ঢাকা ০৮:৩৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে শতাধিক স্কুলে ঝুঁকি নিয়ে চলছে পাঠদান

মো: মোশাররফ হোসেন মনিরঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার ৩০৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে প্রায় শতাদিক বিদ্যালয় ঝুঁকিপূর্ন। বছরের পর বছর এসব বিদ্যালয়ে ঝঁকি নিয়ে ক্লাস করছে কোমলমতি শিশুরা। এছাড়া ভবন, পাকা ভবন নির্মিত না হওয়া, শিক্ষক, টয়লেট ও পানির সংকট, নোংড়া পরিবেশসহ নানান সমস্যায় জর্রজরিত ও জরার্জীন হয়ে বেহাল অবস্থা রয়েছে বিদ্যালয় গুলো। যা দেখার যেন কেহ নেই।

ঝুঁকিপূর্ন শতাধিক বিদ্যালয় গুলোর মধ্যে ২০টি বিদ্যালয় অবস্থা খুবই নাজুক। যে কোন সময় ঘঠতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটনা। শ্রেনি কক্ষের অভাবে শিক্ষার্থীদের লোখাপড়ার মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। ফলে এ উপজেলায় শিক্ষার হার দিন দিন কমে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এতে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ে প্রশাসনিক কার্যক্রমসহ শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্মক ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। যা মোট জনসংখ্যার শতভাগ শিক্ষার আওতায় আনার পথে অন্তরায়।

উপজেলা শিক্ষা অফিস মতে ২০টি বিধ্যালয় অধিক ঝুকিঁপূর্ণ। বিদ্যালয় গুলো হলো, নবসিংহপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গাজীপুর (দক্ষিন) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কৃষ্ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঘোড়াশাল (উত্তর) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রামপুর (উত্তর) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুরুন্ডি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নোয়াগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রোয়াচালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্রালয়, সোনাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুড়ারপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সোনারামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাজিয়াতল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, লক্ষীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও খাপুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এএনএম মাহবুব আলম সমস্যার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ এসব বিদ্যালয়ের নামের তালিকা করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে একাধিকবার পাঠানো হয়েছে। হয়তো শীঘ্রই এসব ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হতে পারে। তাতে দ্রুত এই সমস্যা সমাধান হবে।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

মুরাদনগরে শতাধিক স্কুলে ঝুঁকি নিয়ে চলছে পাঠদান

আপডেট সময় ০৪:৪৮:৪৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৬
মো: মোশাররফ হোসেন মনিরঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার ৩০৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে প্রায় শতাদিক বিদ্যালয় ঝুঁকিপূর্ন। বছরের পর বছর এসব বিদ্যালয়ে ঝঁকি নিয়ে ক্লাস করছে কোমলমতি শিশুরা। এছাড়া ভবন, পাকা ভবন নির্মিত না হওয়া, শিক্ষক, টয়লেট ও পানির সংকট, নোংড়া পরিবেশসহ নানান সমস্যায় জর্রজরিত ও জরার্জীন হয়ে বেহাল অবস্থা রয়েছে বিদ্যালয় গুলো। যা দেখার যেন কেহ নেই।

ঝুঁকিপূর্ন শতাধিক বিদ্যালয় গুলোর মধ্যে ২০টি বিদ্যালয় অবস্থা খুবই নাজুক। যে কোন সময় ঘঠতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটনা। শ্রেনি কক্ষের অভাবে শিক্ষার্থীদের লোখাপড়ার মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। ফলে এ উপজেলায় শিক্ষার হার দিন দিন কমে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এতে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ে প্রশাসনিক কার্যক্রমসহ শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্মক ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। যা মোট জনসংখ্যার শতভাগ শিক্ষার আওতায় আনার পথে অন্তরায়।

উপজেলা শিক্ষা অফিস মতে ২০টি বিধ্যালয় অধিক ঝুকিঁপূর্ণ। বিদ্যালয় গুলো হলো, নবসিংহপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গাজীপুর (দক্ষিন) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কৃষ্ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঘোড়াশাল (উত্তর) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রামপুর (উত্তর) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুরুন্ডি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নোয়াগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রোয়াচালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্রালয়, সোনাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুড়ারপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সোনারামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাজিয়াতল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, লক্ষীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও খাপুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এএনএম মাহবুব আলম সমস্যার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ এসব বিদ্যালয়ের নামের তালিকা করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে একাধিকবার পাঠানো হয়েছে। হয়তো শীঘ্রই এসব ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হতে পারে। তাতে দ্রুত এই সমস্যা সমাধান হবে।