ঢাকা ০৩:৩০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হোমনায় সদ্য বিবাহিত বোনের শশুর বাড়ি বেড়াতে এসে ভাইয়ের সলিল সমাধি

মোর্শেদুল ইসলাম শাজু,বিশেষ প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার হোমনায় সদ্য ববাহিত বোনের শ^শুরবাড়িতে বেড়াতে এসে এক ভাইয়ের সলিল সমাধি ঘটলো।

মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় বৌভাতশেষে বোনকে নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না ভাই তানভীর হোসেনের (১৬)।

রোববার ঘোরাঘুরি শেষে বেলা তিনটার দিকে পার্শবর্তী তিতাস নদীতে গোসল করতে নেমে সলিল সমাধি হয় তার।

উপজেলার  রামকৃষ্ণপুর তালিমনগর গ্রামে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। সে ঢাকার মধ্য বাড্ডার আদর্শনগর মির্জাবাড়ির আবদুস সাত্তারের ছেলে।

একদিন বাদেই গতকাল সোমবার বৌভাত অনুষ্ঠান সেরে বোনকে নিয়ে নিজ বাড়ি ঢাকায় ফেরার কথা ছিল তার। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপস্থিত স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সেদিন ভাগ্নে ফেরদৌসহ আরেক বন্ধুকে নিয়ে পাশর্^বর্তী তিতাস নদীতে গোসল করতে গিয়েছিল তানভীর। প্রতিদিনের মতো মরা ছিল না নদী। সেদিন ছিল জোয়ারের পানিতে টইটুম্বুর। জোয়ারের টানে নদীর মাঝে চলে যায় তানভীর। গভীর পানিতে হাবু-ডুবু খেতে দেখে অন্যরা তাকে বাঁচাতে এগিয়েও যায়। তারাও একটু-আধটু সাঁতার জানামাত্র। বাঁচানোর আকুল চেষ্টা। এ সময় পরনের কাপড়ও ছিটকে গিয়েছিল তাদের। কিন্তু বিধি বাম! তাদের আপ্রাণ চেষ্টা বিফল করে চোখের নিমেষেই তলিয়ে যায় তানভীর। এ সময় সাহায্যে স্থানীয় আরও অনেকেই এগিয়ে এসে পানিতে নামে। ততক্ষণে অতলে হারিয়ে যায় সে। অবশেষে স্থানীয় লোকজন দুই ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে নদীতে জাল ফেলে অসাড় তানভীরকে উদ্ধার করে সন্ধ্যায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ এসে লাশ হোমনা থানায় নিয়ে যায়। হোমনা সার্কেল সহকারি পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম আজাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এস আই হাফিজুর রহমান জানান, নিহতের মাসহ পরিবারের লেকজনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে রাতে লাশ ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ঢাকায় নিয়ে দাফন করা হবে।
এ ব্যাপারে সহকারি পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম আজাদ বলেন, বোনের বিয়েতে বেড়াতে এসে পাশের তিতাস নদীতে গোসল করতে নামে। সাঁতার না জানার কারণে জোয়ারের টানে ভেসে যায়। পানিতে ডুবে তার মৃত্যু হয়েছে।

হোমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রসুল আহমেদ নিজামী বলেন, গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে মারা যাওয়ার ঘটনায় থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

হোমনায় সদ্য বিবাহিত বোনের শশুর বাড়ি বেড়াতে এসে ভাইয়ের সলিল সমাধি

আপডেট সময় ১০:১৪:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০১৭
মোর্শেদুল ইসলাম শাজু,বিশেষ প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার হোমনায় সদ্য ববাহিত বোনের শ^শুরবাড়িতে বেড়াতে এসে এক ভাইয়ের সলিল সমাধি ঘটলো।

মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় বৌভাতশেষে বোনকে নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না ভাই তানভীর হোসেনের (১৬)।

রোববার ঘোরাঘুরি শেষে বেলা তিনটার দিকে পার্শবর্তী তিতাস নদীতে গোসল করতে নেমে সলিল সমাধি হয় তার।

উপজেলার  রামকৃষ্ণপুর তালিমনগর গ্রামে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। সে ঢাকার মধ্য বাড্ডার আদর্শনগর মির্জাবাড়ির আবদুস সাত্তারের ছেলে।

একদিন বাদেই গতকাল সোমবার বৌভাত অনুষ্ঠান সেরে বোনকে নিয়ে নিজ বাড়ি ঢাকায় ফেরার কথা ছিল তার। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপস্থিত স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সেদিন ভাগ্নে ফেরদৌসহ আরেক বন্ধুকে নিয়ে পাশর্^বর্তী তিতাস নদীতে গোসল করতে গিয়েছিল তানভীর। প্রতিদিনের মতো মরা ছিল না নদী। সেদিন ছিল জোয়ারের পানিতে টইটুম্বুর। জোয়ারের টানে নদীর মাঝে চলে যায় তানভীর। গভীর পানিতে হাবু-ডুবু খেতে দেখে অন্যরা তাকে বাঁচাতে এগিয়েও যায়। তারাও একটু-আধটু সাঁতার জানামাত্র। বাঁচানোর আকুল চেষ্টা। এ সময় পরনের কাপড়ও ছিটকে গিয়েছিল তাদের। কিন্তু বিধি বাম! তাদের আপ্রাণ চেষ্টা বিফল করে চোখের নিমেষেই তলিয়ে যায় তানভীর। এ সময় সাহায্যে স্থানীয় আরও অনেকেই এগিয়ে এসে পানিতে নামে। ততক্ষণে অতলে হারিয়ে যায় সে। অবশেষে স্থানীয় লোকজন দুই ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে নদীতে জাল ফেলে অসাড় তানভীরকে উদ্ধার করে সন্ধ্যায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ এসে লাশ হোমনা থানায় নিয়ে যায়। হোমনা সার্কেল সহকারি পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম আজাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এস আই হাফিজুর রহমান জানান, নিহতের মাসহ পরিবারের লেকজনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে রাতে লাশ ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ঢাকায় নিয়ে দাফন করা হবে।
এ ব্যাপারে সহকারি পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম আজাদ বলেন, বোনের বিয়েতে বেড়াতে এসে পাশের তিতাস নদীতে গোসল করতে নামে। সাঁতার না জানার কারণে জোয়ারের টানে ভেসে যায়। পানিতে ডুবে তার মৃত্যু হয়েছে।

হোমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রসুল আহমেদ নিজামী বলেন, গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে মারা যাওয়ার ঘটনায় থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে।