ঢাকা ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে গৃহবধু হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

সুমন সরকার:

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় গৃহবধু রোকসানা হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে স্থানীয় শিক্ষার্থীসহ এলাকার বিভিন্ন শ্রেনীর লোকজন ।

শনিবার দুপুরে উপজেলার বাখরাবাদ-পান্নারপুল সড়কের ধামঘর এলাকায় এ মানবন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, গৃহবধু রোকসানার মত যেন আর কোন নারীর যৌতুকের জন্য বলি হতে না হয়। রোকসানা তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনতে অপারগতা প্রকাশ করায় তাকে তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে। আমরা প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানাই এই হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনার জন্য।

উল্লেখ্য- গত ১৫ই ফ্রেব্রুয়ারী মুরাদনগর উপজেলার ধামঘর গ্রামের মৃত আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে রোকসানা আক্তারকে তার শশুর বাড়ির লোকজন হত্যা করে লাশ বাড়ির উঠানে ফেলে রাখেন বলে দাবি করেন তার স্বজনরা। এই ঘটনায় রোকসানার ভাই সাইদুল ইসলাম বাদী হয়ে মুরাদনগর থানায় ৫জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ নিহতের স্বামী আবুল হোসেন আটক করে কারাগারে প্রেরন করে। বর্তমানে বাকী আসামীরা পলাতক রয়েছেন। নিহতের ভাই সাইদুল জানায়, এক বছর আগে পাশের গ্রামের মো. জয়দলের হোসেনের ছেলে আবুল হোসেনের সাথে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় রোকসানার। সম্প্রতি আমার ভগ্নিপতি আবুল হোসেন তার বসত ভিটায় দালান নির্মান কাজ আরম্ভ করেন। এবং সেই দালান নির্মানবাবদ দুই লাখ টাকা বাবার বাড়ি থেকে এনে দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। আমার বোন এ বিষয়টি আমাদের অবগত করলে তখন আমরা অনেক কষ্টে এক লাখ টাকা যোগাড় করে ভগ্নিপতিকে দেই। চাহিদা অনুযায়ী বাকী এক লাখ টাকা দিতে না পারায় আমার বোনকে হত্যা করে ঘাতকরা।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগরে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার

মুরাদনগরে গৃহবধু হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

আপডেট সময় ০২:৪৯:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০

সুমন সরকার:

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় গৃহবধু রোকসানা হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে স্থানীয় শিক্ষার্থীসহ এলাকার বিভিন্ন শ্রেনীর লোকজন ।

শনিবার দুপুরে উপজেলার বাখরাবাদ-পান্নারপুল সড়কের ধামঘর এলাকায় এ মানবন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, গৃহবধু রোকসানার মত যেন আর কোন নারীর যৌতুকের জন্য বলি হতে না হয়। রোকসানা তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনতে অপারগতা প্রকাশ করায় তাকে তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে। আমরা প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানাই এই হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনার জন্য।

উল্লেখ্য- গত ১৫ই ফ্রেব্রুয়ারী মুরাদনগর উপজেলার ধামঘর গ্রামের মৃত আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে রোকসানা আক্তারকে তার শশুর বাড়ির লোকজন হত্যা করে লাশ বাড়ির উঠানে ফেলে রাখেন বলে দাবি করেন তার স্বজনরা। এই ঘটনায় রোকসানার ভাই সাইদুল ইসলাম বাদী হয়ে মুরাদনগর থানায় ৫জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ নিহতের স্বামী আবুল হোসেন আটক করে কারাগারে প্রেরন করে। বর্তমানে বাকী আসামীরা পলাতক রয়েছেন। নিহতের ভাই সাইদুল জানায়, এক বছর আগে পাশের গ্রামের মো. জয়দলের হোসেনের ছেলে আবুল হোসেনের সাথে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় রোকসানার। সম্প্রতি আমার ভগ্নিপতি আবুল হোসেন তার বসত ভিটায় দালান নির্মান কাজ আরম্ভ করেন। এবং সেই দালান নির্মানবাবদ দুই লাখ টাকা বাবার বাড়ি থেকে এনে দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। আমার বোন এ বিষয়টি আমাদের অবগত করলে তখন আমরা অনেক কষ্টে এক লাখ টাকা যোগাড় করে ভগ্নিপতিকে দেই। চাহিদা অনুযায়ী বাকী এক লাখ টাকা দিতে না পারায় আমার বোনকে হত্যা করে ঘাতকরা।