ঢাকা ০৯:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রোহিঙ্গা শরণার্থীরা বেশি দিন থাকলে যেসব সংকটে পড়বে বাংলাদেশ

জাতীয় ডেস্কঃ

বাংলাদেশে এখন সব মিলিয়ে প্রায় ৯ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী অবস্থান করছে। এরমধ্যে পাঁচ লাখ এসেছে ২৫ আগস্টের পর থেকে।

বাংলাদেশে তাদের অবস্থান দীর্ঘস্থায়ী হলে নিরাপত্তা, রাজনৈতিক এবং সামাজিক সংকটের আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

মিয়ানমারের রাখাইনে নির্যাতনের মুখে ২৫ আগাষ্ট থেকে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসা শুরু করেন। যাঁরা আসছেন তাঁদের বড় অংশই নারী ও শিশু। রোহিঙ্গারা এখনো আসছেন। তবে প্রবেশ পথ পরিবর্তন করেছেন তাঁরা। এখন টেকনাফের শাহপরী দ্বীপ থেকে নৌকায় বাংলাদেশে প্রবেশ করছেন। গত চার দিনে ওই পথে প্রায় সাত হাজার রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ ও শিশু কক্সবাজারে প্রবেশ করেছে। ইউএনএইচসিআর-এর হিসাব মতে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৩৫ দিনে রাখাইন থেকে মোট রোহিঙ্গা শরণার্থী এসেছে পাঁচ লাখ এক হাজার ৫০০।

রোহিঙ্গাদের এক জায়গায় রাখতে কুতুপালং-এর বালুখালিতে অস্থায়ী আশ্রয় কেন্দ্র করা হয়েছে।

সেখানে এ পর্যন্ত দুই লাখ রোহিঙ্গাকে নেয়া গেছে। বাকিরা কক্সবাজারের বিভিন্ন এলকায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে অবস্থান করছেন। বড় একটি অংশ অবস্থান নিয়েছেন মহা সড়কের পাশে। মহা সড়কের পাশে তাঁরা মূলত ত্রাণের জন্যই আশ্রয় নিয়েছেন। কারণ, জেলা প্রশাসন প্রতিদিন ১২টি স্পটে এক লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে রান্না করা খাবার দিচ্ছে। এ পর্যন্ত যেসব ত্রাণ বিদেশ থেকে এসেছে তা-ও পর্যাপ্ত নয়। সাধারণ মানুষ ও বিভিন্ন সংগঠনের দেয়া ত্রাণ সামগ্রীর ওপরই মূলত টিকে আছেন এই রোহিঙ্গারা। ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত  বাংলাদেশে চার লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী প্রবেশ করে। জাতিসংঘ তখন ওই হিসাব অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের জন্য আগামী ছয় মাসে ২০০ মিলিয়ন ডলারের প্রয়োজনের কথা জানায়। এর আগে  ৯ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ ৭৮ মিলিয়ন ডলার সহায়তার আবেদন জানিয়েছিল। কিন্তু রাখাইন থেকে নির্যাতনের মুখে রোহিঙ্গাদের আসা অব্যাহত থাকায় ত্রাণ সহায়তার কোনো সাময়িক হিসাবই মিলছে না।

পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা নারীদের অন্তত ২০ হাজার হলেন গর্ভবতী মা। আর অনেক শিশু বাবা-মাকে হারিয়ে এতিম অবস্থায় বাংলাদেশে এসেছে। অন্তত দেড় লাখ শিশু আছে, যারা এখনই স্কুলে যাওয়ার উপযোগী। কক্সবাজারে অবস্থানরত মানবাধিকার কর্মী এবং আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক নূর খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা রোহিঙ্গাদের এক জায়গায় রাখতে চাইছি। এটা মানবাধিকারের এক ধরণের লঙ্ঘন। এখনো তাদের নিবন্ধণ শেষ হয়নি। তাদের কিভাবে রাখবো? এক এলাকার লোক এক জায়গায় রাখব কিনা তা-ও নিশ্চিত নয়। বাস্তবে এখনই এক ধরনের সংকট তৈরি হয়েছে। গর্ভবতী মা, শিশু এবং বয়স্ক মানুষের খাবারে যে বিশেষত্ব থাকে, তা রিলিফ ওয়ার্কে এখনো দেখা যাচ্ছে না। সবার জন্য একই খাবার। ’’

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘এই ৮-৯ লাখ মানুষের চাপের প্রভাব স্থানীয়ভাবে এখনই দেখা যাচ্ছে। কক্সবাজার এলকায় নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়ে গেছে। তাদের থাকার জন্য বন এবং পাহাড় কাটা হচ্ছে। স্থানীয় অধিবাসীদের চেয়ে এখন রোহিঙ্গা বেশি। তাদের সঙ্গে কালচারের পার্থক্য আছে। রোহিঙ্গা জনসংখ্যা এখানে আরো বাড়বে। আমরা বিষয়টি মানবিকভাবেই দেখছি। কিন্তু দীর্ঘ অবস্থানের কারণে এসব বিষয়ই সংকটের সৃষ্টি করতে পারে। ’’

মিয়ানমারে বাংলাদেশের সাবেক ডিফেন্স এটাশে মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক মনে করেন, রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে দীর্ঘকাল অবস্থান করলে তিন ধরনের সমস্যা হতে পারে।

১. নিরাপত্তা ঝুঁকি
২. সামাজিক সমস্যা
৩. রাজনৈতিক সমস্যা

তিনি বলেন, ‘‘আমি জঙ্গি তৎপরতার অাশঙ্কার কথা বলছি না। আমি বলছি, এরা দীর্ঘকাল এখানে থাকলে যদি কোনো কাজ না পায়, তাহলে অপরাধে জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে। শিশুরা যদি লেখাপড়ার সুযোগ না পায়, তাহলে বিপথগামী হবে, যার প্রভাব ওই এলাকায় পড়বে। আর এই মানুষগুলোকে দীর্ঘকাল বাংলাদেশের পক্ষে খাইয়ে-পড়িয়ে রাখা এক বড় চ্যালেঞ্জ। স্থানীয়ভাবে তাঁরা প্রভাব বিস্তারও করতে চাইতে পারে। অতীতে তা দেখা গেছে। তা সামাজিক সমস্যার সৃষ্টি করবে। ’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘৯০-এর দশকে যে রোহিঙ্গারা এসেছেন, তারা রাজনীতিতে জড়িয়েছে। তারা জামায়াতের রাজনীতির অনুসারী হয়েছে। আর এ কারণে তাদের পুনর্বাসন করা হয়েছে। সাতকানিয়া এলাকায় তাদের পুনর্বাসন করা হয়েছে। এবার এখনই ঘটবে তা আমি বলছি না। তবে তাদের অবস্থান দীর্ঘস্থায়ী হলে তাদের মধ্যে অস্থিরতা বাড়বে। তারা বেশি সুযোগ- সুবিধা ও চলাচলের স্বাধীনতা চাইবে। ফলে তারা রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হতে চাইবে। এবং কোনো কোনো রাজনৈতিক দল এর সুযোগও নেবে। ’’

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

রোহিঙ্গা শরণার্থীরা বেশি দিন থাকলে যেসব সংকটে পড়বে বাংলাদেশ

আপডেট সময় ০৩:০৮:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১ অক্টোবর ২০১৭
জাতীয় ডেস্কঃ

বাংলাদেশে এখন সব মিলিয়ে প্রায় ৯ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী অবস্থান করছে। এরমধ্যে পাঁচ লাখ এসেছে ২৫ আগস্টের পর থেকে।

বাংলাদেশে তাদের অবস্থান দীর্ঘস্থায়ী হলে নিরাপত্তা, রাজনৈতিক এবং সামাজিক সংকটের আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

মিয়ানমারের রাখাইনে নির্যাতনের মুখে ২৫ আগাষ্ট থেকে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসা শুরু করেন। যাঁরা আসছেন তাঁদের বড় অংশই নারী ও শিশু। রোহিঙ্গারা এখনো আসছেন। তবে প্রবেশ পথ পরিবর্তন করেছেন তাঁরা। এখন টেকনাফের শাহপরী দ্বীপ থেকে নৌকায় বাংলাদেশে প্রবেশ করছেন। গত চার দিনে ওই পথে প্রায় সাত হাজার রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ ও শিশু কক্সবাজারে প্রবেশ করেছে। ইউএনএইচসিআর-এর হিসাব মতে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৩৫ দিনে রাখাইন থেকে মোট রোহিঙ্গা শরণার্থী এসেছে পাঁচ লাখ এক হাজার ৫০০।

রোহিঙ্গাদের এক জায়গায় রাখতে কুতুপালং-এর বালুখালিতে অস্থায়ী আশ্রয় কেন্দ্র করা হয়েছে।

সেখানে এ পর্যন্ত দুই লাখ রোহিঙ্গাকে নেয়া গেছে। বাকিরা কক্সবাজারের বিভিন্ন এলকায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে অবস্থান করছেন। বড় একটি অংশ অবস্থান নিয়েছেন মহা সড়কের পাশে। মহা সড়কের পাশে তাঁরা মূলত ত্রাণের জন্যই আশ্রয় নিয়েছেন। কারণ, জেলা প্রশাসন প্রতিদিন ১২টি স্পটে এক লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে রান্না করা খাবার দিচ্ছে। এ পর্যন্ত যেসব ত্রাণ বিদেশ থেকে এসেছে তা-ও পর্যাপ্ত নয়। সাধারণ মানুষ ও বিভিন্ন সংগঠনের দেয়া ত্রাণ সামগ্রীর ওপরই মূলত টিকে আছেন এই রোহিঙ্গারা। ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত  বাংলাদেশে চার লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী প্রবেশ করে। জাতিসংঘ তখন ওই হিসাব অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের জন্য আগামী ছয় মাসে ২০০ মিলিয়ন ডলারের প্রয়োজনের কথা জানায়। এর আগে  ৯ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ ৭৮ মিলিয়ন ডলার সহায়তার আবেদন জানিয়েছিল। কিন্তু রাখাইন থেকে নির্যাতনের মুখে রোহিঙ্গাদের আসা অব্যাহত থাকায় ত্রাণ সহায়তার কোনো সাময়িক হিসাবই মিলছে না।

পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা নারীদের অন্তত ২০ হাজার হলেন গর্ভবতী মা। আর অনেক শিশু বাবা-মাকে হারিয়ে এতিম অবস্থায় বাংলাদেশে এসেছে। অন্তত দেড় লাখ শিশু আছে, যারা এখনই স্কুলে যাওয়ার উপযোগী। কক্সবাজারে অবস্থানরত মানবাধিকার কর্মী এবং আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক নূর খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা রোহিঙ্গাদের এক জায়গায় রাখতে চাইছি। এটা মানবাধিকারের এক ধরণের লঙ্ঘন। এখনো তাদের নিবন্ধণ শেষ হয়নি। তাদের কিভাবে রাখবো? এক এলাকার লোক এক জায়গায় রাখব কিনা তা-ও নিশ্চিত নয়। বাস্তবে এখনই এক ধরনের সংকট তৈরি হয়েছে। গর্ভবতী মা, শিশু এবং বয়স্ক মানুষের খাবারে যে বিশেষত্ব থাকে, তা রিলিফ ওয়ার্কে এখনো দেখা যাচ্ছে না। সবার জন্য একই খাবার। ’’

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘এই ৮-৯ লাখ মানুষের চাপের প্রভাব স্থানীয়ভাবে এখনই দেখা যাচ্ছে। কক্সবাজার এলকায় নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়ে গেছে। তাদের থাকার জন্য বন এবং পাহাড় কাটা হচ্ছে। স্থানীয় অধিবাসীদের চেয়ে এখন রোহিঙ্গা বেশি। তাদের সঙ্গে কালচারের পার্থক্য আছে। রোহিঙ্গা জনসংখ্যা এখানে আরো বাড়বে। আমরা বিষয়টি মানবিকভাবেই দেখছি। কিন্তু দীর্ঘ অবস্থানের কারণে এসব বিষয়ই সংকটের সৃষ্টি করতে পারে। ’’

মিয়ানমারে বাংলাদেশের সাবেক ডিফেন্স এটাশে মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক মনে করেন, রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে দীর্ঘকাল অবস্থান করলে তিন ধরনের সমস্যা হতে পারে।

১. নিরাপত্তা ঝুঁকি
২. সামাজিক সমস্যা
৩. রাজনৈতিক সমস্যা

তিনি বলেন, ‘‘আমি জঙ্গি তৎপরতার অাশঙ্কার কথা বলছি না। আমি বলছি, এরা দীর্ঘকাল এখানে থাকলে যদি কোনো কাজ না পায়, তাহলে অপরাধে জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে। শিশুরা যদি লেখাপড়ার সুযোগ না পায়, তাহলে বিপথগামী হবে, যার প্রভাব ওই এলাকায় পড়বে। আর এই মানুষগুলোকে দীর্ঘকাল বাংলাদেশের পক্ষে খাইয়ে-পড়িয়ে রাখা এক বড় চ্যালেঞ্জ। স্থানীয়ভাবে তাঁরা প্রভাব বিস্তারও করতে চাইতে পারে। অতীতে তা দেখা গেছে। তা সামাজিক সমস্যার সৃষ্টি করবে। ’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘৯০-এর দশকে যে রোহিঙ্গারা এসেছেন, তারা রাজনীতিতে জড়িয়েছে। তারা জামায়াতের রাজনীতির অনুসারী হয়েছে। আর এ কারণে তাদের পুনর্বাসন করা হয়েছে। সাতকানিয়া এলাকায় তাদের পুনর্বাসন করা হয়েছে। এবার এখনই ঘটবে তা আমি বলছি না। তবে তাদের অবস্থান দীর্ঘস্থায়ী হলে তাদের মধ্যে অস্থিরতা বাড়বে। তারা বেশি সুযোগ- সুবিধা ও চলাচলের স্বাধীনতা চাইবে। ফলে তারা রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হতে চাইবে। এবং কোনো কোনো রাজনৈতিক দল এর সুযোগও নেবে। ’’