ধারাবাহিকতা দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে নিশ্চিত করেছে। এর ফলশ্রুতিতে মানুষ প্রত্যক্ষভাবে উপকৃত হচ্ছে এবং বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে মর্যাদার আসন অর্জন করেছে।
বৃহস্পতিবার গণভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের পুনর্মিলনীতে ভাষণকালে বলেন, জনগণ সর্বক্ষেত্রে এখন উন্নয়নের ছোঁয়া পাচ্ছে এবং বিশ্ব বাংলাদেশকে এখন করুণা নয় মর্যাদার চোখে দেখছে। সরকারের ধারাবাহিকতার জন্যই আমরা মর্যাদা ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি।
শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট ২০১৪ সালের জানুয়ারির নির্বাচন ভণ্ডুল করার ষড়যন্ত্র করেছিল। কিন্তু জনগণ নির্বাচন ও গণতন্ত্রের স্বপক্ষে থাকায় তারা ব্যর্থ হয়েছে। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শোষিক ও বঞ্চিত মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তনের মাধ্যমে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে দেশ স্বাধীন করেছিলেন। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ যখন অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছিল সে সময় ৩০ লাখ শহীদের হত্যাকারী ও ২ লাখ মা-বোনকে নির্যাতনকারী স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর সামরিক জান্তা ক্ষমতা কুক্ষিগত করলে দেশে হত্যা, ক্যু ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতি শুরু হয়। ওই সময় স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির অধিষ্ঠান দেশকে পেছনের দিকে ঠেলে দেয়। কারণ তারা এমন কোন অর্থবহ স্বাধীনতা চায়নি যে যার সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে স্বাধীনতার ১০ বছরেই বাংলাদেশ উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হতো। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতি হতাশার অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়। পরবর্তীতে দীর্ঘ সংগ্রামের পর ১৯৯৬ সালে জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে জাতি আবারো সঠিক পথের দিশা খুঁজে পায় এবং অন্ধকার থেকে আলোর পথে যাত্রা শুরু হয়। তিনি বলেন, ২১ বছর পর ক্ষমতায় এসে তাঁর দল গণতন্ত্র ও দেশের হারানো গৌরব পুনরুদ্ধার করেছে।
ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

বিশ্ব এখন বাংলাদেশকে সম্মানের চোখে দেখে: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় ০২:০৩:১৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই ২০১৭
জাতীয় ডেসস্কঃ
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বর্তমান সরকারের মেয়াদের ধারাবাহিকতা দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে নিশ্চিত করেছে। এর ফলশ্রুতিতে মানুষ প্রত্যক্ষভাবে উপকৃত হচ্ছে এবং বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে মর্যাদার আসন অর্জন করেছে।
বৃহস্পতিবার গণভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের পুনর্মিলনীতে ভাষণকালে বলেন, জনগণ সর্বক্ষেত্রে এখন উন্নয়নের ছোঁয়া পাচ্ছে এবং বিশ্ব বাংলাদেশকে এখন করুণা নয় মর্যাদার চোখে দেখছে। সরকারের ধারাবাহিকতার জন্যই আমরা মর্যাদা ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি।
শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট ২০১৪ সালের জানুয়ারির নির্বাচন ভণ্ডুল করার ষড়যন্ত্র করেছিল। কিন্তু জনগণ নির্বাচন ও গণতন্ত্রের স্বপক্ষে থাকায় তারা ব্যর্থ হয়েছে। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শোষিক ও বঞ্চিত মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তনের মাধ্যমে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে দেশ স্বাধীন করেছিলেন। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ যখন অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছিল সে সময় ৩০ লাখ শহীদের হত্যাকারী ও ২ লাখ মা-বোনকে নির্যাতনকারী স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর সামরিক জান্তা ক্ষমতা কুক্ষিগত করলে দেশে হত্যা, ক্যু ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতি শুরু হয়। ওই সময় স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির অধিষ্ঠান দেশকে পেছনের দিকে ঠেলে দেয়। কারণ তারা এমন কোন অর্থবহ স্বাধীনতা চায়নি যে যার সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে স্বাধীনতার ১০ বছরেই বাংলাদেশ উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হতো। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতি হতাশার অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়। পরবর্তীতে দীর্ঘ সংগ্রামের পর ১৯৯৬ সালে জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে জাতি আবারো সঠিক পথের দিশা খুঁজে পায় এবং অন্ধকার থেকে আলোর পথে যাত্রা শুরু হয়। তিনি বলেন, ২১ বছর পর ক্ষমতায় এসে তাঁর দল গণতন্ত্র ও দেশের হারানো গৌরব পুনরুদ্ধার করেছে।