ঢাকা ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্বামীকে মারতে গিয়ে শ্বশুর বাড়ির ১৩ জনকে হত্যা নববধূর

 অন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
নিজের ইচ্ছের বিরুদ্ধেই বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন আসিয়া নামে এক তরুণী। প্রেমের সম্পর্ক থাকায় স্বামীকে মোটেই পছন্দ ছিল না তার। তাই বিয়ের পর থেকেই স্বামীকে মেরে ফেলার চেষ্টা করছিলেন তিনি। দুধের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে খাইয়ে স্বামীকে মারতে গিয়ে শ্বশুরবাড়ির ১৩ সদস্যকে মেরে ফেললেন আসিয়া।
দি এক্সপ্রেস ট্রিবিউনে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, পাকিস্তানের মুজফফরগড়ে এ ঘটনা ঘটে। দুধের সঙ্গে বিষ মেশানোর ফলেই এই বিপত্তি ঘটে। প্রকাশিত প্রতিবেদনের বলা হয়- দুই মাস আগে আসিয়ার সঙ্গে মুজাফফরগড়ের আমজাদের বিয়ে হয়। কিন্তু এই বিয়েতে আসিয়ার মত ছিল না। ইচ্ছের বিরুদ্ধে বিয়ে হওয়ার কারণে প্রেমিকের সঙ্গেও সম্পর্ক টিকিয়ে রেখেছিলেন তিনি। এ কারণে তিনি আমজাদকে খুনের পরিকল্পনা করেন।
সম্প্রতি তিনি দুধের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে দেন। কিন্তু আমজাদ ওইদিন দুধ খাননি। আমজাদের মা অর্থাৎ আসিয়ার শাশুড়ি ওই দুধ দিয়ে লস্যি তৈরি করে পরিবারের সকলের মধ্যে ভাগ করে নেন। বিষয়টি আসিয়া জানতেন না। শিশুসহ বাড়ির ২৭ জন সদস্য ওই লস্যি খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। হাসপাতালে যাওয়ার পর ১৩ জনের মৃত্যু হয়।
ইতিমধ্যেই আসিয়াকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে খুনের মামলা করা হয়েছে। পুলিশের অনুমান, ওই বিষের যোগান আসিয়াকে তার প্রেমিকই দিয়েছিলেন। তাই প্রেমিকের সন্ধান করছেন তারা।
ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

স্বামীকে মারতে গিয়ে শ্বশুর বাড়ির ১৩ জনকে হত্যা নববধূর

আপডেট সময় ০১:৫২:২৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ নভেম্বর ২০১৭
 অন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
নিজের ইচ্ছের বিরুদ্ধেই বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন আসিয়া নামে এক তরুণী। প্রেমের সম্পর্ক থাকায় স্বামীকে মোটেই পছন্দ ছিল না তার। তাই বিয়ের পর থেকেই স্বামীকে মেরে ফেলার চেষ্টা করছিলেন তিনি। দুধের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে খাইয়ে স্বামীকে মারতে গিয়ে শ্বশুরবাড়ির ১৩ সদস্যকে মেরে ফেললেন আসিয়া।
দি এক্সপ্রেস ট্রিবিউনে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, পাকিস্তানের মুজফফরগড়ে এ ঘটনা ঘটে। দুধের সঙ্গে বিষ মেশানোর ফলেই এই বিপত্তি ঘটে। প্রকাশিত প্রতিবেদনের বলা হয়- দুই মাস আগে আসিয়ার সঙ্গে মুজাফফরগড়ের আমজাদের বিয়ে হয়। কিন্তু এই বিয়েতে আসিয়ার মত ছিল না। ইচ্ছের বিরুদ্ধে বিয়ে হওয়ার কারণে প্রেমিকের সঙ্গেও সম্পর্ক টিকিয়ে রেখেছিলেন তিনি। এ কারণে তিনি আমজাদকে খুনের পরিকল্পনা করেন।
সম্প্রতি তিনি দুধের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে দেন। কিন্তু আমজাদ ওইদিন দুধ খাননি। আমজাদের মা অর্থাৎ আসিয়ার শাশুড়ি ওই দুধ দিয়ে লস্যি তৈরি করে পরিবারের সকলের মধ্যে ভাগ করে নেন। বিষয়টি আসিয়া জানতেন না। শিশুসহ বাড়ির ২৭ জন সদস্য ওই লস্যি খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। হাসপাতালে যাওয়ার পর ১৩ জনের মৃত্যু হয়।
ইতিমধ্যেই আসিয়াকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে খুনের মামলা করা হয়েছে। পুলিশের অনুমান, ওই বিষের যোগান আসিয়াকে তার প্রেমিকই দিয়েছিলেন। তাই প্রেমিকের সন্ধান করছেন তারা।