ঢাকা ০৯:৩২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু

মাহবুবুর রহমান আরিফঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের মধ্যনগর গ্রামে শারমিন আক্তার(২২) নামের এক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার রাত দেরটায় উপজেলার মধ্যনগর মধ্য পাড়া স্বামীর বাড়ীতে মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

মৃত শারমিন মধ্যনগর গ্রামের কালু মিয়ার ছেলে সিএনজি চালক রুবেল মিয়ার স্ত্রী।
২ বছর পূর্বে উপজেলার কামারচর গ্রামের ময়নল হোসেনের মেয়ে শারমিনের সাথে রুবেলের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে দশ মাসের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

গৃহবধু শারমিন গলায় ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলা হলেও বিষয়টি আত্মহত্যা নাকি পরিকল্পিত হত্যা তা নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী পলাতক থাকলে শুক্রবার সকাল ১২ টায় ঘঁনার স্থলে আসলে রুবেলের দেখা মেলে।

শারমিনের শাশুরী রতনা বেগম জানান, শুক্রবার শারমিনসহ পরিবারের সবায় রাত ১০টায় খানা খেয়ে সবায় ঘুমিয়ে পড়ি। রাত একটার সময় ছেলে রুবেল মিয়া ঘুম থেকে উঠে দেখে খাটের উপরে ঘরের তিরের মধ্যে ফাঁস দিয়ে আছে শারমিন। এমতা অবস্থায় রুবেলের চিৎকার শুনে আমি ছুটে যাই এবং ঝুলন্ত অবস্থা থেকে লাশ নামিয়ে ফেলি।

শারমিনের বাবার বাড়ির লোকজনের সূত্রে জানা যায়, প্রায় সময় শারমিনের শাশুরী রতনা বেগমের সাথে ছোট খাট বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হতো। কিছুদিন পূর্বে ঝগড়া করে মেয়ে তার বাবার বাড়িতে আত্মহত্যার চেষ্ঠা করেছিল।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বলেন, শুক্রবার সকালে মধ্যনগর  গ্রামে একজন গৃহবধু গলায় ফাসি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে এমন সংবাদ এসআই দেলোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। আত্মহত্যার ঘটনায় কোন প্রকার অভিযোগ না পাওয়ায় স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

মুরাদনগরে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু

আপডেট সময় ০৩:৫৪:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুলাই ২০১৭
মাহবুবুর রহমান আরিফঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের মধ্যনগর গ্রামে শারমিন আক্তার(২২) নামের এক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার রাত দেরটায় উপজেলার মধ্যনগর মধ্য পাড়া স্বামীর বাড়ীতে মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

মৃত শারমিন মধ্যনগর গ্রামের কালু মিয়ার ছেলে সিএনজি চালক রুবেল মিয়ার স্ত্রী।
২ বছর পূর্বে উপজেলার কামারচর গ্রামের ময়নল হোসেনের মেয়ে শারমিনের সাথে রুবেলের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে দশ মাসের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

গৃহবধু শারমিন গলায় ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলা হলেও বিষয়টি আত্মহত্যা নাকি পরিকল্পিত হত্যা তা নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী পলাতক থাকলে শুক্রবার সকাল ১২ টায় ঘঁনার স্থলে আসলে রুবেলের দেখা মেলে।

শারমিনের শাশুরী রতনা বেগম জানান, শুক্রবার শারমিনসহ পরিবারের সবায় রাত ১০টায় খানা খেয়ে সবায় ঘুমিয়ে পড়ি। রাত একটার সময় ছেলে রুবেল মিয়া ঘুম থেকে উঠে দেখে খাটের উপরে ঘরের তিরের মধ্যে ফাঁস দিয়ে আছে শারমিন। এমতা অবস্থায় রুবেলের চিৎকার শুনে আমি ছুটে যাই এবং ঝুলন্ত অবস্থা থেকে লাশ নামিয়ে ফেলি।

শারমিনের বাবার বাড়ির লোকজনের সূত্রে জানা যায়, প্রায় সময় শারমিনের শাশুরী রতনা বেগমের সাথে ছোট খাট বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হতো। কিছুদিন পূর্বে ঝগড়া করে মেয়ে তার বাবার বাড়িতে আত্মহত্যার চেষ্ঠা করেছিল।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বলেন, শুক্রবার সকালে মধ্যনগর  গ্রামে একজন গৃহবধু গলায় ফাসি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে এমন সংবাদ এসআই দেলোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। আত্মহত্যার ঘটনায় কোন প্রকার অভিযোগ না পাওয়ায় স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।