ঢাকা ০৫:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে প্রতারক যুবক আটক

মাহাবুব আলম আরিফঃ

কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৩মাস একসাথে বসবাস করে ধর্ষণ কার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রতারণার শিকার হয়ো উপজেলার ইউছূফনগর গ্রামের মেয়ে নিপা আক্তার(২৬) গত বৃহস্পতিবার রাতে এ বিষয়ে মুরাদনগর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে রাতেই পাভেলকে আটক করে থানা পুলিশ।

প্রতারক পাভেল ভূইয়া(৩৫) উপজেলার চৌধুরীকান্দি গ্রামের গনি ভূইয়ার ছেলে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নিপা আক্তারের গত কয়েক বছর আগে পারিবারিক ভাবে তার খালাতো ভাইয়ের সাথে বিয়ে হয়। সেই সংসারে বেশি দিন থাকতে পারেনি নিপা। স্বামীর সাথে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন হলে সেই সুযোগকে কাজে লাগায় প্রতারক পাভেল। তার সাথে পরকিয়া প্রেমে জড়িয়ে পরে নিপা। বিয়ের প্রলোভনে শুরু হয় শারিরীক সর্ম্পক। তবে সেই চতুর প্রেমিক তাকে বিয়ের প্রলোভন দিলেও তাকে বিয়ে না করে ৩মাস যাবত স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বিভিন্ন জায়গায় একসাথে বসবাস  করতে থাকে। নিপা যখনই বিয়ের জন্য চাপ দিত সে তখন বিষযটি এড়িয়ে যেত। এরই মধ্যে নিপা গর্ভবতি হলে পাভেল তাকে নানা যুক্তি পরার্মশ দিয়ে সন্তান নষ্ট করতে বাধ্য করে। অবশেষে মুক্তা যখন বুঝতে পারল যে সে প্রতারণার শিকার হয়েছে। তখন সে প্রতারক পাভেলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯এর(১) ধারায় গত বৃহস্পতিবার রাতে মুরাদনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-২২। বৃহস্পতিবার রাতে মুরাদনগর থানার পুলিশ উপ-পরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (এসআই) দেলোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে প্রতারক পাভেলকে গ্রেফতার করে।

এব্যাপারে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বলেন, প্রতারকের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯এর(১) ধারায় মামলা দায়ের করে আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছেঅ। শুক্রবার দুপুরে কুমিল্লা জেল-হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

মুরাদনগরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে প্রতারক যুবক আটক

আপডেট সময় ১২:২১:৩৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ জুলাই ২০১৭
মাহাবুব আলম আরিফঃ

কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৩মাস একসাথে বসবাস করে ধর্ষণ কার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রতারণার শিকার হয়ো উপজেলার ইউছূফনগর গ্রামের মেয়ে নিপা আক্তার(২৬) গত বৃহস্পতিবার রাতে এ বিষয়ে মুরাদনগর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে রাতেই পাভেলকে আটক করে থানা পুলিশ।

প্রতারক পাভেল ভূইয়া(৩৫) উপজেলার চৌধুরীকান্দি গ্রামের গনি ভূইয়ার ছেলে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নিপা আক্তারের গত কয়েক বছর আগে পারিবারিক ভাবে তার খালাতো ভাইয়ের সাথে বিয়ে হয়। সেই সংসারে বেশি দিন থাকতে পারেনি নিপা। স্বামীর সাথে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন হলে সেই সুযোগকে কাজে লাগায় প্রতারক পাভেল। তার সাথে পরকিয়া প্রেমে জড়িয়ে পরে নিপা। বিয়ের প্রলোভনে শুরু হয় শারিরীক সর্ম্পক। তবে সেই চতুর প্রেমিক তাকে বিয়ের প্রলোভন দিলেও তাকে বিয়ে না করে ৩মাস যাবত স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বিভিন্ন জায়গায় একসাথে বসবাস  করতে থাকে। নিপা যখনই বিয়ের জন্য চাপ দিত সে তখন বিষযটি এড়িয়ে যেত। এরই মধ্যে নিপা গর্ভবতি হলে পাভেল তাকে নানা যুক্তি পরার্মশ দিয়ে সন্তান নষ্ট করতে বাধ্য করে। অবশেষে মুক্তা যখন বুঝতে পারল যে সে প্রতারণার শিকার হয়েছে। তখন সে প্রতারক পাভেলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯এর(১) ধারায় গত বৃহস্পতিবার রাতে মুরাদনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-২২। বৃহস্পতিবার রাতে মুরাদনগর থানার পুলিশ উপ-পরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (এসআই) দেলোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে প্রতারক পাভেলকে গ্রেফতার করে।

এব্যাপারে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বলেন, প্রতারকের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯এর(১) ধারায় মামলা দায়ের করে আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছেঅ। শুক্রবার দুপুরে কুমিল্লা জেল-হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।