ঢাকা ০৩:৩৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাত লক্ষ লোকের জন্য একটি মাত্র অ্যাম্বুলেন্স:মুরাদনগরে ৯ বছরেও সচল হয়নি বিকল অ্যাম্বুলেন্স

pc muradnagr, comilla(ambulans)

মো: নাজিম উদ্দিন, বিশেষ প্রতিনিধি মুরাদনগর বার্তা ডটকম:
অসুস্থ মানুষকে চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যেতে রাতদিন যে ছুটে চলে, সেই অ্যাম্বুলেন্সটিই মরে গিয়ে এখন দাফনের পথে। কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে পুকুরের পাড়ে খোলা আকাশের নিচে স্থান পাওয়া এই অ্যাম্বুলেন্সটি দীর্ঘ ৯ বছর ধরে বিকল হয়ে পড়ে আছে। যার সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলার দুস্থ রোগীরা।

ইঞ্জিনে ক্রটির কারনে ২০০৬ সালে বিকল হয়ে পড়ে এই অ্যাম্বুলেন্সটি। দীর্ঘ সময় অচল পড়ে থাকায় ইঞ্জিন স্থায়ী ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে যা আর সচল করা সম্ভব হবে না। একই ভাবে ২০১৩ সালে অচল হয়ে খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছে আরো একটি অ্যাম্বুলেন্স। কর্তৃপক্ষের উদাসিনতায় এ অ্যাম্বুলেন্সটির মূল্যবান অনেক যন্ত্রাংশ চুরি হয়ে যাওয়ায় এটিও স্থায়ী ভাবে বিকল হয়ে আছে। এই উপজেলাটি কুমিল্লা জেলার সর্ববৃহৎ উপজেলা হলেও চিকিৎসা সেবার দিক দিয়ে সব চেয়ে পিছিয়ে রয়েছে। উপজেলায় প্রায় ৭লক্ষ লোকের বসবাস হলেও তাদের দ্রুত চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার জন্য স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সচল রয়েছে মাত্র একটি অ্যাম্বুলেন্স।
এ ব্যাপারে মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: আবু জাহের জানান, এখানে মোট তিনটি অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে, এর মধ্যে বর্তমানে দু’টি অচল হয়ে আছে,আর একটি মাত্র অ্যাম্বুলেন্স সচল রয়েছে। দীর্ঘ সময় অ্যাম্বুলেন্সটি বিকল থাকা ও বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

ট্যাগস

সাত লক্ষ লোকের জন্য একটি মাত্র অ্যাম্বুলেন্স:মুরাদনগরে ৯ বছরেও সচল হয়নি বিকল অ্যাম্বুলেন্স

আপডেট সময় ০৪:৩৯:২০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ ডিসেম্বর ২০১৪

pc muradnagr, comilla(ambulans)

মো: নাজিম উদ্দিন, বিশেষ প্রতিনিধি মুরাদনগর বার্তা ডটকম:
অসুস্থ মানুষকে চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যেতে রাতদিন যে ছুটে চলে, সেই অ্যাম্বুলেন্সটিই মরে গিয়ে এখন দাফনের পথে। কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে পুকুরের পাড়ে খোলা আকাশের নিচে স্থান পাওয়া এই অ্যাম্বুলেন্সটি দীর্ঘ ৯ বছর ধরে বিকল হয়ে পড়ে আছে। যার সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলার দুস্থ রোগীরা।

ইঞ্জিনে ক্রটির কারনে ২০০৬ সালে বিকল হয়ে পড়ে এই অ্যাম্বুলেন্সটি। দীর্ঘ সময় অচল পড়ে থাকায় ইঞ্জিন স্থায়ী ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে যা আর সচল করা সম্ভব হবে না। একই ভাবে ২০১৩ সালে অচল হয়ে খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছে আরো একটি অ্যাম্বুলেন্স। কর্তৃপক্ষের উদাসিনতায় এ অ্যাম্বুলেন্সটির মূল্যবান অনেক যন্ত্রাংশ চুরি হয়ে যাওয়ায় এটিও স্থায়ী ভাবে বিকল হয়ে আছে। এই উপজেলাটি কুমিল্লা জেলার সর্ববৃহৎ উপজেলা হলেও চিকিৎসা সেবার দিক দিয়ে সব চেয়ে পিছিয়ে রয়েছে। উপজেলায় প্রায় ৭লক্ষ লোকের বসবাস হলেও তাদের দ্রুত চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার জন্য স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সচল রয়েছে মাত্র একটি অ্যাম্বুলেন্স।
এ ব্যাপারে মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: আবু জাহের জানান, এখানে মোট তিনটি অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে, এর মধ্যে বর্তমানে দু’টি অচল হয়ে আছে,আর একটি মাত্র অ্যাম্বুলেন্স সচল রয়েছে। দীর্ঘ সময় অ্যাম্বুলেন্সটি বিকল থাকা ও বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।