ঢাকা ১১:৫০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হোসনি মোবারকের হত্যা-দুর্নীতির মামলা খারিজ

মিশরের একটি আদালত দেশটির পতিত স্বৈরশাসক হোসনি মোবারকের বিরুদ্ধে ২০১১ সালের গণঅভ্যুত্থানের সময় শত শত মানুষকে গুলি করে হত্যার মামলা খারিজ করে দিয়েছে।
husni mubarak
হোসনি মোবারকের সময়কার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী হাবিব আল-আডলি এবং অন্য ছয়জন কর্মকর্তাকেও এই মামলায় খালাস দিয়েছে আদালত।

দুই বছর আগে এই মামলায় বিচার আদালত মোবারককে যাবজ্জীবন সাজা দেয়। কিন্তু পরে আপীল আদালত এই রায় খারিজ করে দেয়।

আদালত মোবারককে দুর্নীতির মামলা থেকেও অব্যাহতি দিয়েছে।

মিশরের বিচার বিভাগে তিন দশকের বেশি সময় ক্ষমতায় থাকা মোবারকের অনুগতরা মজবুত আসন গেড়ে রয়েছে বলে অভিযোগ আছে।

২০১১ সালে আরব বসন্তের প্রভাবে কায়রোর তাহরির স্কয়ারে যে বিপ্লবের সূচনা হয় তাকে নির্মমভাবে দমনের চেষ্টা করেন মোবারক।

এ সময় নিরাপত্তাবাহিনীর গুলিতে প্রায় ৮০০ বিক্ষোভকারী মারা যায়।

পরে ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পদত্যাগ করেন মোবারক।

ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মোবারক আমলের সাতজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়।

বর্তমানে অর্থ আত্মসাতের দায়ে হোসনি মোবারক তিন বছরের সাজা ভোগ করছেন।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

মুরাদনগর ভয়াবহ আগুন কয়ক কাটি টাকার ক্ষতি 

হোসনি মোবারকের হত্যা-দুর্নীতির মামলা খারিজ

আপডেট সময় ১২:১৫:০০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ নভেম্বর ২০১৪

মিশরের একটি আদালত দেশটির পতিত স্বৈরশাসক হোসনি মোবারকের বিরুদ্ধে ২০১১ সালের গণঅভ্যুত্থানের সময় শত শত মানুষকে গুলি করে হত্যার মামলা খারিজ করে দিয়েছে।
husni mubarak
হোসনি মোবারকের সময়কার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী হাবিব আল-আডলি এবং অন্য ছয়জন কর্মকর্তাকেও এই মামলায় খালাস দিয়েছে আদালত।

দুই বছর আগে এই মামলায় বিচার আদালত মোবারককে যাবজ্জীবন সাজা দেয়। কিন্তু পরে আপীল আদালত এই রায় খারিজ করে দেয়।

আদালত মোবারককে দুর্নীতির মামলা থেকেও অব্যাহতি দিয়েছে।

মিশরের বিচার বিভাগে তিন দশকের বেশি সময় ক্ষমতায় থাকা মোবারকের অনুগতরা মজবুত আসন গেড়ে রয়েছে বলে অভিযোগ আছে।

২০১১ সালে আরব বসন্তের প্রভাবে কায়রোর তাহরির স্কয়ারে যে বিপ্লবের সূচনা হয় তাকে নির্মমভাবে দমনের চেষ্টা করেন মোবারক।

এ সময় নিরাপত্তাবাহিনীর গুলিতে প্রায় ৮০০ বিক্ষোভকারী মারা যায়।

পরে ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পদত্যাগ করেন মোবারক।

ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মোবারক আমলের সাতজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়।

বর্তমানে অর্থ আত্মসাতের দায়ে হোসনি মোবারক তিন বছরের সাজা ভোগ করছেন।