ঢাকা ১১:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে ইউপি সদস্যের কাছে চাঁদা দাবি, এসআই সাময়িক বরখাস্ত

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় এক ইউপি সদস্যের কাছে মোবাইল ফোনে চাঁদা দাবির অডিও প্রকাশের পর মুরাদনগর থানার এক উপ-পরিদর্শককে (এসআই) সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রবাশ চন্দ্র ধর।

অভিযোগে জানা যায়, মুরাদনগর থানায় কর্মরত এসআই হারুনুর রশিদ তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন থেকে নবীপুর পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য আশ্রাফুল ইসলামের কাছে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মুরাদনগর সার্কেল) রবিউল ইসলাম বিষয়টি তদন্ত করে সত্যতা পেয়ে পুলিশ সুপারের কাছে ২৫ মার্চ প্রতিবেদন জমা দেন। এই প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান এসআই হারুনকে গত শনিবার (৩০ মার্চ) বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করেন।

এসআই হারুন বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমি কিছু বলতে পারব না। সব স্যার (ওসি) জানেন। স্যারকে কল করেন।’
মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রবাশ চন্দ্র ধর বলেন, ‘এসআই হারুনুর রশিদের চাঁদা দাবির বিষয়ে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তিনি আমার নাম ব্যবহার করে এমনটা করেছেন।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মুরাদনগর সার্কেল) রবিউল ইসলাম বলেন, ‘আমরা অভিযোগ পেয়ে তদন্ত করে সত্যতা পেয়েছি। অভিযুক্ত এসআইকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।’

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগরে ইউপি সদস্যের কাছে চাঁদা দাবি, এসআই সাময়িক বরখাস্ত

আপডেট সময় ০৮:৩৬:৪৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০২৪

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় এক ইউপি সদস্যের কাছে মোবাইল ফোনে চাঁদা দাবির অডিও প্রকাশের পর মুরাদনগর থানার এক উপ-পরিদর্শককে (এসআই) সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রবাশ চন্দ্র ধর।

অভিযোগে জানা যায়, মুরাদনগর থানায় কর্মরত এসআই হারুনুর রশিদ তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন থেকে নবীপুর পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য আশ্রাফুল ইসলামের কাছে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মুরাদনগর সার্কেল) রবিউল ইসলাম বিষয়টি তদন্ত করে সত্যতা পেয়ে পুলিশ সুপারের কাছে ২৫ মার্চ প্রতিবেদন জমা দেন। এই প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান এসআই হারুনকে গত শনিবার (৩০ মার্চ) বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করেন।

এসআই হারুন বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমি কিছু বলতে পারব না। সব স্যার (ওসি) জানেন। স্যারকে কল করেন।’
মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রবাশ চন্দ্র ধর বলেন, ‘এসআই হারুনুর রশিদের চাঁদা দাবির বিষয়ে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তিনি আমার নাম ব্যবহার করে এমনটা করেছেন।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মুরাদনগর সার্কেল) রবিউল ইসলাম বলেন, ‘আমরা অভিযোগ পেয়ে তদন্ত করে সত্যতা পেয়েছি। অভিযুক্ত এসআইকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।’