ঢাকা ০৯:১৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে চাকুরী না পেয়ে হয়রানীর অভিযোগ

মো: আজিজুর রহমান রনি, বিশেষ প্রতিনিধি:

নিয়োগ পরিক্ষায় ফাষ্ট হওয়া প্রার্থীকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকালে প্রেসক্লাবে এসে উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ করেন, মুরাদনগর উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দা।

অভিযোক্ত আনিছুর রহমান পাহাড়পুর ইউনিয়নের মৃত আব্দুল বারেক মিয়ার ছেলে।

নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে তারা বলেন, সদ্য পাহাড়পুর ইউপির ১৩৫নং উৎরাইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম প্রহরী পদে নিয়োগ পরিক্ষায় প্রথম হয় মমিনুল ইসলাম। আনিছুর রহমান তার পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে না পেরে মমিনুল ইসলামের নামে বিভিন্ন দপ্তরে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছেন। এবং ওই স্কুলের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষককে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় কূরুচি পূর্ণ বক্ত্য দিচ্ছেন। এতে করে এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। তবে আনিছুর রহমান স্থানীয় কিছু উৎশৃঙ্গল ছেলের প্রতিনিধিত্ব করার কারণে প্রকাশ্যে তার প্রতিরোধ করার সহস পাচ্ছে না কেউ।

১৩৫নং উৎরাইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একাদিক শিক্ষক বলেন, ‘আমাদের বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম একজন শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবক তিনি দির্ঘদিন সুনামের সাথে পাহাড়পুর ইউনিয়নে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কল্যাণে কাজ করে আসছেন। পাশাপাশি অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিক শিপ্রা রানী দেবী সত ও কর্তব্য পরায়ন। তাদেরকে ঘিরে মিথ্যা অপবাদ দু;খ জনক।

অভিযোক্ত আনিছুর রহমান মিয়ার মুঠো ফোনে একাদিকবার চেষ্টা করেও কল রিসিভ না করায় এ বিষয়ে তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

পরিক্ষার নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাসেলুল কাদের বলেন, মমিনুল ইসলামকে নিয়োগ বোর্ড যোগ্য মনে করেই প্রথম করেছে। যদি কেউ মিথ্যা পায়তারা করে তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

মুরাদনগরে চাকুরী না পেয়ে হয়রানীর অভিযোগ

আপডেট সময় ০২:৩৭:৩২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ অগাস্ট ২০১৭
মো: আজিজুর রহমান রনি, বিশেষ প্রতিনিধি:

নিয়োগ পরিক্ষায় ফাষ্ট হওয়া প্রার্থীকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকালে প্রেসক্লাবে এসে উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ করেন, মুরাদনগর উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দা।

অভিযোক্ত আনিছুর রহমান পাহাড়পুর ইউনিয়নের মৃত আব্দুল বারেক মিয়ার ছেলে।

নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে তারা বলেন, সদ্য পাহাড়পুর ইউপির ১৩৫নং উৎরাইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম প্রহরী পদে নিয়োগ পরিক্ষায় প্রথম হয় মমিনুল ইসলাম। আনিছুর রহমান তার পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে না পেরে মমিনুল ইসলামের নামে বিভিন্ন দপ্তরে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছেন। এবং ওই স্কুলের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষককে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় কূরুচি পূর্ণ বক্ত্য দিচ্ছেন। এতে করে এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। তবে আনিছুর রহমান স্থানীয় কিছু উৎশৃঙ্গল ছেলের প্রতিনিধিত্ব করার কারণে প্রকাশ্যে তার প্রতিরোধ করার সহস পাচ্ছে না কেউ।

১৩৫নং উৎরাইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একাদিক শিক্ষক বলেন, ‘আমাদের বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম একজন শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবক তিনি দির্ঘদিন সুনামের সাথে পাহাড়পুর ইউনিয়নে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কল্যাণে কাজ করে আসছেন। পাশাপাশি অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিক শিপ্রা রানী দেবী সত ও কর্তব্য পরায়ন। তাদেরকে ঘিরে মিথ্যা অপবাদ দু;খ জনক।

অভিযোক্ত আনিছুর রহমান মিয়ার মুঠো ফোনে একাদিকবার চেষ্টা করেও কল রিসিভ না করায় এ বিষয়ে তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

পরিক্ষার নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাসেলুল কাদের বলেন, মমিনুল ইসলামকে নিয়োগ বোর্ড যোগ্য মনে করেই প্রথম করেছে। যদি কেউ মিথ্যা পায়তারা করে তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।