ঢাকা ১১:১০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হোমনায় সেলিমা আহমাদ এমপি’র পরিকল্পনায় আলোয় আলোকিত গ্রামীণ মেঠোপথ

মো. তপন সরকার, হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:

গ্রাম হবে শহর আসছে আলোর প্রহর” এ শ্লোগানকে সামনে রেখে” কুমিল্লার হোমনায় বিভিন্ন অন্ধকারাছন্ন এলাকা, সড়ক, মহাসড়ক ও হাট-বাজারে সোলার স্ট্রিট লাইট স্থাপনে আলোয় আলোকিত হয়েছে গ্রামীণ জনপদ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের অংশ হিসেবে কুমিল্লা-২ (হোমনা -তিতাস) আসনের সংসদ সদস্য  সেলিমা আহমাদ মেরীর পরিকল্পনায় গোটা উপজেলা আলোকিত হওয়ায় সাধুবাদ জানিয়েছেন উপজেলার সর্বস্তরের জনগণ।

এলাকার সচেতন ব্যক্তিরা জানান, লাইটের কারণে রাতের রাস্তা আলোকিত থাকায় লোক সমাগম বেড়েছে পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে রাতে সার্বক্ষণিক আলো থাকায় কমেছে মাদকের ব্যবহার, চুরি-ডাকাতিসহ নানা অসামাজিক কার্যকলাপ। স্থাপিত এই লাইটগুলো যাতে নষ্ট না হয় সেজন্য সঠিকভাবে পর্যবেক্ষণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, গত অর্থবছর (২০১৮-১৯) সস্পূণ বিনামূল্যে টিআর ও কাবিখা প্রকল্পের আওতায় ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয় প্রকল্পের মাধ্যমে ১টি পৌরসভা ও ৯টি ইউনিয়নের বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির, স্কুল ও কলেজসহ দুঃস্থ পরিবারে মাঝে ১০ কোটি ৪৩ লাখ ৯ হাজার ৮০ টাকা ব্যয়ে ৩৪৯টি হোমসোলার ও ৮৪ টি পয়েন্টে সৌর বিদ্যুতের চালিত স্ট্রিট লাইট লাগানো হয়েছে।
এ ব্যাপারে কুমিল্লা-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ (মেরী) বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে কাজ করছি মাত্র। তারই ফলশ্রুতিতে আমার নির্বাচনী এলাকা হোমনা-তিতাস উপজেলার গ্রামীণ সড়কগুলোকে সৌর বিদ্যুৎতের আলোয় আলোকিত করা হয়েছে। যাতে সাধারণ মানুষ নির্বিঘ্নে রাতে চলাচল করতে পারে।

তিনি আরো জানান, নিজে উপস্থিত থেকে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে সাথে নিয়ে আমার বিশেষ বরাদ্দ থেকে শুধু রাস্তাই নয় মসজিদ,মাদ্রাসা,মন্দির,শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মোড় ও ছোট ছোট বাজারে বসানো হয়েছে স্ট্রিট লাইট। এর ফলে উপজেলাবাসী নিরাপত্তাসহ নির্বিঘ্নে চলাফেরা করতে পারছেন। এ ছাড়া বিদ্যুৎ ব্যবহারে বর্তমান সরকারের সোলার স্থাপন প্রকল্পটি একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। এ ছাড়া সরকারি সুযোগ সুবিধা জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে দেয়াই আমাদের মূল লক্ষ্য।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো.নাহিদ আহাম্মেদ জাকির জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ (মেরী)র পরামর্শে উপজেলার প্রতিটা রাস্তার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে লাইট বসানো হয়েছে। তবে এই কাজটি চলমান থাকবে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে হোমনা পৌর মেয়র এ্যাড. নজরুল ইসলাম জানান, আমাদের এমপি মহোদয় আমাদেরকে ভালো রাখতে দিন-রাত পরিশ্রম করে চলেছেন। তাঁর একান্ত প্রচেষ্টায় উপজেলাবাসী এই হোমসোলার ও স্ট্রিট লাইটের সুবিধা ভোগ করতে পারছেন। এই লাইটগুলো স্থাপনের মাধ্যমে ডিজিটালাইজেশনে আরো একধাপ এগিয়ে গেলো।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

হোমনায় সেলিমা আহমাদ এমপি’র পরিকল্পনায় আলোয় আলোকিত গ্রামীণ মেঠোপথ

আপডেট সময় ০৫:৫১:৩৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯

মো. তপন সরকার, হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:

গ্রাম হবে শহর আসছে আলোর প্রহর” এ শ্লোগানকে সামনে রেখে” কুমিল্লার হোমনায় বিভিন্ন অন্ধকারাছন্ন এলাকা, সড়ক, মহাসড়ক ও হাট-বাজারে সোলার স্ট্রিট লাইট স্থাপনে আলোয় আলোকিত হয়েছে গ্রামীণ জনপদ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের অংশ হিসেবে কুমিল্লা-২ (হোমনা -তিতাস) আসনের সংসদ সদস্য  সেলিমা আহমাদ মেরীর পরিকল্পনায় গোটা উপজেলা আলোকিত হওয়ায় সাধুবাদ জানিয়েছেন উপজেলার সর্বস্তরের জনগণ।

এলাকার সচেতন ব্যক্তিরা জানান, লাইটের কারণে রাতের রাস্তা আলোকিত থাকায় লোক সমাগম বেড়েছে পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে রাতে সার্বক্ষণিক আলো থাকায় কমেছে মাদকের ব্যবহার, চুরি-ডাকাতিসহ নানা অসামাজিক কার্যকলাপ। স্থাপিত এই লাইটগুলো যাতে নষ্ট না হয় সেজন্য সঠিকভাবে পর্যবেক্ষণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, গত অর্থবছর (২০১৮-১৯) সস্পূণ বিনামূল্যে টিআর ও কাবিখা প্রকল্পের আওতায় ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয় প্রকল্পের মাধ্যমে ১টি পৌরসভা ও ৯টি ইউনিয়নের বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির, স্কুল ও কলেজসহ দুঃস্থ পরিবারে মাঝে ১০ কোটি ৪৩ লাখ ৯ হাজার ৮০ টাকা ব্যয়ে ৩৪৯টি হোমসোলার ও ৮৪ টি পয়েন্টে সৌর বিদ্যুতের চালিত স্ট্রিট লাইট লাগানো হয়েছে।
এ ব্যাপারে কুমিল্লা-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ (মেরী) বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে কাজ করছি মাত্র। তারই ফলশ্রুতিতে আমার নির্বাচনী এলাকা হোমনা-তিতাস উপজেলার গ্রামীণ সড়কগুলোকে সৌর বিদ্যুৎতের আলোয় আলোকিত করা হয়েছে। যাতে সাধারণ মানুষ নির্বিঘ্নে রাতে চলাচল করতে পারে।

তিনি আরো জানান, নিজে উপস্থিত থেকে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে সাথে নিয়ে আমার বিশেষ বরাদ্দ থেকে শুধু রাস্তাই নয় মসজিদ,মাদ্রাসা,মন্দির,শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মোড় ও ছোট ছোট বাজারে বসানো হয়েছে স্ট্রিট লাইট। এর ফলে উপজেলাবাসী নিরাপত্তাসহ নির্বিঘ্নে চলাফেরা করতে পারছেন। এ ছাড়া বিদ্যুৎ ব্যবহারে বর্তমান সরকারের সোলার স্থাপন প্রকল্পটি একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। এ ছাড়া সরকারি সুযোগ সুবিধা জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে দেয়াই আমাদের মূল লক্ষ্য।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো.নাহিদ আহাম্মেদ জাকির জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ (মেরী)র পরামর্শে উপজেলার প্রতিটা রাস্তার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে লাইট বসানো হয়েছে। তবে এই কাজটি চলমান থাকবে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে হোমনা পৌর মেয়র এ্যাড. নজরুল ইসলাম জানান, আমাদের এমপি মহোদয় আমাদেরকে ভালো রাখতে দিন-রাত পরিশ্রম করে চলেছেন। তাঁর একান্ত প্রচেষ্টায় উপজেলাবাসী এই হোমসোলার ও স্ট্রিট লাইটের সুবিধা ভোগ করতে পারছেন। এই লাইটগুলো স্থাপনের মাধ্যমে ডিজিটালাইজেশনে আরো একধাপ এগিয়ে গেলো।