ঢাকা ০৩:২০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুরাদনগরে ৬২ হাজার শিক্ষার্থী বঞ্চিত হচ্ছে আইসিটি শিক্ষা থেকে

আজিজুর রহমার রনিঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের ১০১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় বাইষট্টি হাজার শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি) বিষয় শিক্ষা থেকে। সরকার সবকয়টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লাস নেওয়ার জন্য সংশিষ্ট্য বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত শিক্ষক থাকলেও পাচ্ছেনা এই শিক্ষা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে বিদুৎ ও প্রজেক্টর না থাকা এবং প্রতিষ্ঠান গুলোর উদাসিনতার করনেই আইসিটি শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হওয়ার মূল কারন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, মুরাদনগর উপজেলায় ১০১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে, ১২টি কলেজ, ৫৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৩৫টি মাদ্রাসা রয়েছে। এর মধ্যে ৮৯ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠিান এমপিও ভুক্ত এবং একটি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারি। ৭৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিদুৎ সংযোগ থাকলেও বাকি ৭৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই বিদুৎ। বিদুৎ থাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লাস নেওয়ার জন্য প্রজেক্টর সর্বরাহ করা হলেও কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লস হচ্ছে না বলে ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকরা অভিযোগ করেন। এতে করে আইসিটি শিক্ষা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষার্থীরা আর প্রযুক্তি বিষয় শিক্ষা থেকে আগ্রহ হারাচ্ছে।

বিভিনন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা অভিযোগ করে জানায়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়টি হাতে কলমে শিক্ষার বিষয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এই বিষয়ের উপরে ভাল দখল নিতে না পেরে একটি নিদিষ্ট্য সময়ে কিছু সুবিধার বিনিময়ে আমাদেরকে শিক্ষকের বাসায় সময় দিতে হচ্ছে। যা দরিদ্র ছাত্ররা এই সুবিধা নিতে পারছে না।

অভিভাবক হতাশা প্রকাশ করে বলেন, সরকার এত সুন্দর  উদ্যোগ নেওয়ার পরও যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লাস নিচ্ছে না ওই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছেন এবং প্রতিষ্ঠান গুলো দিন দিন পিছিয়ে পড়ছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রতন কুমার সাহা বলেন, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লস সম্পর্কে আমরা জরালো ভূমিকা রাখছি। এখন থেকে কেউ যদি এই বিষয়ে বিন্দু পরিমাস অবহেলা করে তাহলে ওই প্রতিষ্ঠানকে শাস্তির সম্মুক্ষিন হতে হবে। আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে সকল উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের নিয়ে এ বিষয়ে একটি সভা করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনসুর উদ্দিন বলেন, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লাস তথ্যও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়সহ সব বিষয় নেয়ার জন্য আমরা সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে জোড় তাগিদ দিয়েছি। সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও কম্পিউটার শিক্ষককে প্রশিক্ষন দেওয়া হয়েছে। আবারও প্রশিক্ষন দেয়া হবে। আমি মনে করি শিক্ষকদের মানশিকতার  প্ররিবর্তন ঘটালেই মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লস নেয়া সম্ভব।

ট্যাগস

মুরাদনগরে ৬২ হাজার শিক্ষার্থী বঞ্চিত হচ্ছে আইসিটি শিক্ষা থেকে

আপডেট সময় ০২:৩৯:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৬

আজিজুর রহমার রনিঃ

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের ১০১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় বাইষট্টি হাজার শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি) বিষয় শিক্ষা থেকে। সরকার সবকয়টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লাস নেওয়ার জন্য সংশিষ্ট্য বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত শিক্ষক থাকলেও পাচ্ছেনা এই শিক্ষা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে বিদুৎ ও প্রজেক্টর না থাকা এবং প্রতিষ্ঠান গুলোর উদাসিনতার করনেই আইসিটি শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হওয়ার মূল কারন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, মুরাদনগর উপজেলায় ১০১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে, ১২টি কলেজ, ৫৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৩৫টি মাদ্রাসা রয়েছে। এর মধ্যে ৮৯ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠিান এমপিও ভুক্ত এবং একটি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারি। ৭৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিদুৎ সংযোগ থাকলেও বাকি ৭৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই বিদুৎ। বিদুৎ থাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লাস নেওয়ার জন্য প্রজেক্টর সর্বরাহ করা হলেও কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লস হচ্ছে না বলে ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকরা অভিযোগ করেন। এতে করে আইসিটি শিক্ষা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষার্থীরা আর প্রযুক্তি বিষয় শিক্ষা থেকে আগ্রহ হারাচ্ছে।

বিভিনন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা অভিযোগ করে জানায়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়টি হাতে কলমে শিক্ষার বিষয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এই বিষয়ের উপরে ভাল দখল নিতে না পেরে একটি নিদিষ্ট্য সময়ে কিছু সুবিধার বিনিময়ে আমাদেরকে শিক্ষকের বাসায় সময় দিতে হচ্ছে। যা দরিদ্র ছাত্ররা এই সুবিধা নিতে পারছে না।

অভিভাবক হতাশা প্রকাশ করে বলেন, সরকার এত সুন্দর  উদ্যোগ নেওয়ার পরও যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লাস নিচ্ছে না ওই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছেন এবং প্রতিষ্ঠান গুলো দিন দিন পিছিয়ে পড়ছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রতন কুমার সাহা বলেন, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লস সম্পর্কে আমরা জরালো ভূমিকা রাখছি। এখন থেকে কেউ যদি এই বিষয়ে বিন্দু পরিমাস অবহেলা করে তাহলে ওই প্রতিষ্ঠানকে শাস্তির সম্মুক্ষিন হতে হবে। আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে সকল উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের নিয়ে এ বিষয়ে একটি সভা করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনসুর উদ্দিন বলেন, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লাস তথ্যও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়সহ সব বিষয় নেয়ার জন্য আমরা সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে জোড় তাগিদ দিয়েছি। সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও কম্পিউটার শিক্ষককে প্রশিক্ষন দেওয়া হয়েছে। আবারও প্রশিক্ষন দেয়া হবে। আমি মনে করি শিক্ষকদের মানশিকতার  প্ররিবর্তন ঘটালেই মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরভিক্তিক আইসিটি ক্লস নেয়া সম্ভব।