ঢাকা ১০:১৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে বখাটে যুবক আটক

মাহাবুব আলম আরিফঃ

কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলার ভবানিপুর দাখিল মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রীকে(১২) প্রেমের ফাদেঁ ফেলে প্রতারণার মাধ্যমে ধর্ষণ অতপর অন্তসত্বা হলে গর্ভপাত করতে বাধ্য করার অভিযোগ উঠেছে প্রতারক প্রেমিক রাসেল(২২) বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষিতার বাবা মো: জয়নাল আবেদীন বাদী হয়ে মুরাদনগর থানায় একটি মামলা করেন।

মঙ্গলবার রাতেই ধর্ষণের অভিযোগে মুরাদনগর থানার এসআই আব্দুর রহিমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে ধর্ষককে আটক করে।

ধর্ষক উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে রাসেল(২২)।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রতারণার শিকার (কিশোরী) ও প্রতারক প্রেমিক রাসেল দু’জনই উপজেলার ভবানিপুর গ্রামের বাসিন্দা। রাসেল বিভিন্ন ভাবে প্রলোবন দেখিয়ে প্রায় দুই বছর পূর্বে মাদ্রাসার ছাত্রীকে প্রেমের ফাদেঁ ফেলে এবং প্রতারনার মাধ্যমে মেয়েটির সাথে শারীরিক সর্ম্পক গড়ে তুলে। রাসেল কিশোরীটিকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বারবার ধর্ষন করতে থাকে। এরই মধ্যে সে অন্তসত্বা হলে রাসেল তাকে নানা যুক্তি পরার্মশ দিয়ে সন্তান নষ্ট করার জন্য ঔষধ সেবন করায়। ঔষধ সেবনের ফলে প্রতারণার স্বীকার শিশুটি অসুস্থ হয়ে পরলে গত সোমবার বিকেলে পরিবারের লোকজন তাকে মুরাদনগর  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে ডাক্তার মেয়েটি অন্তসত্বা বলে যানায় তার অভিভাকদের। পরে একটি মৃত ছেলে সন্তানের জন্ম দেয় ঐ শিশুটি। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য পরদিন মঙ্গলবার সকালে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বর্তমানে সে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এঘটনার পর শিশুর বাবা বাদী হয়ে প্রতারক রাসেলের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার রাতে মুরাদনগর থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ ঐদিন রাতেই অভিযোক্ত ধর্ষককে আটক করে।

এব্যাপারে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বলেন, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ষক রাসেলকে আটক করে বুধবার দুপুরে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগর ভয়াবহ আগুন কয়ক কাটি টাকার ক্ষতি 

মুরাদনগরে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে বখাটে যুবক আটক

আপডেট সময় ০২:৩৩:৪৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৯ অগাস্ট ২০১৭
মাহাবুব আলম আরিফঃ

কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলার ভবানিপুর দাখিল মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রীকে(১২) প্রেমের ফাদেঁ ফেলে প্রতারণার মাধ্যমে ধর্ষণ অতপর অন্তসত্বা হলে গর্ভপাত করতে বাধ্য করার অভিযোগ উঠেছে প্রতারক প্রেমিক রাসেল(২২) বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষিতার বাবা মো: জয়নাল আবেদীন বাদী হয়ে মুরাদনগর থানায় একটি মামলা করেন।

মঙ্গলবার রাতেই ধর্ষণের অভিযোগে মুরাদনগর থানার এসআই আব্দুর রহিমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে ধর্ষককে আটক করে।

ধর্ষক উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে রাসেল(২২)।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রতারণার শিকার (কিশোরী) ও প্রতারক প্রেমিক রাসেল দু’জনই উপজেলার ভবানিপুর গ্রামের বাসিন্দা। রাসেল বিভিন্ন ভাবে প্রলোবন দেখিয়ে প্রায় দুই বছর পূর্বে মাদ্রাসার ছাত্রীকে প্রেমের ফাদেঁ ফেলে এবং প্রতারনার মাধ্যমে মেয়েটির সাথে শারীরিক সর্ম্পক গড়ে তুলে। রাসেল কিশোরীটিকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বারবার ধর্ষন করতে থাকে। এরই মধ্যে সে অন্তসত্বা হলে রাসেল তাকে নানা যুক্তি পরার্মশ দিয়ে সন্তান নষ্ট করার জন্য ঔষধ সেবন করায়। ঔষধ সেবনের ফলে প্রতারণার স্বীকার শিশুটি অসুস্থ হয়ে পরলে গত সোমবার বিকেলে পরিবারের লোকজন তাকে মুরাদনগর  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে ডাক্তার মেয়েটি অন্তসত্বা বলে যানায় তার অভিভাকদের। পরে একটি মৃত ছেলে সন্তানের জন্ম দেয় ঐ শিশুটি। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য পরদিন মঙ্গলবার সকালে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বর্তমানে সে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এঘটনার পর শিশুর বাবা বাদী হয়ে প্রতারক রাসেলের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার রাতে মুরাদনগর থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ ঐদিন রাতেই অভিযোক্ত ধর্ষককে আটক করে।

এব্যাপারে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বলেন, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ষক রাসেলকে আটক করে বুধবার দুপুরে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।