ঢাকা ০৬:১৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হোমনায় কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত

মোর্শেদুল ইসলাম শাজু, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লা হোমনা উপজেলায় মশলা জাতীয় শস্য জিরা চাষে সম্ভাবনা নিয়ে এক কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার উপজেলার দৈালতপুরে কুমিল্লা কৃষি স্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক যুগল পদ দে’র সভাপতিত্বে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জুলফিকার আলীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. মো. আজিজুর রহমান মোল্লা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শেফালী বেগম, কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ির মহা পরিচালক কৃষিবিদ মো. মনজুরুল হান্নান, সরেজমিন উইংয়ের পরিচালক কৃষিবিদ চৈতন্য কুমার দাস ও হর্টিকালচার উইংয়ের পরিচালক কুদরত-ই-গণি ও জিরা চাষী আলমগীর মিয়া।

সমাবেশে জিরা চাষে কৃষক আলমগীরের উৎসাহ উদ্দিপনার কথা  তুলে ধরে অন্যান্য কৃষককেও এতে উদ্বুদ্ধ করতে গিয়ে বক্তারা বলেন, এই অঞ্চলে জিরা চাষে যে সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে তাতে অত্যন্ত মূল্যবান ও বিদেশী মশলার ওপর থেকে নির্ভরশীলতা অনেক কমিয়ে আনতে সক্ষম হবে। কৃষক সমাবেশে কৃষক আলমগীর মিয়া তার অভিব্যক্তি কওে বলেন, তার সৈাদি প্রবাসী ছোট ভাই সে দেশ থেকে আধাকেজি পরিমান ইরানি জিরার বীজ আনেন। তা থেকে মাত্র দুই শ’গ্রাম বীজ তার নয় শতাংশ জমিতে বুনেন। এতে ভালো ফলন হওয়ায় তিনি অত্যন্ত খুশি।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

হোমনায় কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত

আপডেট সময় ০৪:০৭:৫৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মার্চ ২০১৭
মোর্শেদুল ইসলাম শাজু, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লা হোমনা উপজেলায় মশলা জাতীয় শস্য জিরা চাষে সম্ভাবনা নিয়ে এক কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার উপজেলার দৈালতপুরে কুমিল্লা কৃষি স্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক যুগল পদ দে’র সভাপতিত্বে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জুলফিকার আলীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. মো. আজিজুর রহমান মোল্লা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শেফালী বেগম, কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ির মহা পরিচালক কৃষিবিদ মো. মনজুরুল হান্নান, সরেজমিন উইংয়ের পরিচালক কৃষিবিদ চৈতন্য কুমার দাস ও হর্টিকালচার উইংয়ের পরিচালক কুদরত-ই-গণি ও জিরা চাষী আলমগীর মিয়া।

সমাবেশে জিরা চাষে কৃষক আলমগীরের উৎসাহ উদ্দিপনার কথা  তুলে ধরে অন্যান্য কৃষককেও এতে উদ্বুদ্ধ করতে গিয়ে বক্তারা বলেন, এই অঞ্চলে জিরা চাষে যে সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে তাতে অত্যন্ত মূল্যবান ও বিদেশী মশলার ওপর থেকে নির্ভরশীলতা অনেক কমিয়ে আনতে সক্ষম হবে। কৃষক সমাবেশে কৃষক আলমগীর মিয়া তার অভিব্যক্তি কওে বলেন, তার সৈাদি প্রবাসী ছোট ভাই সে দেশ থেকে আধাকেজি পরিমান ইরানি জিরার বীজ আনেন। তা থেকে মাত্র দুই শ’গ্রাম বীজ তার নয় শতাংশ জমিতে বুনেন। এতে ভালো ফলন হওয়ায় তিনি অত্যন্ত খুশি।