ঢাকা ০৮:২০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে অগ্নিকান্ডে দশ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ভস্মীভূত, ২০ লক্ষ টাকার ক্ষতি

মাহবুবুর রহমান আরিফঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার নহল চৌমুহনি বাজরের অগ্নিকান্ডে ১০টি দোকান ঘর ভস্মীভূত হয়েছে। এত প্রায় ২০/২৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা।

রবিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি ঘটে।

আগুনে ভস্মীভূত ক্ষতিগ্রস্তরা ব্যবসায়ীরা হলেন হোটেল ব্যবসায়ী জলিল মিয়া, রাইস মেইলের মালিক বদিউল আলম, মুদি দোকানের মালিক আমির হোসেন, হালিম মিয়া, দুলাল মিয়া, ফল ব্যাবসায়ী খলিলুর রহমান, সেলুনের দোকন আব্দুস ছাত্তার, ফার্মেসী রমজান আলী, সেলুন আব্দুস ছাত্তর, টেইলাস মুখলেছ ও লন্ড্রী ব্যাবসায়ী সুবাস।

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যাবসায়ীরা জানান,  রাত ১২টার দিকে লন্ড্রী ঘরের দোকান থেকে আগুনের শুত্রপাতের ঘটনা ঘটে। এ সময় আশপাশের লোক জন ও বাজার পাহারাদাররা প্রথমে আগুন নিভানোর চেষ্টা করে। পরে মুরাদনগর ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম ঘটনার স্থল এসে রাত ৩টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এতক্ষনে ১০টি ব্যাবসায় প্রতিষ্ঠানের সকল মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

এ বিষয়ে মুরাদনগর ফায়ার সার্ভিসের  স্টেশন মাষ্টার তুষার হোসেন জানান, খবর পেয়ে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। আগুনে দশটি দোকান পুড়ে গেলেও  যাওয়ার সোয়া এক ঘণ্টার মধ্যে আগুন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। এতে আসে পাশের আরো আগুন ছড়াতে পারেনি। বিদ্যুতের শট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগরে অগ্নিকান্ডে দশ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ভস্মীভূত, ২০ লক্ষ টাকার ক্ষতি

আপডেট সময় ০১:৪৬:৫৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৮
মাহবুবুর রহমান আরিফঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার নহল চৌমুহনি বাজরের অগ্নিকান্ডে ১০টি দোকান ঘর ভস্মীভূত হয়েছে। এত প্রায় ২০/২৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা।

রবিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি ঘটে।

আগুনে ভস্মীভূত ক্ষতিগ্রস্তরা ব্যবসায়ীরা হলেন হোটেল ব্যবসায়ী জলিল মিয়া, রাইস মেইলের মালিক বদিউল আলম, মুদি দোকানের মালিক আমির হোসেন, হালিম মিয়া, দুলাল মিয়া, ফল ব্যাবসায়ী খলিলুর রহমান, সেলুনের দোকন আব্দুস ছাত্তার, ফার্মেসী রমজান আলী, সেলুন আব্দুস ছাত্তর, টেইলাস মুখলেছ ও লন্ড্রী ব্যাবসায়ী সুবাস।

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যাবসায়ীরা জানান,  রাত ১২টার দিকে লন্ড্রী ঘরের দোকান থেকে আগুনের শুত্রপাতের ঘটনা ঘটে। এ সময় আশপাশের লোক জন ও বাজার পাহারাদাররা প্রথমে আগুন নিভানোর চেষ্টা করে। পরে মুরাদনগর ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম ঘটনার স্থল এসে রাত ৩টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এতক্ষনে ১০টি ব্যাবসায় প্রতিষ্ঠানের সকল মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

এ বিষয়ে মুরাদনগর ফায়ার সার্ভিসের  স্টেশন মাষ্টার তুষার হোসেন জানান, খবর পেয়ে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। আগুনে দশটি দোকান পুড়ে গেলেও  যাওয়ার সোয়া এক ঘণ্টার মধ্যে আগুন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। এতে আসে পাশের আরো আগুন ছড়াতে পারেনি। বিদ্যুতের শট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে ধারণা করা হচ্ছে।