ঢাকা ০৬:৪৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় প্রবাসীর বাড়ীতে হামলা ভাংচুর

মো: সুমন সরকার, বিশেষ প্রতিনিধি:

কুমিল্লার মুরাদনগরে পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় প্রবাসীর বাড়ীতে হামলা ভাংচুর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার সকালে উপজেলার টনকি ইউনিয়নের সোনারামপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। এ সময় প্রবাসীর স্ত্রীর শ্লীলতাহানী ও প্রাননাশের চেষ্টা করা হয়েছে। এ নিয়ে বিকেলে বাঙ্গরা বাজার থানায় প্রবাসীর স্ত্রী মোকছেদা আক্তার বাদী হয়ে তিনজন এজহার নামীয় এবং ৪/৫জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেছে।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার সোনারামপুর গ্রামের কুয়েত প্রবাসী সাধন সরকার এবং তার ভাই শরীফুল ইসলামের সাথে সু-সম্পর্কের কারনে ওই পরিবারের অনেক কাজ কর্মে সহযোগিতা করে আসছিল পাশ^বর্তী রঘুরামপুর গ্রামের ওবায়দুল হক মৃধা। এরই সুত্র ধরে গত তিন মাস পুর্বে একটি জমি ক্রয় করে দেয়ার জন্য প্রবাসীর পরিবার ওবায়দুলের স্মরনাপন্ন হয়। এ সময় তার নিকট প্রবাসীর স্ত্রী মোকছেদা নগদ পাঁচ লাখ টাকা দেয় এবং শরীফুল ইসলাম কুয়েত থেকে ওবায়েদুল হকের নিজ নামীয় ইসলামী ব্যাংক কোম্পানীগঞ্জ শাখাস্থ একাউন্টে আরো চার লাখ টাকা প্রেরণ করে।

এছাড়া ওবায়দুলের ছেলে কামাল দুই প্রবাসীর কাছ থেকে ৮শত কুয়েতি দিনার হাওলাত নিয়ে দেশে চলে আসে। যার পরিমান সর্বমোট ১১ লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা। পরে প্রবাসীদ্বয়ের অর্থ নিয়ে ওবায়দুল জমি ক্রয় করে না দিয়ে নানা টালবাহানা শুরু করে। এ নিয়ে স্থানীয় সাহেব সরদারদের কাছে নালিশ করা হলেও সে কারো কথা এবং অনুরোধ আমলে নেয়নি। পরে বিষয়টি নিয়ে শালিস দরবারের প্রস্তুতি নিলে শুক্রবার সকালে ওবায়দুল তার ছেলে কামাল এবং জামালসহ ৪/৫ জন মিলে ওই প্রবাসীর পরিবারের উপর হামলা চালায় এবং স্ত্রী মোকছেদার শ্লীলতাহানীর চেষ্ঠা করে।

সময় তাকে শ^াসরোধ করে হত্যার চেষ্ঠা চালায় এবং ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুরসহ নগদ অর্থ ও স্বনালংকার লুটে নেয় বলে অভিযোগ করা হয়। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ওবায়দুল হক বলেন, প্রবাসীর পরিবার আমার কাছে কোন টাকা পয়সা পাওনা নেই, হামলা ভাংচুরের মতো কোন ঘটনা ঘটেনি, তারা আমি এবং আমার পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে।

এবিষয়ে বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি মিজানুর রহমান বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত চলছে, ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগরে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার

মুরাদনগরে পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় প্রবাসীর বাড়ীতে হামলা ভাংচুর

আপডেট সময় ০১:১৬:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ নভেম্বর ২০১৯

মো: সুমন সরকার, বিশেষ প্রতিনিধি:

কুমিল্লার মুরাদনগরে পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় প্রবাসীর বাড়ীতে হামলা ভাংচুর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার সকালে উপজেলার টনকি ইউনিয়নের সোনারামপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। এ সময় প্রবাসীর স্ত্রীর শ্লীলতাহানী ও প্রাননাশের চেষ্টা করা হয়েছে। এ নিয়ে বিকেলে বাঙ্গরা বাজার থানায় প্রবাসীর স্ত্রী মোকছেদা আক্তার বাদী হয়ে তিনজন এজহার নামীয় এবং ৪/৫জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেছে।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার সোনারামপুর গ্রামের কুয়েত প্রবাসী সাধন সরকার এবং তার ভাই শরীফুল ইসলামের সাথে সু-সম্পর্কের কারনে ওই পরিবারের অনেক কাজ কর্মে সহযোগিতা করে আসছিল পাশ^বর্তী রঘুরামপুর গ্রামের ওবায়দুল হক মৃধা। এরই সুত্র ধরে গত তিন মাস পুর্বে একটি জমি ক্রয় করে দেয়ার জন্য প্রবাসীর পরিবার ওবায়দুলের স্মরনাপন্ন হয়। এ সময় তার নিকট প্রবাসীর স্ত্রী মোকছেদা নগদ পাঁচ লাখ টাকা দেয় এবং শরীফুল ইসলাম কুয়েত থেকে ওবায়েদুল হকের নিজ নামীয় ইসলামী ব্যাংক কোম্পানীগঞ্জ শাখাস্থ একাউন্টে আরো চার লাখ টাকা প্রেরণ করে।

এছাড়া ওবায়দুলের ছেলে কামাল দুই প্রবাসীর কাছ থেকে ৮শত কুয়েতি দিনার হাওলাত নিয়ে দেশে চলে আসে। যার পরিমান সর্বমোট ১১ লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা। পরে প্রবাসীদ্বয়ের অর্থ নিয়ে ওবায়দুল জমি ক্রয় করে না দিয়ে নানা টালবাহানা শুরু করে। এ নিয়ে স্থানীয় সাহেব সরদারদের কাছে নালিশ করা হলেও সে কারো কথা এবং অনুরোধ আমলে নেয়নি। পরে বিষয়টি নিয়ে শালিস দরবারের প্রস্তুতি নিলে শুক্রবার সকালে ওবায়দুল তার ছেলে কামাল এবং জামালসহ ৪/৫ জন মিলে ওই প্রবাসীর পরিবারের উপর হামলা চালায় এবং স্ত্রী মোকছেদার শ্লীলতাহানীর চেষ্ঠা করে।

সময় তাকে শ^াসরোধ করে হত্যার চেষ্ঠা চালায় এবং ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুরসহ নগদ অর্থ ও স্বনালংকার লুটে নেয় বলে অভিযোগ করা হয়। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ওবায়দুল হক বলেন, প্রবাসীর পরিবার আমার কাছে কোন টাকা পয়সা পাওনা নেই, হামলা ভাংচুরের মতো কোন ঘটনা ঘটেনি, তারা আমি এবং আমার পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে।

এবিষয়ে বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি মিজানুর রহমান বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত চলছে, ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।