ঢাকা ১০:২২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

১১ জন মিলে ১ রান, শূন্যতে আউট ৯!

খেলাধূলা ডেস্ক:

১১ জন খেলোয়াড় ব্যাট হাতে মাঠে খেলল ৬৯ বল, কিন্তু তাদের রান ১! দলীয় স্কোর অবশ্য ৮। এটি একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচের স্কোর এবং দলটির নাম মালদ্বীপ। চলতি এসএ গেমসের ৪ ম্যাচে তাদের মোট রানের পরিমাণ ৬০। এর মধ্যে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ ৩০।

প্রথম ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে মালদ্বীপের মেয়েরা অলআউট হয়েছিল ১৬ রানে, ম্যাচ হেরেছিল ১০ উইকেটে। পরের ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২৮০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় মালদ্বীপ অলআউট হয় ৩০ রানে। এরপর বাংলাদেশের বিপক্ষে তো ২৫৬ রানের লক্ষ্য তাড়ায় মালদ্বীপ গুটিয়ে যায় ৬ রানেই! পোখরায় আজ তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে আবার মালদ্বীপের সামনে পড়েছিল প্রথম ম্যাচের প্রতিপক্ষ নেপাল। আজ প্রথম দিনের মত দুই অঙ্কে যেতে পারেনি দলীয় রান, অলআউট হয়েছে মাত্র ৮ রানে! তাও সেখানে ব্যাটসম্যানদের অবদান ১ রান। বাকিটা নেপালের বোলারদের অবদানে এসেছে।

তৃতীয় স্থান নির্ধারনী এ ম্যাচে টস হেরে ব্যাটিং পেয়েছিল মালদ্বীপ। দ্বিতীয় ওভারে ৬ রানে তারা হারায় প্রথম উইকেট। এরপর স্কোর ৭ রেখে হারায় আরও ৩ উইকেট। আর স্কোর ৮ রেখে হারায় শেষ ৬ উইকেট! ওপেনার আইমা আইশাথ করেন ১ রান। বাকি দশজন রানের খাতা খুলতে পারেননি। অবশ্য এর মধ্যে শাম্মা আলী অপরাজিত ছিলেন। তাই তিনি শূন্য রানে ‘ডাক মেরেছেন’ বলা যাচ্ছে না।

অন্যদিকে এসএ গেমসের অংশ হওয়ায় ম্যাচটি আন্তর্জাতিক খেলার সম্মান পাচ্ছে। আইসিসি সব সদস্য রাষ্ট্রকে টি-টুয়েন্টি মর্যাদা দেওয়ার পর যেকোনো দুই দল মুখোমুখি হলেই সেটি আন্তর্জাতিক ম্যাচের স্বীকৃতি পায়।

মালদ্বীপের দেওয়া সহজ লক্ষ্যটা নেপালের মেয়েরা পেরিয়ে গেছে ১ ওভার ১ বলে। ১০ উইকেটের জয়ে স্বাগতিকরা পেয়েছে ব্রোঞ্জ। রোববার স্বর্ণপদকের লড়াইয়ে ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে মুরাদনগরে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ

১১ জন মিলে ১ রান, শূন্যতে আউট ৯!

আপডেট সময় ০৫:২৪:১১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯

খেলাধূলা ডেস্ক:

১১ জন খেলোয়াড় ব্যাট হাতে মাঠে খেলল ৬৯ বল, কিন্তু তাদের রান ১! দলীয় স্কোর অবশ্য ৮। এটি একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচের স্কোর এবং দলটির নাম মালদ্বীপ। চলতি এসএ গেমসের ৪ ম্যাচে তাদের মোট রানের পরিমাণ ৬০। এর মধ্যে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ ৩০।

প্রথম ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে মালদ্বীপের মেয়েরা অলআউট হয়েছিল ১৬ রানে, ম্যাচ হেরেছিল ১০ উইকেটে। পরের ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২৮০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় মালদ্বীপ অলআউট হয় ৩০ রানে। এরপর বাংলাদেশের বিপক্ষে তো ২৫৬ রানের লক্ষ্য তাড়ায় মালদ্বীপ গুটিয়ে যায় ৬ রানেই! পোখরায় আজ তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে আবার মালদ্বীপের সামনে পড়েছিল প্রথম ম্যাচের প্রতিপক্ষ নেপাল। আজ প্রথম দিনের মত দুই অঙ্কে যেতে পারেনি দলীয় রান, অলআউট হয়েছে মাত্র ৮ রানে! তাও সেখানে ব্যাটসম্যানদের অবদান ১ রান। বাকিটা নেপালের বোলারদের অবদানে এসেছে।

তৃতীয় স্থান নির্ধারনী এ ম্যাচে টস হেরে ব্যাটিং পেয়েছিল মালদ্বীপ। দ্বিতীয় ওভারে ৬ রানে তারা হারায় প্রথম উইকেট। এরপর স্কোর ৭ রেখে হারায় আরও ৩ উইকেট। আর স্কোর ৮ রেখে হারায় শেষ ৬ উইকেট! ওপেনার আইমা আইশাথ করেন ১ রান। বাকি দশজন রানের খাতা খুলতে পারেননি। অবশ্য এর মধ্যে শাম্মা আলী অপরাজিত ছিলেন। তাই তিনি শূন্য রানে ‘ডাক মেরেছেন’ বলা যাচ্ছে না।

অন্যদিকে এসএ গেমসের অংশ হওয়ায় ম্যাচটি আন্তর্জাতিক খেলার সম্মান পাচ্ছে। আইসিসি সব সদস্য রাষ্ট্রকে টি-টুয়েন্টি মর্যাদা দেওয়ার পর যেকোনো দুই দল মুখোমুখি হলেই সেটি আন্তর্জাতিক ম্যাচের স্বীকৃতি পায়।

মালদ্বীপের দেওয়া সহজ লক্ষ্যটা নেপালের মেয়েরা পেরিয়ে গেছে ১ ওভার ১ বলে। ১০ উইকেটের জয়ে স্বাগতিকরা পেয়েছে ব্রোঞ্জ। রোববার স্বর্ণপদকের লড়াইয়ে ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা।